বহরমপুরে তদন্ত প্রায় শেষ পর্যায়ে, সুতপা খুনে এ বার মালদহ যাওয়ার প্রস্তুতি পুলিশের

0
সুতপা, সুশান্ত। প্রতীকী ছবি

বহরমপুর: সুতপা চৌধুরী খুনের ঘটনায় তদন্ত প্রায় শেষের পথে বলে জানাল জেলা পুলিশ। সূত্রের খবর, এ বার মালদহ যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে পুলিশের।

মালদহের ইংরেজবাজারের বাসিন্দা সুতপা ছিলেন বহরমপুর গার্লস কলেজের উদ্ভিদবিজ্ঞানের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী। থাকতেন গোরাবাজার এলাকার মেসে। গত সোমবার মেসের বাইরে তাঁর উপর হামলা চালায় অভিযুক্ত সুশান্ত চৌধুরী।

পুলিশ সূত্রে খবর, মালদহের বাসিন্দা বছর তেইশের সুশান্ত গৌড় কলেজ থেকে স্নাতক হওয়ার পর বিহারের পটনায় কম্পিউটার নিয়ে স্নাতকোত্তরে ভরতি হয়েছিল। তবে সুতপা কখন কোথায় যাচ্ছে, সে সবের উপর নজরদারি চালাত। কী ভাবে সে এই সমস্ত খবরাখবর পেত, কবে সে বহরমপুরে এসেছিল, খুনের দিন ঠিক কী ঘটেছিল, সে সব তথ্য উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, স্থানীয় এলাকায় পুলিশ প্রতি দিন তদন্ত করছে। যদি কোনো জায়গা থেকে কোনো খবর পাওয়া যায়, সেগুলোও তারা তদন্ত করছে। তদন্ত শেষ হওয়ার পথে। এর পর মালদহ যাবে পুলিশ।

জানা গিয়েছে, এখনও পর্যন্ত যে সব তথ্য উঠে এসেছে, তাতে তদন্তে জাল অনেকটাই গোটানো সম্ভব হয়েছে। বিশেষ করে সুশান্তকে জেরা করেই উঠে এসেছে একের পর তথ্য। বহরমপুরে তদন্ত শেষ করে এ বার সুশান্ত ও সুতপার পরিবারের সঙ্গে কথা বলবে পুলিশ। সংশ্লিষ্ট সকলের বয়ান নেওয়া হয়ে গেলেই চার্জশিট পেশ করার কথা।

প্রসঙ্গত, সোমবার সুতপাকে মেস থেকে ডেকে গেটের মুখেই নৃশংস ভাবে খুন করে তাঁর প্রেমিক সুশান্ত। প্রকাশ্যে খুনের পর নকল আগ্নেয়াস্ত্র উঁচিয়েই এলাকা ছাড়ে অভিযুক্ত। তবে পুলিশি তৎপরতায় জেলা জুড়ে নাকা চেকিংয়ে তিন ঘণ্টার মধ্যেই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়। তার পর উঠে আসে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য।

আরও পড়তে পারেন: 

শুধুমাত্র কংগ্রেস সরকারই গরিব-মধ্যবিত্তকে স্বস্তি দিতে পারে, উদাহরণ-সহ দাবি রাহুল গান্ধীর

দিল্লিতে সংক্রমণ কমতেই কমে গেল ভারতেও

২৬তম বার এভারেস্ট আরোহণ! নিজের রেকর্ডই ভেঙে দিলেন কামি রিটা শেরপা

‘অশনি’সংকেত: বাঁক নিলেও বিপন্মুক্ত থাকবে পশ্চিমবঙ্গ উপকূল

রেজিস্ট্রি করেই দায় সারলে হবে না, কর মূল্যায়নে দায়িত্ব নিতে হবে প্রোমোটারকে

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন