20-rupees-killing

নিজস্ব সংবাদদাতা,দক্ষিণ ২৪ পরগনা: মাত্র ২০ টাকার জন্য কাকা সহ তার পরিবারের হাতে খুন হতে হল ভাইপোকে। মৃতের নাম সাহিদ আলি মণ্ডল (৩২) । ঘটনার জেরে অভিযুক্ত কাকা ইমান আলি মণ্ডল ও তার পরিবারের একাধিক  বাড়ি ভাঙচুর করল উত্তেজিত এলাকাবাসী।

ঘটনার পর থেকে পলাতক  কাকা ইমান আলি মণ্ডল তার ছেলে হাবিবুল্লা মণ্ডল ,আসাদুল্লা মণ্ডল সহ পরিবারের প্রায় সমস্ত সদস্য। অভিযুক্তদের কড়া শাস্তি চেয়েছেন মৃত সাহিদ আলি মণ্ডলের পরিবার । ঘটনাটি ঘটে বারুইপুরের দক্ষিণ সীতাকুণ্ড হরিজন মাস্টার পাড়ায়। ঘটনা প্রসঙ্গে জানা গিয়েছে,এক স্ব-নির্ভর সংস্থায় পেশায় রাজ মিস্ত্রি  সাহিদ আলি মণ্ডল তার কাকার ছেলে হাবিবুল্লা মণ্ডল সহ ১০ জন মিলে গ্রুপ করে ১০০ টাকা করে দিয়েছিল। সেই টাকায় মাত্র ২০ টাকা কম ছিল ।

সাহিদ মণ্ডলের স্ত্রী আজিমা বিবি জানান ,”গত ২২ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ  আমাদের কাজ নিয়ে আলোচনা হচ্ছিল। আমি বলেছিলাম মাদুর কিনব। কাকার ছেলে হাবিবুল্লা বলে, ‘আগে ২০ টাকা দে।’ এরপর অশ্লীল গালিগালাজ করে আমাকে। আমার স্বামী সাহিদ প্রতিবাদ করে বলে ২০ টাকা ঠিক দিয়ে দেওয়া হবে। এর পরও স্বামীকে মারার হুমকি দিয়ে  সুপারি গাছে টেনে নিয়ে গিয়ে মারে  কাকার ছেলে হাবিবুল্লা ,আসাদুল্লা । সে সময়ের জন্য ওরা চলে ছেড়ে দেয়। কিন্তু পরে হাসপাতালে যাওয়ার  জন্য আমার স্বামী বেরোলে পথে কাকার মেয়ে জাকিরা বিবি এসে ধরে টেনে নামায়। তারপর কাকা ইমান আলি সহ ছেলেরা ১২ -১৩ জন মিলে অস্ত্র নিয়ে আক্রমণ করে সাহিদের উপর । পাথর, বাঁশ, রড দিয়ে মারধর করে মাথায় আঘাত করে ফেলে দেয়। সাহিদকে বাঁচাতে গিয়ে তাঁর ভাইদেরও মার খেতে হয়।”

এর পর সাহিদকে ওই দিন সন্ধ্যায় প্রথমে বারুইপুর মহকুমা হাসপাতাল, পরে কলকাতার চিত্তরঞ্জন হাসপাতালে নিয়ে যওয়া হয়। সেখান থেকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে রবিবার রাতে তিনি মারা যান ।

এদিকে মৃত্যুর খবর আসতেই এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। মঙ্গলবার সকালে উত্তেজিত বাসিন্দারা ও পরিবারের লোকজন অভিযুক্ত কাকা ইমান আলি মণ্ডল, বোন জাকিরা বিবির  ঘর ভেঙে সম্পূর্ণ গুঁড়িয়ে দেয়। বারুইপুর থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনা স্থলে যায় । পুলিশ জানায়, এলাকা থেকে পালিয়েছে অভিযুক্তরা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here