mukul-roy-sad

কলকাতা: তৃণমূল ত্যাগ করে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার আগেই ঠিক হয়েছিল রাজস্থান বা উত্তরপ্রদেশ থেকে রাজ্যসভার সাংসদ করা হবে মকুল রায়কে। পরে মত বদলে বিজেপি স্থির করে, সাংসদ নয়, মুকুলের হাতে তুলে দেওয়া হবে দলের রাজ্য পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব। কিন্তু দলীয় ঠোকাঠুকির কারণে সেটাও সম্ভব হয়নি। শেষমেশ পঞ্চায়েত ভোটকে সামনে রেখে তাঁকে দেওয়া হয় বিজেপির পঞ্চায়েত নির্বাচনী কমিটির আহ্বায়কের পদ। কিন্তু নিয়ম মতে পঞ্চায়েত নির্বাচনও শেষ। মুকুল-ঘনিষ্টদের মনে প্রশ্ন, বর্তমানে বিজেপির সদস্য ছাড়া আর অন্য কোন পদে আছেন মুকুলবাবু?

শেষ বছরে দুর্গাপুজোর মহাপঞ্চমীর দিন সংবাদ মাধ্যমের সামনে তৃণমূল ছাড়ার কথা ঘোষণা করেন মুকুলবাবু। কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ১১ অক্টোবর দিল্লিতে থেকে পদত্যাগ করেন তৃণমূলের সদস্য ও রাজ্যসভার সাংসদ পদ। প্রায় মাসখানের মধ্যেই গত বছরের ৪ নভেম্বর দিল্লির অশোকা রোডে বিজেপির দলীয় কার্যালয়ে গেরুয়া শিবিরে যোগ দিয়ে ১০ নভেম্বর কলকাতায় ফিরে জনসভা করেন।

আরও পড়ুন: সাউথ সিটি মলে বাইক আরোহীদের জন্য পোশাকের দোকান খুলল হার্লে ডেভিডসন

তারপরে কেটে গিয়েছে বেশ কয়েক মাস। তাঁর জন্য একাধিক পদের প্রস্তাব উঠলেও সর্বসম্মতিক্রমে তা গৃহীত হয়নি। এমনকী সারা দেশে পাঁচ ডজনের উপর রাজ্যসভার সাংসদপদে নির্বাচন হলেও তালিকায় ঠাঁই পায়নি তাঁর নাম। অগত্যা, পশ্চিমবঙ্গের পঞ্চায়েত নির্বাচনকে সামনে রেখে তাঁকে বসানো হয় নির্বাচনী কমিটির আহ্বায়কের আসনে। কিন্তু নির্বাচন কমিশনের হিসাবে পঞ্চায়েত ভোট সম্পন্ন হওয়ার পর ওই পদের প্রাসঙ্গিকতা ফিকে হয়ে যাওয়াটাই স্বাভাবিক।

কলকাতা হাইকোর্টে জমা করা হলফনামায় রাজ্য নির্বাচন কমিশন জানিয়েছিল, গত ১৪ মে ভোট গ্রহণের পর ২১ মে সমাপ্ত হবে নির্বাচনী প্রক্রিয়া। সেই মোতাবেক নির্বাচনী বিধি-নিষেধও উঠে গিয়েছে মঙ্গলবার থেকে। স্বাভাবিক ভাবেই মুকুল-ঘনিষ্টদের মনে প্রশ্ন, পঞ্চায়েতই যখন শেষ তখন আর পঞ্চায়েতের আহ্বায়কের কী গুরুত্ব রইল?

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here