old tortured mother

নিজস্ব সংবাদদাতা, দক্ষিণ ২৪ পরগণা: আবার অমানবিক নির্যাতনের শিকার হলেন এক বৃদ্ধা মা। অভিযোগের আঙুল উঠেছে  শিক্ষিত ছেলে ও বউমার বিরুদ্ধে। অভিযোগ, সম্পত্তির লোভে বৃদ্ধা মাকে মারধর করে মাথা ফাটিয়ে ঘরে তালাবন্দি করে রাখা হয়েছিল। বউমাকে গ্রেফতার করা হয়েছে, ছেলে পলাতক।

ঘটনাটি দক্ষিণ শহরতলির বারুইপুরের সুভাষগ্রাম এলাকার পেটুয়ার ঘটনা। বৃদ্ধার প্রতিবেশী এক মহিলা ঘটনাটির আঁচ পেয়ে যান। তিনিই উদ্যোগ নিয়ে ওই বৃদ্ধার মেয়ে ও জামাইকে খবর দেন। মায়ের এই করুণ অবস্থার খবর পেয়ে ছুটে আসেন মেয়ে ও জামাই। তাঁরাই প্রতিবেশীদের সাহায্য নিয়ে বৃদ্ধাকে ঘর থেকে উদ্ধার করেন। তাঁকে সুভাষগ্রাম প্রাথমিক চিকিৎসাকেন্দ্রে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করান। তার পর বারুইপুর থানায় মাকে নিয়ে এসে ছেলে ও বউমার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করান। পুলিস ওই অভিযোগের ভিত্তিতে বৃদ্ধার বউমাকে গ্রেফতার করেছে।

ছেলে ও বউমার হাতে নির্যাতিতা বৃদ্ধার নাম দীপালি দে। প্রায় ৬০ বছর বয়স দীপালিদেবীর। ছেলে ঝন্টু দে, গড়িয়ার ঢালাই ব্রিজের কাছে একটি প্রাথমিক স্কুলে শিক্ষকতা করেন। ঝন্টুবাবুর স্ত্রী টগরী দে। তাঁদের একটি সন্তানও রয়েছে। ছেলে ও বউমার কাছেই থাকতেন দীপালিদেবী। স্থানীয় মানুষ ও পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, দীপালিদেবীর কিছু বিষয় সম্পত্তি রয়েছে। আর সেই সম্পত্তি মায়ের কাছ থেকে লিখিয়ে নেওয়ার জন্য ইদানীং উঠেপড়ে লেগেছিলেন ছেলে ও বউমা। আর তাই নিয়েই সংসারে গোল বেঁধেছিল। অভিযোগ, এই নিয়ে মার ওপর নির্যাতন শুরু করেছিলেন ছেলে ওবউমা। এর আগেও তাঁকে মারধর করা হয়। তিনি তা নিয়ে পুলিসেরও দারস্থ হয়েছিলেন। কিন্তু তাতে কোন ফল হয়নি।

এর পর দীপালিদেবী ছেলের বিরুদ্ধে খোরপোশ চেয়ে আদালতে মামলাও করেছিলেন বলে খবর। বৃহস্পতিবার রাতে সম্পত্তি নিয়ে মায়ের সঙ্গে ছেলে ও বউমার বিবাদ চরমে ওঠে। অভিযোগ, সম্পত্তি হাতানোর জন্য সাদা কাগজে মাকে দিয়ে সই করিয়ে নিতে চায় ছেলে ও বউমা। আর তাতে রাজি না হওয়ায় মাকে মারধর করেন তাঁরা। তাঁর মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়। তার পর একটি ঘরে তাঁকে বন্দি করেও রাখা হয়েছিল। বারুইপুর থানার পুলিস জানায়, বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করা হয়েছে। বৃদ্ধার অভিযোগের ভিত্তিতে তাঁর বউমাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। কিন্তু ছেলে পালিয়ে গিয়েছেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here