bus

কলকাতা: শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত বামফ্রন্টের ডাকা ছ-ঘণ্টার বন্‌ধের কোনো প্রভাবই পড়ল না কলকাতায়। প্রথম তিন ঘণ্টায় তেমন ছবিই ধরা পড়ল কলকাতা-সহ রাজ্যের অন্যান্য জেলাগুলিতেও।

কলকাতা বিমানবন্দর, হাওড়া ও শিয়ালদহ স্টেশন রয়েছে স্বাভাবিক। বিমান বা ট্রেন চলছে স্বাভাবিক সময় সারণী মেনেই। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, কোনো পরিবর্তন হয়নি সেখানে। অন্য দিকে উত্তর কলকাতার শ্যামবাজার, শিয়ালদহ বা  দক্ষিণ কলকাতার হাজরা, যাদবপুরের মতো যানবহুল এলাকাগুলিতে প্রতিদিনের মতোই বাস চলছে। সমস্ত স্কুলই রয়েছে খোলা। সকালের স্কুলগুলির কয়েকটি পরীক্ষা চলায় অভিভাবকরা কোনো রকমের ঝুঁকি না নিয়ে পড়ুয়াদের হাত ধরে বেরিয়ে পড়েছেন। কারণ স্কুল কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে কোনো নির্দেশ জারি করেননি।

উত্তরবঙ্গেও কোনো প্রভাব দেখা যায়নি বন্‌ধের। চা-বাগানগুলিতেও কোনো হেরফের ধরা পড়েনি। আবার ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলে শ্রমিকদের হাজিরা অন্যান্য দিনের মতোই। গত বৃহস্পতিবার বামফ্রন্টের ডাকা বন্‌ধকে সমর্থন করে কংগ্রেস। ধারণা করা হয়েছিল বাম-কংগ্রেসের যৌথ বন্‌ধে কিছুটা হলেও প্রভাব পড়তে পারে। যে কারণে বিশাল সংখ্যক পুলিশ বাহিনী নামানো হয় সকাল ছ-টা থেকেই। কিন্তু রাস্তায় স্বাভাবিক জনজীবন অব্যাহত থাকায় ধীরে ধীরে পুলিশ বাহিনীও হালকা হতে শুরু করে।

বিক্ষিপ্ত ভাবে বারাসতের চাঁপাডালি মোড় এবং হাওড়ার দাশনগরে পুলিশের সঙ্গে বচসা বাঁধে বন্‌ধ সমর্থকদের। বামকর্মীরা পথ অবরোধ করতে গেলেই তাঁদের সঙ্গে পুলিশের বচসা তৈরি হয়। তবে কিছুক্ষণের মধ্যেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। আবার দুর্গাপুর স্টেশনে মিছিল করে নিয়ে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এ ছাড়া আর তেমন কোনো খবর নেই।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here