পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তথা স্বাস্থ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে কড়া হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছিলেন, জোর দিতে হবে রোগী পরিষেবায়। হুশিঁয়ারি সত্ত্বেও এসএসকেএম হাসপাতালে এমআরআই পরিষেবা যে তিমিরে সেই তিমিরেই রয়ে গিয়েছে। রোগীদের অভিযোগ, প্রায় আট মাস লেগে যাচ্ছে এমআরআই-এর জন্য ‘ডেট’ পেতে। আট মাস পর এলেই যে এমআরআই করার সুযোগ পাবেন, সে গুড়ে বালি। মেশিন খারাপ বলে ফিরিয়ে দিয়ে আবার নতুন করে ডেট দেওয়া হচ্ছে।

বর্ধমান জেলা থেকে আসা আনসার শেখ কোমর ও নার্ভের যন্ত্রণার জন্য হাসপাতালের আউটডোর বিভাগে ডাক্তার দেখান। তাঁর অভিযোগ, “৯ মাস আগে ডাক্তার দেখিয়েছিলাম। আমাকে ৯ মাস পর আজ এমআরআই করার ডেট দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু আজ বলা হয় মেশিন খারাপ আছে। ফের এক মাস পর আসতে বলা হয়েছে।’’

mri_story

আনসার শেখ এ নিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গেও কথা বলেছেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাঁকে বলেছেন, ‘আমাদের কিছু করার নেই।’ শুধু তাঁকে নয় ওই দিন এমআরআই করতে আসা সব রোগীকেই ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে আনসার শেখের অভিযোগ।

মহম্মদ আসরফ নামে আরেক রোগীর অভিযোগ, “তার পেটে টিউমারের অপারেশনের জন্য এমআরআই করাটা জরুরি বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। কিন্তু হাসপাতাল ২ মাস পর সময় দিয়েছে। এমআরআই না করা হলে চিকিৎসাই শুরু করা যাচ্ছে না।”

এ বিষয়ে এসএসকেএম হাসপাতালের ডিরেক্টর মঞ্জু বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রশ্ন করা হলে, তিনি এ বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি।

সদ্য রোগীকল্যাণ সমিতির (আরকেএস) দায়িত্ব নিয়েছেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। এসএসকেএম-এ দালালরাজ বন্ধ করতে কড়া ব্যবস্থা নিতে পুলিশকে নির্দেশও দিয়েছেন তিনি। সেইমতো পুলিশ সাদা পোশাকে রোগী সেজে ধরপাকড়ও শুরু করেছে। তাই রোগীদের আশা এবার এমআরআই পরিষেবার ওপরও নজর পড়বে আরকেএস-এর চেয়ারম্যানের। 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here