purulia
খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করছেন মহম্মদ জামালউদ্দিন দফাদার

শুভদীপ চৌধুরী, পুরুলিয়া: শীতের আমেজে একটু খেজুর গুড় মন্দ নয়, আর তাই শীতের আমেজ মিলতেই  সুদূর নদিয়া জেলার পলাশিপাড়ার বান্যাগ্রাম থেকে পুরুলিয়ার কাশিপুরে এসে খেজুর গুড়ের ব্যবসায় মন দিয়েছেন মহম্মদ জামালউদ্দিন দফাদার । তবে এটা এই প্রথমবার নয়, আট বছর ধরেই শীতের মুখে তিনি পুরুলিয়ায় এসে চালিয়ে যাচ্ছেন খেজুর গুড়ের ব্যবসা।

জেলার এই অঞ্চলে প্রত্যেকবছর ভাদ্র মাসের শেষ দিক থেকে সরস্বতীপুজোর সময় পর্যন্ত চলে খেজুর গুড় তৈরির কাজ । চলে খেজুর গাছ কেটে খেজুর রস সংগ্রহ ও তারপর দীর্ঘক্ষণ চলে রসে জাল দেওয়ার কাজ ও অবশেষে প্রস্তুত হয় খেজুর গুড় ।
জামালউদ্দিন জানান, “পুরুলিয়া জেলায় তাঁর আমি ব্যবসা করছি গত ৮ বছর ধরে, যদিও এর আগে এই ব্যবসা করতেন আমার ছিলেন তার বাবা”। বাবা মারা যাওয়ার পর এই ব্যবসার রীতি এখনও তিনি বজায় রেখেছেন ।

purulia
চলছে রসে জ্বাল দিয়ে গুড় তৈরি

জামালউদ্দিন আরও জানান, কাজ চলে প্রায় রাত্রি ২টো পর্যন্ত । নদিয়া থেকে এতদূর ছুটে আসার কারণ, এখানে খেজুর গাছের দাম অত্যন্ত কম ও জ্বালানিরও সুবিধা মেলে প্রচুর । তবে এই ব্যবসার শেষে তিনি সারা  বছর তার দেশের বাড়িতে কাটান চাষবাস নিয়েই। তবে শীত পড়লেই চলে আসেন জয়চণ্ডী-অযোধ্যা পাহাড়ের দেশে ।

আরও পড়ুন: ভারতের সব থেকে ধনী ৫ ভিখারি, এঁদের কাউকে রাস্তায় দেখেছেন কখনো?

ব্যবসার আয়-ব্যয়ও যে নেহাত মন্দ নয়, তা জানালেন নিজেই। জামালউদ্দিন বলেন,  ৫-৬ মাসে আর্থিকভাবে আয়ও করেন প্রায় ৫০-৬০ হাজার টাকা । জেলার মানুষও তাঁকে চেনেন ভালোই, প্রশাসনিকভাবেও মেলে সহায়তা । তাই পসার মন্দ হয় না খেজুর গুড়ের ব্যবসায় । প্রায় ৩০০টি খেজুর গাছ থেকে চলে রস সংগ্রহের কাজ । আর তা থেকেই গুড় তৈরি করে তুলে দেন খাদ্যরসিকদের হাতে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here