তিন দিনের ‘ব্রেক’ নিচ্ছে বর্ষা, কী হবে এই সময়ে?

0

কলকাতা: জুলাই মাসের মাঝামাঝি হয়ে গেল, আষাঢ় শেষ হতে চলল, দক্ষিণবঙ্গে এখনও সে ভাবে নিজেকে মেলে ধরতে পারল না বর্ষা। এরই মধ্যে দক্ষিণবঙ্গবাসীর কাছে আরও খারাপ খবর। তিন দিনের বিরতি নিতে চলেছে বর্ষা। ফলে যেটুকু বৃষ্টি দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় হচ্ছিল, সেটাও ধীরে ধীরে কমবে।

বর্ষার মাঝে বিরতি, বা আবহাওয়ার পরিভাষায় যাকে ‘মনসুন ব্রেক’ খুব স্বাভাবিক একটা ঘটনা। এই সময়ে ভারতের অধিকাংশ অঞ্চলেই বৃষ্টি হঠাৎ করে বন্ধ হয়ে যাকে। বেশ কিছু দিন বর্ষা বন্ধ থাকার পর আবার তা সক্রিয় হয় বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ তৈরি হওয়ার দৌলতে। এই সময়ে মৌসুমী অক্ষরেখা হিমালয়ের পাদদেশ দিয়ে বিস্তৃত হওয়ার ফলে শুকনো আবহাওয়া দাপট দেখায় দেশের অধিকাংশ অঞ্চলে। এই সময়ে যথেষ্ট বৃষ্টি হয় তামিলনাড়ু, পশ্চিম উপকূল, উত্তরাখণ্ড, হিমাচল এবং উত্তরপূর্ব ভারত ও উত্তরবঙ্গে। বাকি পুরো দেশেই বৃষ্টি কমে যায়।

রবিবার থেকেই সেই ‘ব্রেক’ শুরু হতে চলেছে বর্ষার। ফলে কলকাতা এবং দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় বৃষ্টি কমে যাবে। অবশ্য কলকাতায় সে ভাবে একদমই বৃষ্টি হয়নি এ বার। কিন্তু জেলাগুলিতে তো তা-ও হয়েছে। সেটা কমার ফলে বৃষ্টির ঘাটতি আরও যে বাড়বে তা বলাই বাহুল্য।

তবে এই ‘ব্রেক’-এরও কিছু বৈশিষ্ট্য আছে। এবং আপনি যদি খুব ভাগ্যবান হন, তা হলে আপনার এলাকা ভাসিয়ে বৃষ্টি হতেও পারে। এটা পুরোটাই হয় স্থানীয় ভাবে বজ্রগর্ভ মেঘের সৃষ্টি কারণে। এই বৃষ্টি অল্প সময়ে অল্প জায়গায় অত্যন্ত ভারী বৃষ্টি নামায়। অতীতে অনেক বার দেখা গিয়েছে, এই সময়ের বৃষ্টি হয়তো আলিপুরে ১০০ মিলিমিটার বৃষ্টি দিল মাত্র ১ ঘণ্টায় আবার দমদম থাকল এক্কেবারে শুকনো। আগামী তিন দিন এ রকম যে কিছু হবে না, সেটা বলে যায় না। তবে তার সম্ভাবনা খুবই কম।

আরও পড়ুন তিন পুরসভার পর এ বার জেলা পরিষদও বিজেপির হাত থেকে ছিনিয়ে নিল তৃণমূল?

তবে বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা ওয়েদার আল্টিমা জানাচ্ছে, এই তিন দিন উত্তর শহরতলি এবং শহরের পূর্বাংশেই এই ধরনের বৃষ্টি হতে পারে। তবে এই সময়ে তাপমাত্রা বেশ অনেকটাই বাড়বে বলে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। গত কয়েক দিন সে ভাবে শহরে বৃষ্টি না হলেও সর্বোচ্চ পারদ কমের দিকেই ছিল ফলে সে ভাবে গরম লাগেনি। এ বার যথেষ্ট গরম লাগবে। কারণ শহরের পারদ পৌঁছে যেতে পারে ৩৭ ডিগ্রিতে। পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলিতে পারদ আর একটু বেশি উঠতে পারে।

তবে বুধবারের পর থেকে বৃষ্টি ফিরবে বলে মনে করছে ওয়েদার আল্টিমা। আর সেটা হবে মূলত মাটি গরম হয়ে যাওয়ার ফলে। সংস্থার কর্ণধার রবীন্দ্র গোয়েঙ্কা জানাচ্ছেন, “মনে করছি বুধবার থেকে বৃষ্টি পুনরায় শুরু হবে। কারণ মাটি গরম হওয়ার একটা প্রভাব তো থাকবেই, পাশাপাশি বঙ্গোপসাগর থেকে জলীয় বাষ্পও ঢুকবে।”

সামনের সপ্তাহের শুরুর দিকে বঙ্গোপসাগরে একটি নিম্নচাপ তৈরি হওয়ারও ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে। সেই নিম্নচাপ তৈরি হলে দক্ষিণবঙ্গের বৃষ্টি পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here