দক্ষিণবঙ্গে আর কতদিন নিষ্ক্রিয় থাকবে বর্ষা?

0
summer in bengal

ওয়েবডেস্ক: প্রথমে বলে রাখা যাক, গত মঙ্গলবার কলকাতা এবং দক্ষিণবঙ্গের বিক্ষিপ্ত অঞ্চলে যে জোর বৃষ্টি হয়েছে বা বৃহস্পতিবার দুপুরের পরে বীরভূম, বর্ধমান, বাঁকুড়ার বিক্ষিপ্ত কিছু অঞ্চলে যে ঝড়বৃষ্টি হয়েছে, সেটা কোনো ভাবেই বর্ষার সক্রিয়তা প্রমাণ করে না। বরং এই ঝড়বৃষ্টির আচরণই বলে দিচ্ছে দক্ষিণবঙ্গে এখনও দুর্বল রয়েছে বর্ষা। এই সুযোগে গত কয়েক দিন ধরে পারদ যে চড়েছে, সেটা কার্যত নামছেই না। এই পরিস্থিতিতে বৃষ্টিপ্রত্যাশী মানুষ এবং কার্যত মাথায় হাত ওঠা কৃষকদের প্রশ্ন কবে সক্রিয় হবে বর্ষা?

বর্ষার দুর্বল থাকার সুযোগকে কাজে লাগিয়ে পারদ যে চড়া শুরু হয়েছে, তা আর কমার কোনো নামগন্ধই নেই। কলকাতায় এ দিন সর্বোচ্চ পারদ রেকর্ড করা হয়েছে ৩৬.৪ ডিগ্রি। গত রবিবার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত পারদ যতটা উঠেছিল, তার থেকে কম ঠিকই, কিন্তু জুলাইয়ের শেষার্ধে এতটা পারদ কখনোই স্বাভাবিক নয়।

বৃষ্টির অভাবে পারদ বাড়ছে দক্ষিণবঙ্গের সর্বত্র। তবে উল্লেখযোগ্য ভাবে এ দিন রাজ্যের উপকূলবর্তী অঞ্চলের পারদ পশ্চিমাঞ্চলের থেকে অনেকটাই বেশি ছিল। যেমন ক্যানিং এবং কাঁথিতে এ দিন সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৮-এর ওপরে ছিল, অথচ বাঁকুড়ার পারদ ছিল ৩৭.৮। পুরুলিয়া এবং বর্ধমানের পারদ ছিল যথাক্রমে ৩৫.২ এবং ৩৬.৫।

পারদের এই ঊর্ধ্বগামী যাত্রা হচ্ছে তার কারণ বর্ষা সক্রিয় নয় রাজ্যের এই অংশে। যেটুকু ঝড়বৃষ্টি হচ্ছে সেটা স্থানীয় গরম এবং জলীয় বাষ্পের মিশেলের ফলে বজ্রগর্ভ মেঘপুঞ্জ হওয়ার কারণে। আগামী কয়েক দিনও এই রকম পরিস্থিতিই চলবে দক্ষিণবঙ্গের সব জায়গাতেই। এখন প্রশ্ন হল, বর্ষার স্বাভাবিক বৃষ্টি কবে দেখবেন দক্ষিণবঙ্গের মানুষ?

বর্ষা সক্রিয় হতে এখনও অন্তত দিন চারেক সময় লাগবে বলে মনে করছে বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা ওয়েদার আল্টিমা। আগামী ২২ জুলাইয়ের পর থেকে দক্ষিণবঙ্গে ধীরে ধীরে বৃষ্টির পরিমাণ বাড়বে বলে মনে করছেন সংস্থার কর্ণধার রবীন্দ্র গোয়েঙ্কা। তবে বর্ষা প্রথমে পশ্চিমাঞ্চলে সক্রিয় হবে এবং তার একদিন পর অর্থাৎ ২৩ তারিখ থেকে কলকাতা এবং তার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে বৃষ্টি বাড়বে।

এই মুহূর্তে দক্ষিণবঙ্গের ওপর দিয়ে মৌসুমী অক্ষরেখা বিস্তৃত হচ্ছে না, অন্য দিকে বঙ্গোপসাগরে কোনো নিম্নচাপও নেই যা দক্ষিণবঙ্গে বর্ষার স্বাভাবিক বৃষ্টি নামাতে পারে। সেই কারণেই বর্ষা দুর্বল হয়ে গিয়েছে এখানে। রবীন্দ্রবাবু মনে করেন, ২২ জুলাইয়ের পর থেকে এই অক্ষরেখা দক্ষিণবঙ্গে নেমে আসবে এবং সেই সঙ্গে সহকারী ঘূর্ণাবর্তও তৈরি হবে।

আরও পড়ুন ১৫ দিনে চারটে আন্তর্জাতিক সোনা, তবু মন ভালো নেই হিমা দাসের

এর ফলে সামনের সপ্তাহের বুধ-বৃহস্পতিবারের পর থেকে ভারী বৃষ্টির স্বাদও পাবে কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গ। বৃষ্টির নিরিখে জুলাইয়ের শেষটা দক্ষিণবঙ্গে খুব ভালো যাবে বলেই মনে করেন রবীন্দ্রবাবু। বৃষ্টিপ্রত্যাশী তামাম মানুষের কাছে এটা যে অত্যন্ত খুশির খবর তা তো আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here