পশ্চিমবঙ্গের কৃষকদের বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে মোদী সরকার: তৃণমূল

0
[প্রতীকী ছবি]

কলকাতা: শুক্রবার ছয় রাজ্যের কৃষকদের সঙ্গে অনলাইনে আলাপচারিতার সময় পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। প্রধানমন্ত্রী দাবি করেছেন, রাজ্যের কৃষকদের প্রধানমন্ত্রী কিসান সম্মান নিধি প্রকল্পের সুবিধা থেকে বঞ্চিত করছে তৃণমূল সরকার। মোদীর সেই দাবিকে মিথ্যাচার বলে পাল্টা দাবি করল রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল (TMC)।

কী বলছে তৃণমূল

একটি বিবৃতিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) বলেন, “লক্ষ লক্ষ কৃষক নতুন আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী অর্ধসত্য বলছেন, মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চাইছেন”।

Loading videos...

তিনি আরও বলেন, “আমি নিজে দু’দিন আগে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। কিন্তু কেন্দ্র রাজনৈতিক স্বার্থে অসহযোগিতা করছে”।

তৃণমূলের বর্ষীয়ান সাংসদ সৌগত রায় (Sougata Roy) এ দিন বলেন, “বিজেপি ধারাবাহিক ভাবে বলে চলেছে, রাজ্য সরকার কিসান সম্মান নিধি প্রকল্প থেকে কৃষকদের বঞ্চিত করছে। এটা সত্য নয়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রের কাছে প্রস্তাব দিয়েছিলেন, কেন্দ্রীয় প্রকল্পের টাকা রাজ্যের মাধ্যমে কৃষকদের কাছে পৌঁছে দিতে। কিন্তু কেন্দ্রের জেদের কারণেই তা সম্ভব হচ্ছে না। আসলে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য নিয়েই জেদ ধরে বসে রয়েছে বিজেপি”।

একই সঙ্গে সৌগত দাবি করেন, চুক্তিচাষের মাধ্যমে কৃষিকে কর্পোরেটদের হাতে তুলে দিতে নতুন আইন এনেছে কেন্দ্র।

সংসদের শেষ অধিবেশনে নয়া তিন কৃষি বিল পাস করাতে মরিয়া হয়ে উঠেছিল বিজেপি। তিনি বলেন, আলু, পেঁয়াজের মতো পণ্যগুলিকে অত্যাবশ্যকীয় পণ্য তালিকা থেকে বাদ দিয়ে সাধারণ মানুষের দুর্দশা বাড়িয়েছে বিজেপি। এর ফলে খোলা বাজারে আলু ও পেঁয়াজের মতো নিত্যব্যবহার্য পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণ এখন রাজ্য সরকারের নাগালের বাইরে চলে গিয়েছে।

কী বলেছেন প্রধানমন্ত্রী

রাজ্যের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়ে মোদী এ দিন বলেন, “আমার দুঃখ সারা দেশে চালু হলেও শুধুমাত্র পশ্চিমবঙ্গ কিসান সম্মান নিধি প্রকল্প চালু করেনি। রাজনৈতিক কারণেই তারা রাজ্যের ৭০ লক্ষ কৃষককে এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত রেখেছে। এমনকী অনলাইনে ২৩ লক্ষ কৃষক আবেদন করেছেন, কিন্তু রাজ্য সরকার সেই আবেদনও আটকে রেখেছে”।

সংবাদ সংস্থা এএনআই মোদীর বক্তব্য উদ্ধৃত করে জানায় এ দিন তিনি বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আদর্শ বাংলাকে ধ্বংস করেছে। কৃষকদের বিরুদ্ধে তাঁর এই কর্মকাণ্ড আমাকে আঘাত দিয়েছে। বিরোধী দল এ নিয়ে চুপ কেন”?

কৃষক বন্ধু

গত ২০১৮-র শেষ দিনে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছিলেন কৃষক বন্ধু (Krishak Bondhu) প্রকল্পের। বছরে যে কোনো একটি চাষের জন্য দু-ক্ষেপে একর প্রতি জমির জন্য কৃষককে দেওয়া হয় বার্ষিক ৫,০০০ টাকা। পাশাপাশি কৃষক বন্ধু নামের নতুন প্রকল্পের আওতায় ১৮-৬০ বছর বয়সি কৃষকের মৃত্যুতে রাজ্যের তরফে মৃতের পরিবারকে ২ লক্ষ টাকার আর্থিক অনুদান দেওয়া হয়।

রাজ্যের প্রায় ৭২ লক্ষ কৃষককে এই অ্যাসিওরেন্স মডেলে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার জন্যই এই প্রকল্প।

প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি প্রকল্প

এই প্রকল্পে ২ হেক্টর পর্যন্ত জমির মালিক কৃষককে বছরে ৬,০০০ টাকা সরাসরি দেওয়া হয় সরাসরি তাঁর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে। মোট তিনটি কিস্তিতে দেওয়া হয় এই অনুদান দেওয়া হয় প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি প্রকল্পে (pm kisan samman nidhi)। ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে চালু হয় এই প্রকল্প।

শুক্রবার এই প্রকল্পের পরবর্তী কিস্তি হিসেবে ৯ কোটি সুবিধাভোগী কৃষককে ১৮,০০০ কোটি টাকা বিলি করেন প্রধানমন্ত্রী। কিসান ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে স্বল্প সুদের কৃষকদের ঋণ পাওয়ার বিষয়টিতেও আলোকপাত করেন তিনি।

আরও পড়তে পারেন: নীতীশ কুমারের দলে ভাঙন, ছয় বিধায়ক যোগ দিলেন বিজেপিতে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.