কলকাতা: বিজেপি-শাসিত রাজ্য রাজস্থানে সভা করতে গিয়ে কৃষকদের বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয়েছিল প্রধানমন্ত্রীকে। গত মার্চে ওই সভায় উপস্থিত কালো পোশাকধারী কৃষকেরা সেই পোশাক খুলে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। গত শনিবার যে কারণে সেই রাজস্থানেই প্রধানমন্ত্রীর সভায় কোনো কালো পোশাকধারী বা কাপড়ের টুকরো হাতে কোনো কৃষককে ঢুকতে দেয়নি পুলিশ। এ বার তাঁর বাংলা সফরে কালো ব্যাজ পরেই প্রতিবাদ জানানোর কর্মসূচি নিল তৃণমূল কংগ্রেস।

বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের পশ্চিমবঙ্গ সফরের মাস না ঘুরতেই রাজ্যে আসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সম্প্রতি কৃষিতে সহায়ক মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত ঘোষণায় মোদীকে সংবর্ধনা দেওয়ার উদ্দেশে ওই সভা অনুষ্ঠিত হলেও এর নেপথ্যে যে রয়েছে বিজেপির রাজনৈতিক প্রচার, তা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে। যে কারণে জমি ছাড়তে নারাজ রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসও।

আগামী ১৬ জুলাই মেদিনীপুরের কলেজিয়েট মাঠে সভা করবেন মোদী। তবে মোদীর এই সভা রাজ্যের কৃষকদের মনে সামান্য আঁচড় কাটতে পারবে না দাবি করেও তৃণমূলের কিষান ও খেতমজুর সংগঠন একাধিক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। সংগঠনের সভাপতি বেচারাম মান্না জানিয়েছেন, “বিজেপি সরকারের জনবিরোধী নীতির জন্য কৃষক ও শ্রমিক মার খাচ্ছে। সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের মনে সম্প্রীতিও নষ্ট করছে এরা। প্রধানমন্ত্রীর রাজ্য সফরের দিন সংগঠনের কৃষক সদস্যরা কালো ব্যাজ পরে প্রতিবাদ জানাবেন”।

আরও পড়ুন: মোদীর সভায় কালো পোশাক নিষিদ্ধ, কাপড়ের টুকরোও যেন না থাকে পরীক্ষা করল পুলিশ!

উল্লেখ্য, কৃষিতে সহায়ক মূল্য বৃদ্ধি করলেও তার ফলে কৃষকরা কতটা উপকৃত হবেন, তা নিয়েও সংশয় রয়েছে ওয়াকিবহাল মহলে। দাবি করা হচ্ছে, কেন্দ্র কৃষকদের কাছ থেকে উৎপাদিত ফসল কেনা কমিয়ে দিয়েছে। যার ফলে সেই খোলাবাজারেই তাঁরা ফসল বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন।  কৃষক কল্যাণ সমাবেশের নামে দলীয় প্রচারের উদ্দেশেই বেছে নেওয়া হয়েছে মেদিনীপুরকে।

জানা গিয়েছে, মোদীর এই সভার পরই মেদিনীপুরে পাল্টা সভার আয়োজন করতে পারে তৃণমূল। সামনে ২১ জুলাই, শহিদ দিবস। তার পরেই হয়তো এই কর্মসূচি নিতে চলেছে শাসক দল।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here