Connect with us

উঃ ২৪ পরগনা

নিত্যানন্দের আবির্ভাবতিথি উপলক্ষ্যে মহোৎসব খড়দহে, ৭ মার্চ ১০০ মহিলা খোলবাদক নিয়ে নগরপরিক্রমা

কীর্তন, ৬৪ মহন্ত সেবা, ভোগ নিবেদন ইত্যাদির মাধ্যমে পালিত হচ্ছে নিত্যানন্দের আবির্ভাব উৎসব।

Published

on

শুভদীপ রায় চৌধুরী

‘জগৎ যারে ত্যাগ করে নিতাই তাকে বুকে ধরে,/ অদৃশ্য অস্পৃশ্য বলে জগৎ যারে ঠেলে ফেলে,/ ভয় নেই তোর আছি বলে নিতাই তারে করে কোলে।”

Loading videos...

১৩৯৫ শকাব্দের (১৪৭৩ খ্রিস্টাব্দ) মাঘ মাসের শুক্লপক্ষের ত্রয়োদশীতে বীরভূমের একচক্রা গ্রামে নিত্যানন্দপ্রভু আবির্ভূত হন। তাঁর আবির্ভাবকে কেন্দ্র করে শ্রীপাট খড়দহে চলছে মহোৎসব। কীর্তন, ৬৪ মহন্ত সেবা, ভোগ নিবেদন ইত্যাদির মাধ্যমে পালিত হচ্ছে নিত্যানন্দের আবির্ভাব উৎসব। এই উপলক্ষ্যে হবে নগরপরিক্রমা এবং বিদ্বজ্জনদের সমাবেশও।

নিত্যানন্দের আবির্ভাব উৎসব প্রসঙ্গে কথা হচ্ছিল মেজোবাড়ির সদস্য প্রভুপাদ সরোজেন্দ্রমোহন গোস্বামীর (নিত্যানন্দের বংশধর) সঙ্গে। তিনি জানালেন, আগামী ৬-৭ মার্চ প্রভুর আবির্ভাবতিথি উপলক্ষ্যে এক মহোৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। ৬ মার্চ অধিবাসের পর ৭ মার্চ প্রায় ১০০ জন মহিলা খোলবাদক নিয়ে খড়দহ পরিক্রমা করা হবে। ওই মহিলাদের খোল প্রদান করা হবে তাঁরই তত্ত্বাবধানে।

নিত্যানন্দ মহাপ্রভু ছোটোবেলা থেকেই কৃষ্ণ-কৃষ্ণ, পূতনা-বধ, শকট-ভঞ্জন ইত্যাদি খেলা খেলতে ভালোবাসতেন। ন’ বছর বয়েসে তাঁর উপনয়ন হয়। নিত্যানন্দের  বারো বছর বয়সে নবদ্বীপে এক সন্ধ্যায় গৌরচন্দ্রের জন্ম হয়। সেই সময় নিতাই একচক্রা গ্রাম থেকে গর্জন করে ওঠেন। হঠাৎ একদিন শ্রীপাদ ঈশ্বরপুরী এলেন হাড়াই পণ্ডিতের বাড়িতে আতিথ্য গ্রহণ করতে এবং বললেন যে তীর্থ পর্যটনে যাচ্ছেন, তাঁদের বড়ো ছেলে নিতাইচাঁদকেও নিয়ে যাবেন সঙ্গে।

সেইমতো শ্রীপাদ ঈশ্বরপুরীর সঙ্গ ধরে গৃহত্যাগ করলেন নিতাই। গেলেন বক্রেশ্বর, তার পর বৈদ্যনাথধাম, গয়া, কাশী, মথুরা, বৃন্দাবন, দ্বারকা, গণ্ডকী হয়ে হরিদ্বার। প্রায় বিশ বছর তীর্থযাত্রা করে তিনি ফিরলেন নবদ্বীপে। নিতাইচাঁদের নবদ্বীপে আগমন হয়েছে বলে নিমাই পাঠালেন হরিদাস ও শ্রীবাসকে তাঁর খোঁজ করতে। কিন্তু তাঁরা কোথাও নিতাইয়ের খোঁজ পেলেন না। অবশেষে নিমাই গেলেন নন্দন আচার্যের বাড়িতে। সেখানেই প্রথম দর্শন হল মহাপ্রভু শ্রীগৌরাঙ্গের সঙ্গে মহাপ্রভু নিত্যানন্দের।

১৫১৯ খ্রিস্টাব্দে নিতাইচাঁদের সঙ্গে বসুধা দেবীর বিবাহ হয়। নিতাইচাঁদের ইচ্ছা হল খড়দহে শ্রীপাট স্থাপন করবেন। নিজের মনের ভাব প্রকাশ করলেন ভক্তবৃন্দের কাছে। শ্রীপুরন্দর পণ্ডিত এই কথা শুনে আনন্দে মেতে উঠলেন এবং মহাসমারোহে নিতাইচাঁদকে নিয়ে এলেন। বর্তমানে এই ভবন ‘কুঞ্জবাড়ি’ নামে পরিচিত।

নিত্যানন্দের আবির্ভাব তিথি উপলক্ষ্যে রবিবার অধিবাস সম্পন্ন হয়েছে। সোমবার থেকে ‘কুঞ্জবাড়ি’তে শুরু হয়েছে ২৪ প্রহর নামসংকীর্তন। ২৫ ফেব্রুয়ারি সকালে নামসংকীর্তনের বিশ্রাম হবে এবং তার পর নগরপরিক্রমা হবে। পরিক্রমার পর শ্রীশ্রীরাধাশ্যামসুন্দরজিউ উপস্থিত হবেন ‘কুঞ্জবাড়ি’তে এবং ৬৪ মহন্তের জন্য মালসা-ভোগ এবং শ্যামসুন্দরের ভোগ হবে, তার সঙ্গে আরতি। ভোগারতির পর শ্রীশ্রীরাধাশ্যামসুন্দরজিউ আবার নিজ মন্দিরে ফিরে যাবেন।

এর পর আগামী ৭ মার্চ সকাল ৯টায় হবে বিশেষ নগরপরিক্রমা। পরিক্রমা শুরু হবে ‘কুঞ্জবাড়ি’ থেকে, এমনটাই জানালেন প্রভু সরোজেন্দ্রমোহন গোস্বামী। নগরপরিক্রমার কেন্দ্রে থাকবেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন শ্রীখোলবাদক রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হরেকৃষ্ণ হালদার, সঙ্গে থাকছেন তাঁর কন্যা রঞ্জিতা হালদার।

কুঞ্জবাড়ি।

পরিক্রমায় ‘বলরাম স্বরূপে নিত্যানন্দের রূপ’ চিত্রপট নিয়ে যোগ দেবেন প্রভু সরোজেন্দ্রমোহন গোস্বামী। পরিক্রমা শেষে শুরু হবে মহতী ধর্মসভা, বিষয়: শ্রীশ্রীনিত্যানন্দ মহাপ্রভু। মেজোবাড়ির গোপীনাথ মন্দিরে যে রাসমঞ্চ আছে সেখানেই অনুষ্ঠিত হবে ধর্মসভা। ধর্মসভায় পৌরোহিত্য করবেন ড. কাননবিহারী গোস্বামী। এ ছাড়াও থাকবেন ড. নিরঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায় (জাতীয় শিক্ষক), ড. শংকর ঘোষ (প্রাক্তন অধ্যাপক), রাধাকৃষ্ণ গোস্বামী (লেখক) প্রমুখ।

ধর্মসভার শেষে সকলকে ভোগপ্রসাদ খাওয়ানো হবে। ভোগে থাকবে খিচুড়ি, চচ্চড়ি, সাদাভাত, শুক্তনি, ডাল, পোস্ত, নানা রকমের ভাজা, তরকারি, পোলাও, ধোঁকার তরকারি, ছানার তরকারি, চাটনি, পায়েস, মিষ্টি ইত্যাদি। এই ভাবে ঐতিহ্যের সঙ্গে প্রভু নিত্যানন্দের আবির্ভাবতিথি উৎসব পালিত হচ্ছে খড়দহে।

আরও পড়ুন: শান্তিপুরে ধুমধাম করে পালিত হচ্ছে শ্রীশ্রীঅদ্বৈতাচার্যের আবির্ভাব মহোৎসব

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

ইতিহাস

বরানগরের প্রামাণিক কালীবাড়ির ব্রহ্মময়ীকে শ্রীরামকৃষ্ণ ডাকতেন ‘মাসি’ বলে

Published

on

ছবি ফেসবুক থেকে।

স্মিতা দাস

কলকাতার শহরতলিতে অবস্থিত বরানগর। এই বরানগরের অলিতে-গলিতে কত মন্দির ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে, তা হিসাব করে ওঠা কঠিন। এ হেন মন্দিরনগরীর এক উল্লেখযোগ্য মন্দির হল প্রামাণিক ঘাট রোডে প্রামাণিক কালীবাড়ি। এই মন্দিরে ব্রহ্মময়ী কালী অধিষ্ঠিতা।

Loading videos...

কথিত আছে, ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ দক্ষিণেশ্বরের ভবতারিণী কালীকে ‘মা’ এবং জয় মিত্র কালীবাড়ির কৃপাময়ী কালীকে ও প্রামাণিক কালীবাড়ির ব্রহ্মময়ী কালীকে ‘মাসি’ বলে ডাকতেন।

বরানগরের কুঠিঘাট থেকে ১০ মিনিটে হাঁটার দূরত্বে এই প্রামাণিক কালীবাড়ি। এটি নবরত্ন মন্দির এবং গঠন-বৈশিষ্ট্যে তা জয় মিত্র কালীবাড়ির অনুরূপ। সাধারণত নবরত্ন মন্দির বলতে আমরা চিরাচরিত বাঁকানো চালের শৈলী বুঝি, যেমন দক্ষিণেশ্বরের মন্দির। কিন্তু প্রামাণিক কালীবাড়ি হল দোতলা দালান মন্দির। প্রতি তোলার কোণে কোণে চূড়া বা রত্ন বসানো।   

কথা হচ্ছিল মন্দিরের পুরোহিত সোমনাথ বড়ালের সঙ্গে। তিনি জানালেন, তাঁরা এই মন্দিরে পাঁচ পুরুষ ধরে পুজো করছেন। তিনি বলেন, তাঁদের পূর্বপুরুষ কালীপদ বড়াল এই মন্দিরে পূজা শুরু করেন।

মন্দির প্রতিষ্ঠার ইতিহাস জানা গেল সোমনাথবাবুর কাছ থেকে। তিনি বলেন, এই মন্দির হল দে প্রামণিক পরিবারের। দে প্রামাণিকদের আদিবাড়ি বর্ধমানের পুলিনপুর গ্রামে। সেই পরিবারের কুলপুরোহিত ছিলেন বড়ালরা। প্রামাণিকরা এক সময় ব্যবসাবাণিজ্যের জন্য বর্মায় বসবাস করতেন। কিন্তু সেখানে যুদ্ধ শুরু হয়ে গেলে দেশে ফিরে আসেন। তার পরই দে প্রামণিক পরিবারের কামদেব দে কলকাতায় বসবাস শুরু করেন। তাঁরই বংশধর রামগোপাল দে দুর্গাপ্রসাদ দে ১২৫৯ বঙ্গাব্দের  (১৮৫৩ খ্রিস্টাব্দ) মাঘী পূর্ণিমার দিন এই মন্দিরটি প্রতিষ্ঠা করেন। দক্ষিণেশ্বরের মন্দিরের দু’ বছর আগেই এই মন্দির প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

শোনা যায়, দক্ষিণেশ্বরের ভবতারিণীর মূর্তি যিনি গড়েছিলেন দাঁইহাটের সেই ভাস্কর নবীনচন্দ্র পালই এই ব্রহ্মময়ী বিগ্রহ তৈরি করেন। আসলে নবীন ভাস্কর একই কষ্টিপাথর থেকে তৈরি করেছিলেন তিন মূর্তি – ভবতারিণী কালী, ব্রহ্মময়ী কালী এবং কৃপাময়ী কালী। প্রতিটি মূর্তিই তৈরি হয়েছিল দক্ষিণেশ্বরের মন্দিরের জন্য। মন্দিরের আকার অনুযায়ী রানি রাসমণির মনে হয়েছিল, ব্রহ্মময়ী কালী ও কৃপাময়ী কালীর মূর্তি ছোটো, মন্দিরের সঙ্গে ঠিক খাপ খায় না। পরে নবীন ভাস্কর ভবতারিণীর মূর্তি তৈরি করেন। কৃপাময়ী ও ব্রহ্মময়ী মূর্তি অধিষ্ঠিতা হন জয় মিত্র কালীবাড়ি ও প্রামাণিক কালীবাড়িতে।   

এখনও মাঘী পূর্ণিমার দিন প্রতিষ্ঠাতিথিতে বিশেষ পুজোর আয়োজন করা হয়ে থাকে প্রামাণিক কালীবাড়িতে। চলে হোম-যজ্ঞ, ভোগ বিতরণের ব্যবস্থা করা হয়। কালীপুজোর দিন দেবীকে সাজানো হয় বিশেষ বসনে। কালের নিয়ম মেনেই এই মন্দিরে পশুবলি বন্ধ।

আরও পড়ুন: বরানগরের জয় মিত্র কালীবাড়িতে পশুবলি বন্ধ হয়েছিল বালানন্দ ব্রহ্মচারীর বিধানে

Continue Reading

উঃ ২৪ পরগনা

টিকাকরণ শেষ হলেই নাগরিকত্ব, ঘোষণা অমিত শাহের

ঠাকুরনগরের সভা থেকে সিএএ কার্যকর নিয়ে বড়োসড়ো ঘোষণা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের।

