অনুপম হত্যার সাজা ঘোষণা আজ বারাসত আদালতে

0

ওয়েবডেস্ক: ২০১৭ সালের ২ মে বেসরকারি সংস্থার কর্মী অনুপম সিং হত্যা মামলায় সাজা ঘোষণা শুক্রবার। গত বৃহস্পতিবার নিহতের স্ত্রী মনুয়া মজুমদার এবং তাঁর প্রেমিক অজিত রায়কে এই মামলায় দোষী সাব্যস্ত করে বারাসত ফাস্ট ট্র্যাক ফোর্থ আদালত। প্রায় ২৩ মাস পর সেই মামলারই দোষী সাব্যস্তদের সাজা ঘোষণা হতে চলেছে এ দিন। কী শাস্তি হতে পারে?

এ দিন বারাসত ফাস্ট ট্র্যাক ফোর্থ আদালতের বিচারক বৈষ্ণব সরকার সাজা ঘোষণা করবেন অনুপম হত্যায় দোষী সাব্যস্ত মনুয়া-অজিতের। অনুপমের মা দাবি করেছেন, দোষীদের ফাঁসি চাই। একই সঙ্গে আইনজীবী মহলের বক্তব্য, এ দিন আদালত অপরাধের প্রকৃতি অনুধাবন করে দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তি পর্যন্ত দিতে পারে।

এই মামলার সরকারি কৌঁসুলি শ্যামলকান্তি দত্ত জানিয়েছেন, “খুন ও ষড়যন্ত্রের ধারায় দু’জনকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। এর ন্যূনতম শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এমনকী সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড পর্যন্ত হতে পারে”।

বছর দুয়েক পিছনে

গত ৩ মে, ২০১৭ হৃদয়পুরের সিংহ ভিলার ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার করা হয় অনুপমের দেহ। পুলিশি তদন্তে প্রধান অভিযুক্ত হিসেবে উঠে আসে মনুয়া ও তাঁর প্রাক্তন প্রেমিক অজিতের নাম। গ্রেফতার করা হয় দুজনকেই। জানা যায়, ছাত্রজীবনে অজিতের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল মনুয়ার। তবে অনুপমের সঙ্গেও মনুয়ার বিয়ে হওয়ার আগে প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয়। কিন্তু বছর দেড়েক ঘুরতে না ঘুরতেই দাম্পত্য জীবনে নেমে আসে ওই নৃশংসতা!

গত ২০১৭ সালের ২ মে প্রেমিক অজিতের সঙ্গে পরিকল্পনা করে পেশায় একটি বেসরকারি সংস্থার কর্মী স্বামী অনুপম সিংহকে ছক কষে খুন করে স্ত্রী মনুয়া। প্রেমিক অজিতকে নিজেদের ফাঁকা ফ্ল্যাটে ঢুকিয়ে বাইরে থেকে তালাবন্ধ করে চলে যায় মনুয়া। আগাম পরিকল্পনামাফিক প্রেমিক অজিতকে দিয়ে স্বামীকে খুন, ফোনের ওপার থেকে স্বামীর আর্ত চিৎকার স্ত্রী মনুয়ার ‘লাইভ’ শোনা, সেই নৃশংস হত্যাকাণ্ড নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়।

পুলিশি তদন্ত

ঘটনার পরই স্থানীয় পাড়া-প্রতিবেশীদের সন্দেহের নিশানায় চলে আসে অনুপমের স্ত্রী। পাশাপাশি আরও বেশ কয়েকটি সূত্র ধরে মনুয়া এবং অজিত উঠে আসে পুলিশের জালে। তবে পুলিশি জেরার মুখে মনুয়াকে তেমন একটা ভেঙে পড়তে দেখা যায়নি। নিজেদের নির্দোষ প্রমাণের পাশাপাশি তাঁদের সম্পর্ক নিয়েও বেশ খুশিই থাকতে দেখা গিয়েছে। এমনকী দু’জনকে মুখোমুখি বসিয়ে পুলিশের জেরার সামনেও মনুয়া নিজের অবস্থানেই অনড় থাকে।

প্রেমিক অজিত অবশ্য পুলিশের জেরার সামনে অপরাধ কবুল করে নেয় বলে জানা যায়। পুলিশি তদন্তে জানা যায়, অনুপমকে খুনের কয়েকদিন পরে অজিতের সঙ্গে দক্ষিণেশ্বরে যায় মনুয়া। তথ্যপ্রমাণ লোপাটে গঙ্গায় নিজের দু’টি মোবাইল ফেলে দেয় অজিত। যে ভাবে ঠান্ডা মাথায় পরিকল্পনা করে প্রেমিকের সঙ্গে স্বামীকে খুনের ছক কষে স্ত্রী, তাতে অবাক তদন্তকারীরাও।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন