আর কাঠ-কয়লা নয়, পশ্চিম বর্ধমানের সমস্ত স্কুলে মিড ডে মিল রান্না হবে এলপিজি-তে

0

কলকাতা: বাংলার নতুন বছরের প্রথম দিন থেকেই পশ্চিম বর্ধমানের প্রতিটি মিড ডে মিলের রান্নাঘর পাচ্ছে নতুন উপকরণ। জেলা শাসক শশাঙ্ক শেঠি জানিয়েছেন, আগামী ১৫ এপ্রিল থেকে বর্ধমান জেলার প্রতিটা স্কুল এবং অঙ্গনওয়াড়ির মিড ডে মিল রান্না হবে এলপিজি-তেই। বর্তমানে শহরাঞ্চলের কোনো কোনো স্কুলে এলপিজি ব্যবহার হলেও অধিকাংশ স্কুলই নির্ভরশীল কাঠ-কয়লার উপর।

জেলাশাসক জানিয়েছেন, জেলার দু’টি মহকুমা আসানসোল এবং দুর্গাপুরের প্রত্যেকটি স্কুলে মিড ডে মিলের রান্নার জন্য এলপিজি সরবরাহের যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। শহর এবং গ্রামীণ সর্বত্র এলপিজি ব্যবহারের কারণ হিসাবে উঠে এসেছে দূষণজনিত সমস্যা।

কাঠ-কয়লায় রান্নার ফলে এক দিকে যেমন পরিবেশ দূষণের মাত্রা বাড়ছে তেমনই অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে পড়াশোনা করার ফলে ছাত্রী-ছাত্রীদেরও শরীরের উপর প্রভাব পড়ে। স্বাভাবিক ভাবেই এই সমস্যা কাটাতে বিকল্প হিসাবে উঠে এল এলপিজির ব্যবহার। জেলা শাসক জানান, বিদ্যালয়ের পাশাপাশি অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রগুলির রান্নাঘরেও ঠাঁই পাবে এলপিজি। এখনও পর্যন্ত প্রায় ৮০ শতাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এলপিজি সরবরাহের ব্যবস্থা হয়ে গিয়েছে। বাকি ২০ শতাংশের কাজ আগামী ১৫ এপ্রিলের মধ্যেই শেষ হয়ে যাবে বলে আশাপ্রকাশ করেন তিনি।

পরিকল্পনাটির বাস্তবায়নের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সংশ্লিষ্ট বিডিওগুলিকে। তারাই প্রতিনিধি পাঠিয়ে স্কুল এবং অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রগুলিতে এলপিজি সিলিন্ডার সরবরাহের বন্দোবস্থ করছেন।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন