‘ভোট-পরবর্তী হিংসা’ নিয়ে আদালতে প্রাথমিক রিপোর্ট জমা দিল জাতীয় মানবাধিকার কমিশন

0

খবর অনলাইন ডেস্ক: ভোট পরবর্তী হিংসার অভিযোগে দায়ের জনস্বার্থ মামলায় বুধবার কলকাতা হাইকোর্টে রিপোর্ট পেশ করল জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের প্রতিনিধি দল। সিলবন্ধ খামে কলকাতা হাইকোর্টের পাঁচ সদস্যের বৃহত্তর বেঞ্চে রিপোর্ট পেশ করেন মানবাধিকার কমিশনের প্রতিনিধিরা।

এ দিন হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দাল, বিচারপতি আইপি মুখোপাধ্যায়, হরিশ ট্যান্ডন, সৌমেন সেন এবং সুব্রত তালুকদারের পাঁচ সদস্যের বেঞ্চে রিপোর্ট জমা করে কমিশন। তবে এই রিপোর্ট অসম্পূর্ণ বলে জানিয়ে কমিশনের তরফে আদালতের কাছে আরও কিছুটা সময় চেয়ে নেওয়া হয়।

শুনানি ২ জুলাই

কমিশন যে রিপোর্ট পেশ করেছে, তা সব পক্ষকেই দেওয়ার আর্জি জানানো হয় রাজ্যের তরফে। তবে আদালত এ দিন জানায়, এত অল্প সময়ের মধ্যে এত বড়ো রিপোর্ট দেখা সম্ভব নয়। তত দিন রিপোর্ট প্রকাশ্যে আনার প্রয়োজন নেই। ২ জুন আদালতে বিস্তারিত রিপোর্ট পেশ করবেন মানবাধিকার কমিশনের প্রতিনিধিরা। ওই দিনই এই মামলার পরবর্তী শুনানি।

প্রসঙ্গত, ১৮ জুন হাইকোর্টে এই মামলার শুনানি করে ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দালের নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ। বলা হয়, ভোট-পরবর্তী হিংসার জেরে ঘরছাড়া হওয়া ব্যক্তিদের যাবতীয় অভিযোগ খতিয়ে দেখার কাজে সহযোগিতা করবে রাজ্য মানবাধিকার কমিশন। বলা হয়েছে, কেন্দ্রের মানবাধিকার কমিশন রাজ্যের বিভিন্ন জায়গা ঘুরে দেখবে। তাদের সাহায্য করবে রাজ্য মানবাধিকার কমিশন।

Shyamsundar

ভোট-পরবর্তী হিংসা নিয়ে মামলা

রাজ্যে ভোট-পরবর্তী হিংসার বিষয় খতিয়ে দেখতে কলকাতা হাইকোর্টের হস্তক্ষেপ চেয়ে প্রথমে একটি মামলা করেছিলেন আইনজীবী অনিন্দ্য সুন্দর দাস। এ ছাড়া ভোটের পরে অশান্তির অভিযোগে এন্টালির পরাজিত বিজেপি প্রার্থী প্রিয়ঙ্কা টিবরেওয়াল-সহ একাধিক ব্যক্তি কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেন।

ভোট-পরবর্তী হিংসার অভিযোগে জনস্বার্থ মামলার প্রেক্ষিতে গত ১৮ জুন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনকে তদন্তকারী কমিটি গড়তে বলে হাইকোর্ট। আদালতের নির্দেশ পেয়ে বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করে রিপোর্ট তৈরি করেছেন কমিটির সদস্যরা। তবে এখনও অনেক এলাকা পরদর্শন সম্ভব হয়নি বলে আদালতকে জানায় কমিশন। ফলে এই রিপোর্টকে পূর্ণাঙ্গ বলা যায় না।

মাঝখান থেকে এলাকা পরিদর্শনে ঘিরে বিক্ষোভের মুখেও পড়ার বিষয়টি প্রকাশ্যে এসেছে। রাজ্য সরকার প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করছে না বলেও অভিযোগ উঠেছে। তবে এ ধরনের অভিযোগ মানতে নারাজ রাজ্য সরকার।

এ দিন প্রিয়ঙ্কা বলেন, মঙ্গলবার যাদবপুরে পরিস্থিতি পরিদর্শনে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয়েছিল কমিশনের সদস্যদের। সে ব্যাপারে রাজ্য প্রশাসনের তরফে কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি বলেও অভিযোগ করেন তিনি। যদিও রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল কিশোর দত্ত বলেন, রাজ্য সরকার সব রকম ভাবেই কমিশনকে সহযোগিতা করছে।

আরও পড়তে পারেন: ভুয়ো ভ্যাকসিনকাণ্ডে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রাজ্যের রিপোর্ট তলব কেন্দ্রের

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন