egg price going up

ওয়েবডেস্ক : শীত না পড়তে পড়তেই ডিমের দাম চড়চড় করে বাড়তে থাকে। এক লাফ দাম বেড়ে যায় প্রায় দু’টাকা। চহিদার তুলনায় রাজ্যে ডিমের উৎপাদন যথেষ্ট কম, সেটাকে হাতিয়ার করে ডিম ব্যবসায়ীরা দাম বাড়ায়। তাই ডিমের উৎপাদন বাড়িয়ে দামে লাগাম টানার পরিকল্পনা নিয়েছে রাজ্য। এজন্য স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলিকেই কাজে লাগানো পরিকল্পনা নিয়েছে প্রাণীসম্পদ দফতর।

জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মুর্শিদাবাদে এই প্রকল্প শুরু করা হচ্ছে। প্রতি বছর এই জেলায় ৩৬কোটি ডিম উৎপাদন হয়। কিন্তু জেলার ডিমের চাহিদা ৭৬ কোটি। এই চাহিদা পূরণ করতে অন্য রাজ্য থেকে ডিম আনা হয়। এই সুযোগেই ব্যবসায়ীরা ডিমের দাম বাড়ায়। জেলায় কিষাণ মান্ডিগুলিতে হ্যাচারি তৈরি করে সেই ঘাটতি মেটানো সম্ভব হবে বলে মনে করছে প্রশাসন।

আরও পড়ুন : কেন বাড়ছে ডিমের দাম

হরিহর পাড়ায় একটি স্বনির্ভর গোষ্ঠীকে ২১টি হ্যাচারি মেশিন দেওয়া হয়েছে। প্রতিমাসে ১২০০ বাচ্চা হবে সেখানে, বছরে প্রায় ১৩ হাজার। এই বাচ্চাগুলির একমাস বয়স হলে জেলার ২৮৬টি স্বনির্ভর গোষ্ঠীকে বিক্রি করা হবে। পরে সেই ডিম কিনে নিয়ে প্রশাসনকে বিক্রি করবে ওই স্বনির্ভর গোষ্ঠী।

এই প্রকল্পকে বাস্তবায়িত করতে মহিলা স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলিকে ১০০দিনের কাজের বরাদ্দে কিষাণ মান্ডিগুলিতে ঘর করে দেওয়া হবে। এছাড়া আনন্দধারা প্রকল্পে মুরগি পালনের প্রশিক্ষণ ও সমবায়ের মাধ্যমে ডিম ফোটানোর মেশিন কেনার ঋণ দেবে প্রশাসন।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন