শুকনো উত্তুরে হাওয়া প্রবেশ করলেও বঙ্গে পারদ পতন এখনই নয়

0

কলকাতা: মধ্য ভারতের ওপরে অবস্থান করছে একটি বিপরীত ঘূর্ণাবর্ত। এই বিপরীত ঘূর্ণাবর্তটির সৌজন্যেই উত্তর ভারতের চৌহদ্দি ছাড়িয়ে এখন পূর্ব ভারতেও ঢুকে পড়েছে উত্তুরে হাওয়া। জলীয় বাষ্প ক্রমশ কমছে দেশের এই অংশ থেকে। আবহাওয়া হচ্ছে শুকনো। এর হাত ধরে আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই মৌসুমি বায়ু বিদায় নেবে পশ্চিমবঙ্গ-সহ পূর্ব ভারতের একটা বড়ো অংশ থেকে।

কিন্তু উত্তুরে হাওয়া প্রবেশ করলেও এখনই পারদ পতনের কোনো সম্ভাবনা নেই রাজ্যে। সাধারণত অক্টোবরে উত্তুরে হাওয়া ঢুকে গেলে হালকা শীত শীত অনুভূতি আসতে শুরু করে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত তার কোনো সম্ভাবনা নেই। এর কারণ মূলত দুটো, প্রথমত এখনও উত্তরের হিমালয়ে তুষারপাত না হওয়া এবং দ্বিতীয়ত দক্ষিণবঙ্গে এখনও যথেষ্ট বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে যথেষ্ট।

বর্ষার বিদায়ের পালা চলছে বলে দক্ষিণবঙ্গে এখন বিক্ষিপ্ত ভাবে ঝড়বৃষ্টি হচ্ছে মাঝেমধ্যে। এটা হচ্ছে মূলত উত্তুরে এবং দখিণা হাওয়ার সংমিশ্রণের ফলে সৃষ্ট হওয়া বজ্রগর্ভ মেঘ থেকে। তবে সোমবার এবং মঙ্গলবার, অর্থাৎ ষষ্ঠী এবং সপ্তমীর দিন কার্যত কোনো বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই দক্ষিণবঙ্গে। বিক্ষিপ্ত ঝড়বৃষ্টিকে দূরে সরিয়ে আবহাওয়া একদমই শুকনো হয়ে যেতে পারে।

তবে বুধবার তথা অষ্টমীর দিন থেকে ফের বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি ফিরতে পারে দক্ষিণবঙ্গে। এর নেপথ্যে রয়েছে বঙ্গোপসাগর। ওই সাগরে সৃষ্ট হতে চলা একটি ওড়িশা-অন্ধ্রপ্রদেশমুখী নিম্নচাপের কারণে দক্ষিণবঙ্গের আকাশে মেঘ ঢুকতে পারে। তা থেকে অল্পস্বল্প বৃষ্টি হতে পারে। শুকনো আবহাওয়াকে সরিয়ে ফের ঢুকে পড়বে জলীয় বাষ্পে ভরা দখিণা বাতাস।

দশমীর ঠিক পরেই দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টির দাপট বাড়বে কারণ ওই নিম্নচাপটি শক্তি বাড়িয়ে স্থলভাগে আছড়ে পড়বে। সম্ভবত ঘূর্ণিঝড়েরও রূপ নিতে পারে সে।

তবে এখানেই শেষ নয়। বিভিন্ন মডেলের তথ্য বিশ্লেষণ করে জানা যাচ্ছে যে ওই নিম্নচাপটি মধ্য ভারত হয়ে উত্তর ভারতের দিকেও এগিয়ে যেতে পারে। এর ফলে অক্টোবরের ১৭-১৮ তারিখ নাগাদ হিমাচল প্রদেশ, উত্তরাখণ্ডেও ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এই বৃষ্টি হলে ওই সব রাজ্যের উঁচু এলাকাগুলিতে তুষারপাত হবে।

অক্টোবরের ২০ তারিখ নাগাদ ওই নিম্নচাপটি প্রভাব থেকে মুক্তি পাবে গোটা দেশ। হাওয়ার গতিপথ ফের বদলে উত্তর থেকে দক্ষিণমুখী হয়ে যাবে। হিমালয়ে সদ্য পড়া বরফের কারণে শীতল উত্তুরে হাওয়া এ রাজ্যের বায়ুমণ্ডলে ঢুকে পড়বে। তার পরেই শুরু হবে পারদ পতন। অর্থাৎ ২১-২২ তারিখ থেকে রাজ্যে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা অনেকটাই কমে যেতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

আরও পড়তে পারেন

পাঁচ রাজ্যে নির্বাচনে আগে ‘দিদিকে বলো’র ধাঁচে বিশেষ কর্মসূচি নিল বিজেপি

পঞ্জাবের পর এ বার কি ছত্তীসগঢ়ের মুখ্যমন্ত্রী বদলাবে দ্বন্দ্বে জর্জরিত কংগ্রেস?

লখিমপুর কাণ্ডের প্রতিবাদে রাজ্য সরকারের ডাকে বন্‌ধ, সম্পূর্ণ স্তব্ধ হতে পারে গোটা মহারাষ্ট্র

কাশ্মীরে বড়োসড়ো তল্লাশি অভিযানে তদন্তকারীরা, জঙ্গিযোগ সন্দেহে আটক ৭০০

আজ ষষ্ঠী: পঞ্চমীর রাতে কলকাতার মণ্ডপগুলিতে অল্পস্বল্প ভিড়, মাস্ক পরে প্রতিমাদর্শন

বড়িশা ক্লাবে এ বার ‘ভাগের মা’

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন