Connect with us

রাজ্য

বিজেপির ব্রিগেড: বাংলা চায় প্রগতিশীল বাংলা, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

রইল গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা এবং বক্তব্যের আপডেট-

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক: বিধানসভা ভোটের আগে বিজেপির মেগা ইভেন্ট। সভায় দলীয় কর্মী-সমর্থকদের ভিড় দেখে উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন বিজেপি নেতৃত্ব। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উপস্থিতিতে এ দিনের ব্রিগেড সমাবেশ থেকে রাজ্যের পরিবর্তনের জোরালো আওয়াজ তুললেন তাঁরা। রইল গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা এবং বক্তব্যের আপডেট-

বিজেপির ব্রিগেড সমাবেশ মঞ্চে ‘বাঙালিবাবু’ মিঠুন চক্রবর্তী। এ দিনই তিনি বিজেপিতে যোগ দিলেন। তাঁকে উত্তরীয় পরিয়ে দেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এবং পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

Loading videos...

গত শনিবার কলকাতায় আসেন মিঠুন। এ দিন ধুতি-পাঞ্জাবি পরিহিত মিঠুনের ব্রিগেডে পৌঁছনোর পথে বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা একাধিক বার তাঁর গাড়ি ঘিরে ধরেন। বিপিন বিহারী গাঙ্গুলি স্ট্রিটে সমর্থকদের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসে আটকে পড়েছিল তাঁর গাড়ি। নিরাপত্তারক্ষীরা রাস্তা পরিষ্কার করে মিঠুনের গাড়ি রওনা করে দেওয়ার চেষ্টা করেন। মঞ্চে পৌঁছানোর পর তাঁকে স্বাগত জানান কৈলাস।

মিঠুন ছাড়াও বিজেপির ব্রিগেডে রয়েছেন একাধিক অভিনেতা।  যশ দাশগুপ্ত, হিরণ চট্টোপাধ্যায়, রিমঝিম মিত্র, পায়েল সরকার, শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়রা উপস্থিত রয়েছেন সেখানে। রয়েছেন লকেট চট্টোপাধ্যায়, রূপা গঙ্গোপাধ্যায়ও।

কে কী বললেন?

সায়ন্তন বসু:  টিএমসি মানে টাকা মারো কোম্পানি। চাকরির নামে প্রতারণা করেছে তৃণমূল। মোদি দিচ্ছেন টাকা, দিদি নিচ্ছেন কমিশন। কেন্দ্রের বিভিন্ন প্রকল্পের নাম বদলে টাকা লুঠ করছে তৃণমূল।

লকেট চট্টোপাধ্যায়: বাংলায় কোনো শিল্প নেই। সিঙ্গর থেকে টাটাদের তাড়িয়েছিল। কথায় কথায় খেলা হবে, মানুষ কি ফুটবল? উন্নয়ন না করে এখন ভয় দেখাচ্ছে মানুষ। ২ মে ম্যাজিক হবে ইভিএম-এ। কাকে খেলা বলে, বাংলার মানুষ দেখিয়ে দেবেন

অর্জুন সিংহ: ভোটের ফল ঘোষণার আগে পিসি-ভাইপো ব্যাঙ্ককে পালাবেন। রাজ্যে ৯৫ হাজার কলকারখানা বন্ধ। বাংলায় শিল্প বলে কিছু নেই।   স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্প নিয়ে রাজ্যের মানুষকে ভাঁওতা দেওয়া হচ্ছে। এই সরকার ভাতা ও ভাঁওতার সরকার।

শমীক ভট্টাচার্য: তৃণমূল চলে যাবে। কেউ আর আটকাতে পারবে না। আমরা নিজেদের ক্ষমতাতেই কেন্দ্রে পর পর দু’বার সরকার গঠন করেছি। পশ্চিমবঙ্গেও বিজেপি সরকার গঠন করবে। সাত আগে একটা ব্রিগেড হয়েছিল, সেখান থেকে পরিষ্কার ভাবে ভাগিদারির ডাক দেওয়া হয়েছিল। তাদের ট্র্যাডিশন বদলায়নি। বাংলাকে ভাগ করতে চাইছে। তার বিরুদ্ধেই আমাদের লড়াই। কংগ্রেস-সিপিএম এতদিন মালাবদল করেছেন, এখন সঙ্গে ভাইজান।ভাইজানকে উপ-মুখ্যমন্ত্রী তৈরি করার চেষ্টা হচ্ছে।

শুভেন্দু অধিকারী: হয়বরল জোট হয়েছে। বিজেপির বিরুদ্ধে ওরা একজোট হয়েছে। দার্জিলিং সুইজারল্যান্ড হয়নি, কলকাতা লন্ডন হয়নি। কিন্তু তৃণমূল যদি ফিরে আসে, তা হলে পশ্চিমবঙ্গ কাশ্মীর হয়ে যাবে। তাই এই সরকারকে তুলে ফেলতে হবে। আমরা প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি থেকে এখানে এসেছি, আপনাদের সমূলে তুলে ফেলে দিতে। তোলাবাজ ভাইপো শুনে রাখুন। বাংলা মানুষ জেনে রাখুন ওরা ফিরলে মানুষের কিডনি পাচার করবে। দিল্লি এবং কলকাতায় একই সরকার চাই। নন্দীগ্রামে আমি মাননীয়াকে হারাবোই।

মিঠুন চক্রবর্তী: বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের সব থেকে নেতা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এখানে আসছেন। আজকের দিনটা আমার কাছে স্বপ্নের মতো। কানাগলিতে জন্মে মোদির সঙ্গে এক মঞ্চে। এটা স্বপ্ন ছাড়া আর কি? আমি যা বলি, তা করে দেখাই। আমি জলঢোড়াও নয়, বেলোবোড়াও নই। আমি একটা কোবরা। আমি জাত গোখরো। এক ছোবলে ছবি। এ বার কিন্তু সেটাই হবে। 

মুকুল রায়: মাঠটা কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে গিয়েছে। আমাদের প্রিয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিমানের আওয়াজ পাওয়া যাচ্ছে। এত ক্ষণ ধৈর্য্য ধরেছেন, আর একটু ধরুন। আজকের এই সমাবেশের আওয়াজ পৌঁছে যাক নবান্নে। পশ্চিমবঙ্গকে বাঁচানোর যোগ্য ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী মোদী।

দিলীপ ঘোষ: আগামী নির্বাচনে ২০০-র বেশি আসনে জিতে সরকার গড়বে বিজেপি। এই বার, ২০০ পার।

নরেন্দ্র মোদী: কলকাতা এবং বাংলা পুরো ভারতের প্রেরণা। বাংলার মাটি আমাদের সংস্কার তুলে ধরেছে। স্বাধীনতা সংগ্রামে বাংলার মাটি প্রেরণা যুগিয়েছে। বাংলার মহাপুরুষরা এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারত ভাবনাকে মজবুত করেছিলেন।

বাংলার মানুষ মমতার উপর ভরসা করেছিলেন। দিদি আর তাঁর সাঙ্গপাঙ্গরা সেই ভরসা ভেঙে চুরমার করে দিয়েছেন। বাংলাকে অপমান করেছেন। কিন্তু বাংলার মানুষ পরিবর্তনের আশা ছাড়েনি। বাংলা চায় উন্নতি, সম্প্রতি, শান্তি। বাংলা চায় প্রগতিশীল বাংলা।

আমরা কাজ, সমর্পণ, পরিশ্রমের মাধ্যমে এখানে বিজেপির সরকার গড়ব। আসল পরিবর্তনই আমাদের মন্ত্র। আসল পরিবর্তন মানে, এমন একটা বাংলা যেখানে যুবদের হাতে কাজ থাকবে, শিক্ষার অভাব হবে না। যেখানে ব্যবসা-বাণিজ্য উপচে পড়বে। বিনিয়োগ আসবে।

উত্তর হোক বা দক্ষিণ বঙ্গ, পশ্চিম অংশ হোক বা জঙ্গলমহল, সব জায়গাতেই সমান ভাবে উন্নয়ন হবে। যেখানে সব কা সাথ, সব কা বিকাশ, সব কা বিশ্বাসই রাজ্য পরিচালনার মন্ত্র হবে। বাংলার ক্ষমতা, সামর্থ্যকে দমাতে পারেনি স্বাধীনতার আগে।

বাংলার সরকার পরিবর্তনের জন্য নয়, বাংলার উন্নয়নের জন্য এবং বাংলাকে শীর্ষে নিয়ে যাওয়ার জন্য ভোট দিন। বাংলার সমস্ত শিল্পের উপযুক্ত পরিবেশ রয়েছে। সেই কাজকে সফল করে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। যে কোনো মূল্যে এগিয়ে যেতে হবে। কলকাতার যেমন ঐতিহাসিক ঐতিহ্য রয়েছে, তাকে সুরক্ষিত রাখতে হবে। ২০৪৭ সালে স্বাধীনতার ১০০তম পূর্তিতে বাংলা আবার ফের দেশের মধ্যে শীর্ষস্থান দখল করবে।

গোটা বাংলা এক স্বরে বলছে, আর নয় অন্যায়। তৃণমূল সরকারের আয়ু কমে আসছে। আজ গোটা দেশ শুনুক, দুর্নীতি আর নয়, তোলাবাজি আর নয়, কাটমানি আর নয়, সিন্ডিকেট আর নয়, বেকারত্ব আর নয়, হিংসা আর নয়, আতঙ্ক আর নয়, তুষ্টিকরণ আর নয়, অন্যায় আর নয়।

এত জোরে বলুন যাতে আপনাদের রাগ, ক্ষোভ দেশের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে।…শুনলেন তো দিদি! এটা বাংলার মানুষের আওয়াজ। ১০ বছর পর মানুষ জানতে চাইছেন, দিদি হিসেবে আপনাকে বেছে নিয়েছিলেন সকলে। কিন্তু আপনি নিজেকে শুধু ভাইপোর পিসি হিসেবেই সীমাবদ্ধ করে রেখেছিলেন।

আরও পড়তে পারেন: ‘নরেন্দ্র মোদী আপনার দাম কত টাকা’? জানতে বললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়!.

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

রাজ্য

Bengal Polls 2021: পঞ্চম দফায় ভোটগ্রহণ শনিবার, দেখে নিন ৪৫ কেন্দ্রে কোন দলের প্রার্থী কে

১৭ এপ্রিল রাজ্যের ৪৫টি কেন্দ্রে ভোট, এক নজরে দেখে নিন সেখানকার প্রার্থীতালিকা-

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক: পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের (West Bengal Assembly Elections) পঞ্চম ধাপে ৪৫টি আসনে ভোটগ্রহণ শনিবার। এই পর্বে রাজ্যের ৬টি জেলায় ভোটগ্রহণ হবে। এর আগে, চার ধাপের ভোটে ২৯৪টি বিধানসভা আসনের মধ্যে ১৩৫টিতে প্রার্থীদের ভাগ্য নির্ধারণ করেছেন ভোটাররা।

পঞ্চম দফা (১৭ এপ্রিল)

তৃণমূল, বিজেপি এবং সংযুক্ত মোর্চার (বামফ্রন্ট, কংগ্রেস, আইএসএফ জোট) প্রার্থী ছাড়া অন্য দল এবং নির্দল প্রার্থীও রয়েছেন। নীচে শুধু মাত্র তিনটি* দলের প্রার্থীর নামের তালিকা উল্লেখ করা হল।

Loading videos...

১. ধুপগুড়ি: মিতালী রায় (তৃণমূল), বিষ্ণুপদ রায় (বিজেপি), প্রদীপকুমার রায় (সিপিএম)

২. ময়নাগুড়ি: মনোজ রায় (তৃণমূল), কৌশিক রায় (বিজেপি), নরেশচন্দ্র রায় (আরএসপি)

৩. জলপাইগুড়ি: প্রদীপকুমার বর্মা (তৃণমূল), সুজিত সিংহ (বিজেপি), সুখবিলাস বর্মা (কংগ্রেস)

৪. রাজগঞ্জ: খগেশ্বর রায় (তৃণমূল), সুপেন রায় (বিজেপি), রতন রায় (সিপিএম)

৫. ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ি: গৌতম দেব (তৃণমূল), শিখা চট্টোপাধ্যায় (বিজেপি), দিলীপ সিং (সিপিএম)

৬. মাল: বুলুচিক বড়াইক (তৃণমূল), মহেশ বাগে (বিজেপি), মনু ওরাওঁ (সিপিএম)

৭. নাগরাকাটা: জোসেফ মুন্ডা (তৃণমূল), পুনা ভেংরা (বিজেপি), সুখবীর সুব্বা (কংগ্রেস)

৮. কালিম্পং*: রাম বাহাদুর ভুজেল (জিজেএম/ গুরুং), রুডেন সদা লেপচা (জিজেএম/তামাং), সুভ প্রধান (বিজেপি), দিলীপ প্রধান (কংগ্রেস)

৯. দার্জিলিং*: প্রেম্বা শেরিং (জিজেএম/ গুরুং), কেশবরাজ শর্মা (জিজেএম/তামাং), নীরজ জিম্বা (বিজেপি), গৌতম রাজ রাই (সিপিএম)

১০. কার্শিয়াং*: নরবু লামা (জিজেএম/ গুরুং), শেরিং লামা দাহাল (জিজেএম/তামাং), বিষ্ণুপ্রসাদ শর্মা (বিজেপি), উত্তম ব্রাহ্মণ (সিপিএম)

১১. মাটিগাড়া-নকশালবাড়ি: রজন সুনদাস (তৃণমূল), আনন্দময় বর্মন (বিজেপি), শঙ্কর মালাকার (কংগ্রেস)

১২. শিলিগুড়ি: ওমপ্রকাশ মিশ্র (তৃণমূল), শঙ্কর ঘোষ (বিজেপি), অশোক ভট্টাচার্য (সিপিএম)

১৩. ফাঁসিদেওয়া: ছোটন কিস্কু (তৃণমূল), দুর্গা মুর্মু (বিজেপি), সুনীলচন্দ্র তিরকে (কংগ্রেস)

১৪. শান্তিপুর: অজয় দে (তৃণমূল), জগন্নাথ সরকার (বিজেপি), ঋজু ঘোষাল (কংগ্রেস)

১৫. রানাঘাট উত্তর পশ্চিম: শঙ্কর সিংহ (তৃণমূল), পার্থসারথি চট্টোপাধ্যায় (বিজেপি), বিজয়েন্দু বিশ্বাস (কংগ্রেস)

১৬. কৃষ্ণগঞ্জ: তাপস মণ্ডল (তৃণমূল), আশিসকুমার বিশ্বাস (বিজেপি), অনুপ মণ্ডল (আরএসএমপি)

১৭. রানাঘাট উত্তর পূর্ব: সমীরকুমার পোদ্দার (তৃণমূল), অসীম বিশ্বাস (বিজেপি), দীনেশচন্দ্র বিশ্বাস (আরএসএমপি)

১৮. রানাঘাট দক্ষিণ: বর্ণালী দে (তৃণমূল), মুকুটমণি অধিকারী (বিজেপি), রমা বিশ্বাস (সিপিএম)

১৯. চাকদহ: শুভঙ্কর সিংহ (তৃণমূল), বঙ্কিমচন্দ্র ঘোষ (বিজেপি), নারায়ণ দাশগুপ্ত (সিপিএম)

২০. কল্যাণী: অনিরুদ্ধ বিশ্বাস (তৃণমূল), অম্বিকা রায় (বিজেপি), সবুজ দাস (সিপিএম)

২১. হরিণঘাটা: নীলিমা নাগ মল্লিক (তৃণমূল), অসীম সরকার (বিজেপি), অলোকেশ দাস (সিপিএম)

২২. পানিহাটি: নির্মল ঘোষ (তৃণমূল), সন্ময় বন্দ্যোপাধ্যায় (বিজেপি), তাপস মজুমদার (কংগ্রেস)

২৩. কামারহাটি: মদন মিত্র (তৃণমূল), অনিন্দ্য রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় (বিজেপি), সায়নদীপ মিত্র (সিপিএম)

২৪. বরানগর: তাপস রায় (তৃণমূল), পার্নো মিত্র (বিজেপি), অমলকুমার মুখোপাধ্যায় (কংগ্রেস)

২৫. দমদম: ব্রাত্য বসু (তৃণমূল), বিমলশঙ্কর নন্দ (বিজেপি), পলাশ দাস (সিপিএম)

২৬. রাজারহাট নিউটাউন: তাপস চট্টোপাধ্যায় (তৃণমূল), ভাস্কর রায় (বিজেপি), সপ্তর্ষি দেব (সিপিএম)

২৭. বিধাননগর: সুজিত বসু (তৃণমূল), সব্যসাচী দত্ত (বিজেপি), অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (কংগ্রেস)

২৮. রাজারহাট গোপালপুর: অদিতি মুন্সি (তৃণমূল), শমীক ভট্টাচার্য (বিজেপি), শুভজিৎ দাশগুপ্ত (সিপিএম)

২৯. মধ্যমগ্রাম: রথীন ঘোষ (তৃণমূল), রাজশ্রী রাজবংশী (বিজেপি), বিশ্বজিৎ মাইতি (আরএসএমপি)

৩০. বারাসত: চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তী (তৃণমূল), শঙ্কর চট্টোপাধ্যায় (বিজেপি), সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায় (ফব)

৩১. দেগঙ্গা: রহিমা মণ্ডল (তৃণমূল), দিপীকা চট্টোপাধ্যায় (বিজেপি), করিম আলি (আরএসএমপি)

৩২. হাড়োয়া: হাজি শেখ নুরুল ইসলাম (তৃণমূল), রাজেন্দ্র সাহা (বিজেপি), কুতুবুদ্দিন ফতেহি (আরএসএমপি)

৩৩. মিনাখাঁ: ঊষারানি মণ্ডল (তৃণমূল), জয়ন্ত মণ্ডল (বিজেপি), প্রদ্যোৎ রায় (সিপিএম)

৩৪. সন্দেশখালি: সুকুমার মাহাতো (তৃণমূল), ভাস্কর সরদার (বিজেপি), বরুণ মাহাতো (আরএসএমপি)

৩৫. বসিরহাট দক্ষিণ: সপ্তর্ষি বন্দ্যোপাধ্যায় (তৃণমূল), তারকনাথ ঘোষ (বিজেপি), অমিত মজুমদার (কংগ্রেস)

৩৬. বসিরহাট উত্তর: রফিকুল ইসলাম মণ্ডল (তৃণমূল), নারায়ণ মণ্ডল (বিজেপি), বাইজিদ আমিন (আরএসএমপি)

৩৭. হিঙ্গলগঞ্জ: দেবেশ মণ্ডল (তৃণমূল), নিমাই দাস (বিজেপি), রঞ্জন মণ্ডল (সিপিআই)

৩৮. খণ্ডঘোষ: নবীনচন্দ্র বাগ (তৃণমূল), বিজন মণ্ডল (বিজেপি). অসীমা রায় (সিপিএম)

৩৯. বর্ধমান দক্ষিণ: খোকন দাস (তৃণমূল), সন্দীপ নন্দী (বিজেপি), পৃথা তা (সিপিএম)

৪০. রায়না: শম্পা ধাড়া (তৃণমূল), মানিক রায় (বিজেপি), বাসুদেব খাঁ (সিপিএম)

৪১. জামালপুর: অলোককুমার মাঝি (তৃণমূল), বলরাম ব্যাপারী (বিজেপি), সমর হাজরা (এমএফবি)

৪২. মন্তেশ্বর: সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী (তৃণমূল), সৈতক পাঁজা (বিজেপি), অনুপম ঘোষ (সিপিএম)

৪৩. কালনা: দেবপ্রসাদ বাগ (তৃণমূল), বিশ্বজিৎ কুণ্ডু (বিজেপি), নীরব খাঁ (সিপিএম)

৪৪. মেমারি: মধুসূদন ভট্টাচার্য (তৃণমূল), ভীষ্মদেব ভট্টাচার্য (বিজেপি), সনৎ বন্দ্যোপাধ্যায় (সিপিএম)

৪৫. বর্ধমান উত্তর: নিশীথকুমার মালিক (তৃণমূল), রাধাকান্ত রায় (বিজেপি), চণ্ডীচরণ লেট (সিপিএম)

আরও পড়তে পারেন: Bengal Polls 2021: চতুর্থ দফায় ভোটগ্রহণ শনিবার, দেখে নিন ৪৪ কেন্দ্রে কোন দলের প্রার্থী কে

Continue Reading

রাজ্য

নজরে কোভিড পরিস্থিতি, ভোটের প্রচারে বড়ো জমায়েত নিয়ে বামফ্রন্টের নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত

আপাতত বড়োসড়ো জমায়েত বা রোড শো নয়।

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক: ক্রমবর্ধমান করোনা সংক্রমণের কথা মাথায় রেখে শেষ তিন দফার ভোটের প্রচার নিয়ে নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত নিল সিপিএম নেতৃত্বাধীন বামফ্রন্ট। বুধবার আলিমুদ্দিন ষ্ট্রিটে সাংবাদিক বৈঠকে এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দিলেন সিপিএমের পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম।

বর্তমান পরিস্থিতির জন্য কেন্দ্র ও রাজ্যকে তোপ দেগে সেলিম এ দিন জানান, “বামফ্রন্ট সিদ্ধান্ত নিয়েছে, আপাতত বড়োসড়ো জমায়েত বা রোড শো করা হবে না। অল্প সংখ্যক কর্মী-সমর্থককে নিয়ে ছোটো ছোটো সভা করা হবে। প্রার্থী-সহ হাতে গোনা কয়েক জন যাবেন বাড়ি বাড়ি প্রচারে”।

Loading videos...

পাশাপাশি নেটমাধ্যম ব্যবহার করেও প্রচারে আরও জোর দেবে বামফ্রন্ট। যেখানে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার কোনো সমস্যা থাকছে না। সেলিম বলেন, “যেখানে যেখানে ভোট হয়ে গিয়েছে অথবা হবে সেই সমস্ত জায়গায় আমরা গত এক বছর ধরে আমরা পরিষেবা দিয়ে আসছি। এখন একই ভাবে আমরা তা চালিয়ে যাব। আক্রান্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানো, বাস্তব পরিস্থিতি মেনে সবাইকে সচেতন করা এবং অসহায় মানুষের কাছে যাওয়া, মানুষের হক নিয়ে লড়াই করা। রেশন ও খাদ্য পৌঁছে দেওয়ার মতো কাজ করব”।

করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা নিয়ে কেন্দ্র-রাজ্য সরকারকে নিশানায় রেখে সেলিম বলেন, “প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর করোনা মোকাবিলায় জোর দেওয়া উচিত। কিন্তু দু’ জনই এখন মেরুকরণের রাজনীতিতে ব্যস্ত। ভোট রাজনীতি করতে মানুষে মানুষে বিভেদ তৈরি করছেন। এমনকি ভ্যাকসিন নিয়েও দুই সরকার উদাসীন”।

আগামী শনিবার রাজ্যের পঞ্চম দফার ভোট। ৭২ ঘণ্টা আগে ভোটপ্রচার বন্ধ হয়েছে বুধবার। বাকি তিন দফার প্রচারে সামাজিক দূরত্ব মেনে, নেটমাধ্যমকে কাজে লাগিয়ে এবং ছোটো ছোটো বৈঠক করেও প্রচারের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে বলে জানান বাম নেতৃত্ব।

আরও পড়তে পারেন: ফের লকডাউনের আশঙ্কায় ভীত-সন্ত্রস্ত অভিবাসী শ্রমিকরা, কন্ট্রোল রুমে ফোনের পর ফোন ঝাড়খণ্ডে

Continue Reading

রাজ্য

Bengal Corona: ভয়াবহ পরিস্থিতি! একদিনেই আক্রান্ত প্রায় ছ’হাজার

সাধারণ মানুষের একটা বড়ো অংশ নির্লজ্জের মতো সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন যে কোনো ভাবেই তাঁরা মাস্ক পরবেন না। ফলে বাংলাকে আগামী দিনে আরও ভুগতেই হবে।

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রাজ্যের করোনা-পরিস্থিতি ক্রমে হাতের বাইরে বেরিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা তৈরি করছে। রাজ্যে প্রথম বার দৈনিক সংক্রমণ ৫ হাজার ছাড়াল, কিন্তু সেটা এক ধাক্কায় ৬ হাজারের কাছাকাছি পৌঁছে গেল। আরও ভয়ংকর ব্যাপার হল এক দিনে রাজ্যে সক্রিয় রোগী বেড়েছে সাড়ে ৩ হাজারেরও বেশি। অন্যান্য দিন রাজ্যের কোভিডতথ্যে খুঁজে পেতে তাও কিছু ইতিবাচক ব্যাপার দেখা যায়। কিন্তু বুধবারের রিপোর্টে সে সব কিছুই দেখা গেল না।

রাজ্যের কোভিড-তথ্য

গত ২৪ ঘণ্টায় পশ্চিমবঙ্গে নতুন করে কোভিডে (Covid 19) আক্রান্ত হয়েছেন ৫,৮৬২ জন। এর ফলে রাজ্যে মোট কোভিডরোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬ লক্ষ ৩০ হাজার ১১৬।

Loading videos...

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ২,২৯৭ জন। এর ফলে এখনও পর্যন্ত রাজ্যে মোট কোভিডজয়ীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৫ লক্ষ ৮৭ হাজার ৩৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে রাজ্যে। ফলত এ দিন মৃত্যুহার ছিল ০.৪০ শতাংশ। রাজ্যে এখনও পর্যন্ত কোভিডে প্রাণ হারিয়েছেন মোট ১০ হাজার ৪৫৮ জন।

রাজ্যে বর্তমানে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৩২ হাজার ৬২১ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ৩,৫৭১ জন সক্রিয় রোগী বেড়েছে রাজ্যে। রাজ্যে সুস্থতার হার বর্তমানে ৯৩.১৬ শতাংশ।

দৈনিক সংক্রমণের হার সাড়ে ১৩ শতাংশ

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৪৩ হাজার ৪৬৩টি। ফলে এ দিন সংক্রমণের হার ছিল ১৩.৫৫ শতাংশ। গত বছর জুলাইয়ে একটা সময়ে রাজ্যে সংক্রমণের হার ১৭ শতাংশে উঠে গিয়েছিল। এ বার করোনার ঢেউ সেই রেকর্ডকে ভেঙে দেয় কি না, সেটাই দেখার।

রাজ্যের সামগ্রিক সংক্রমণের হার বর্তমানে রয়েছে ৬.৫৪ শতাংশ। শনিবার পর্যন্ত মোট ৯৬ লক্ষ ৩২ হাজার ৮৪১টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে।

হাসপাতাল শয্যা-তথ্য

কিছুটা নিশ্চিন্তের ব্যাপার হল গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যের হাসপাতালগুলিতে কোভিডরোগীদের জন্য নির্ধারিত বেডের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। ৫,৬০৪ থেকে বর্তমানে রাজ্যে কোভিড-শয্যার সংখ্যা ৭,৪২৮। স্বাভাবিক ভাবেই ভরতি হওয়া বেডের শতাংশও কিছুটা কমেছে। বর্তমানে ৩২.১৫ শতাংশ বেড ভরতি রয়েছে।

কলকাতা ও উত্তর ২৪ পরগণার পরিস্থিতি

কলকাতা এবং উত্তর ২৪ পরগণায় দৈনিক সংক্রমণ রেকর্ড করেই চলেছে। কলকাতায় নতুন করে আক্রান্ত ১,৬০১ জন এবং উত্তর ২৪ পরগণায় ১,২৭৭ জন। এই দুই জেলায় সুস্থ হয়েছেন যথাক্রমে ৬২০ এবং ৫৪৬ জন। দুই জেলাতেই ৭ জন করে কোভিডরোগীর মৃত্যু হয়েছে।

কলকাতায় এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১ লক্ষ ৪৫ হাজার ৩৪৩, উত্তর ২৪ পরগণায় মোট আক্রান্ত ১ লক্ষ ৩৫ হাজার ৯৮৭। কলকাতায় বর্তমানে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৯,৩৮০ জন এবং উত্তর ২৪ পরগণায় ৭,২৭০। দুই জেলায় মৃত্যু হয়েছে যথাক্রমে ৩,১৭৫ এবং ২,৫৬৭ জনের।

রাজ্যের বাকি জেলার চিত্র

গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণচিত্র দেখে মনে হচ্ছে কয়েকটি জেলার পরিস্থিতি কলকাতার থেকেও খারাপ। কারণ স্বাভাবিক ভাবেই রাজ্যের জেলাগুলিতে বেশি পরিমাণে টেস্ট হয় না। সব থেকে বেশি টেস্ট কলকাতা এবং উত্তর ২৪ পরগণাতেই হয়। কিন্তু বেশি টেস্ট না হওয়া সত্ত্বেও ওই কয়েকটি জেলায় সংক্রমণের যা তথ্য সামনে এসেছে, তা রীতিমতো ভয়ের।

রাজ্যে বাকি ২১টি জেলায় সংক্রমণ কেমন ছিল, তার তালিকা দেওয়া হল নীচে। সংশ্লিষ্ট জেলাগুলিতে এ দিন কত জন আক্রান্ত হয়েছেন, সেই তথ্য দেওয়া হল ব্র্যাকেটে।

১) দক্ষিণ ২৪ পরগণা (৩৩৭)

২) হাওড়া (৩৩০)

৩) বীরভূম (৩২৯)

৪) হুগলি (২৮৯)

৫) পশ্চিম বর্ধমান (২৫৩)

৬) মালদা (২৪৯)

৭) মুর্শিদাবাদ (১৭০)

৮) নদিয়া (১৬৮)

৯) পূর্ব বর্ধমান (১৬২)

১০) পুরুলিয়া (১২৫)

১১) দার্জিলিং (১০৯)

১২) জলপাইগুড়ি (৯৮)

১৩) পূর্ব মেদিনীপুর (৮৫)

১৪) পশ্চিম মেদিনীপুর (৮১)

১৫) উত্তর দিনাজপুর (৮০)

১৬) বাঁকুড়া (৪৯)

১৭) দক্ষিণ দিনাজপুর (৪০)

১৮) কোচবিহার (২২)

১৯) কালিম্পং (১৪)

২০) ঝাড়গ্রাম (১২)

২১) আলিপুরদুয়ার (১২)

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
বাংলাদেশ2 hours ago

Bangladesh: বাংলা একাডেমির সভাপতি শামসুজ্জামান খান ও সাবেক আইনমন্ত্রী আবদুল মতিন খসরুর প্রয়াণ

বাংলাদেশ2 hours ago

Bangladesh Lockdown: দেশ জুড়ে কঠোর লকডাউন, পথে পথে তল্লাশি চৌকি, মুভমেন্ট পাশ ছাড়া চলাচল বন্ধ

ক্রিকেট3 hours ago

IPL 2021: আরসিবির হয়ে জ্বলে উঠলেন বাংলার শাহবাজ, তীরে এসে তরী ডোবাল হায়দরাবাদ

রাজ্য4 hours ago

Bengal Polls 2021: পঞ্চম দফায় ভোটগ্রহণ শনিবার, দেখে নিন ৪৫ কেন্দ্রে কোন দলের প্রার্থী কে

AstraZeneca-twiter
বিদেশ5 hours ago

অ্যাস্ট্রাজেনেকা কোভিড ভ্যাকসিনের ব্যবহার স্থায়ী ভাবে বন্ধ করল ডেনমার্ক

রাজ্য6 hours ago

নজরে কোভিড পরিস্থিতি, ভোটের প্রচারে বড়ো জমায়েত নিয়ে বামফ্রন্টের নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত

রাজ্য6 hours ago

Bengal Corona: ভয়াবহ পরিস্থিতি! একদিনেই আক্রান্ত প্রায় ছ’হাজার

দেশ6 hours ago

ফের লকডাউনের আশঙ্কায় ভীত-সন্ত্রস্ত অভিবাসী শ্রমিকরা, কন্ট্রোল রুমে ফোনের পর ফোন ঝাড়খণ্ডে

ক্রিকেট2 days ago

IPL 2021: কাজে এল না সঞ্জু স্যামসনের মহাকাব্যিক শতরান, পঞ্জাবের কাছে হারল রাজস্থান

প্রবন্ধ2 days ago

First Man In Space: ইউরি গাগারিনের মহাকাশ বিজয়ের ৬০ বছর আজ, জেনে নিন কিছু আকর্ষণীয় তথ্য

দেশ3 days ago

Kumbh Mela 2021: করোনাবিধিকে শিকেয় তুলে এক লক্ষ মানুষের সমাগম, আজ কুম্ভের প্রথম শাহি স্নান হরিদ্বারে

ক্রিকেট3 days ago

IPL 2021: সাড়ে ৭টায় খেলা শুরু হওয়া নিয়ে তীব্র অসন্তুষ্ট মহেন্দ্র সিংহ ধোনি

দেশ2 days ago

Vaccination Drive: এসে গেল তৃতীয় টিকা, স্পুটনিক ফাইভে অনুমোদন দিয়ে দিল কেন্দ্র

দেশ3 days ago

Corona Update: এক ধাক্কায় সক্রিয় রোগীর সংখ্যায় প্রায় ১ লক্ষের বৃদ্ধি, তবে দৈনিক মৃত্যুহার ০.৫৩ শতাংশ

দেশ2 days ago

Election Commission of India: নতুন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুশীল চন্দ্র, মঙ্গলবার থেকে দায়িত্ব নিচ্ছেন

দেশ2 days ago

Sputnik V: এপ্রিলের শেষে ভারতের বাজারে চলে আসবে টিকা, জানাল রাশিয়া

ভোটকাহন

কেনাকাটা

কেনাকাটা4 weeks ago

বাজেট কম? তা হলে ৮ হাজার টাকার নীচে এই ৫টি স্মার্টফোন দেখতে পারেন

আট হাজার টাকার মধ্যেই দেখে নিতে পারেন দুর্দান্ত কিছু ফিচারের স্মার্টফোনগুলি।

কেনাকাটা2 months ago

সরস্বতী পুজোর পোশাক, ছোটোদের জন্য কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সরস্বতী পুজোয় প্রায় সব ছোটো ছেলেমেয়েই হলুদ লাল ও অন্যান্য রঙের শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে ওঠে। তাই ছোটোদের জন্য...

কেনাকাটা2 months ago

সরস্বতী পুজো স্পেশাল হলুদ শাড়ির নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই সরস্বতী পুজো। এই দিন বয়স নির্বিশেষে সবাই হলুদ রঙের পোশাকের প্রতি বেশি আকর্ষিত হয়। তাই হলুদ রঙের...

কেনাকাটা3 months ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা3 months ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা3 months ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা3 months ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা3 months ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা3 months ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা3 months ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

নজরে