Published

on

ঠাকুরনগরে অমিত শাহ। ছবি: বিজেপির সৌজন্যে

খবর অনলাইন ডেস্ক: বৃহস্পতিবার উত্তর ২৪ পরগনার ঠাকুরনগরের সভা থেকে নাগরিকত্ব (সংশোধনী) আইন (CAA) কার্যকর নিয়ে বড়ো ঘোষণা করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ (Amit Shah)।

এ দিনের সভা থেকে তিনি বলেন, “বাংলাদেশ থেকে অনেক শরণার্থী এখানে এসেছেন। তাঁরা কোনো সম্মান পান না। এর আগে কংগ্রেস সরকার যত বার ক্ষমতায় এসেছে, তত বারই নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রতিশ্রুতিই শুধুই মিলেছে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত দিতে পারেনি”।

Loading videos...

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “আমরা ক্ষমতায় আসার পর ২০১৮ সালে নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম। সেই প্রতিশ্রুতি আমরা রেখেছি। আমরা ২০১৯ সালে আইন পাশ করেছি। কিন্তু করোনাভাইরাস মহামারির কারণে তা কার্যকরে দেরি হচ্ছে। আমরা বলছি, নাগরিকত্ব করবই। এখন করোনা টিকাকরণ চলছে। এই কাজ শেষ হলেই সিএএ কার্যকর হবে”।

এর আগে ৩০ জানুয়ারি ঠাকুরনগরে সভা করার কথা ছিল অমিত শাহের। কিন্তু একে বারে শেষ মুহূর্তে সেই সভা বাতিল হয়ে যায়। প্রশ্ন ওঠে, তা হলে কি মতুয়া সম্প্রদায়ের নাগরিকত্বের প্রশ্নে সৃষ্টি হওয়া জটিলতা এড়াতেই বাংলায় এলেন না কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী? তিনি বলেন, “আপনারা নিশ্চিত থাকুন, আপনাদের সম্মান রক্ষার দায়িত্ব নিচ্ছে বিজেপি। মিডিয়ার লোকজন সিএএ নিয়ে প্রশ্ন তুলছে। কিন্তু আমরা নিজেদের প্রতিশ্রুতি পালন করবই”।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মতুয়া, “নমশূদ্র-সহ অনেকেই বাংলাদেশ থেকে এখানে এসেছেন। কংগ্রেস প্রতিশ্রুতি রাখেনি। মমতাদিদি আমরা সেই লোক, যাঁরা মুখে যা বলে, কাজেও সেটা করি। এটা দেশের সংসদে পাশ হওয়া আইন। আপনি কী করে আটকে রাখবেন। তা ছাড়া কয়েক দিন বাদেই তো আপনি ক্ষমতা হারাবেন। আমরা শরণার্থীদের সম্মান দিয়ে বুকে টেনে নেব। কেউ আটকাতে পারবে না”।

একই সঙ্গে তিনি বলেন, “এতে মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষের আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। এই আইনে শরণার্থীরা নাগরিকত্ব পাবেন। এটা তাঁদের অধিকার। আমরা যতটা অধিকার, তাঁদেরও ততটাই অধিকার। কোনো বিভ্রান্তিতে কান দেবেন না”।

আরও পড়তে পারেন: ‘সোনার বাংলা’ তৈরির মেয়াদ বেঁধে দিলেন অমিত শাহ

Continue Reading

উঃ ২৪ পরগনা

বাগুইআটির ‘অভিন্দ্রা’ সরস্বতীপুজোয় তুলে ধরে এক অনন্য কাহিনি, এ বছর ‘ধারা

বিসর্জনের দিন ‘অভিন্দ্রা’র পুরুষ সদস্যরা দেবীকে বরণ করবেন ও মহিলা সদস্যরা প্রতিমাকে নিয়ে বিসর্জনের পথে রওনা দেবেন।

Published

on

'অভীন্দ্রা'য় সরস্বতী প্রতিমা।

শুভদীপ রায় চৌধুরী

উৎসব মানেই বাঙালির জীবনে এক চরম আবেগঘন মুহূর্ত। এই উৎসবকে কেন্দ্র করেই এক হয় বাঙালি, সব আনন্দতেই বাঙালি এক নম্বরে। তাই শুধুমাত্র দুর্গাপুজো বা কালীপুজোতেই কেন মহোৎসব হবে? ছোটো থেকে বড়ো, সবাই মিলে সরস্বতীপুজোতেও মেতে ওঠেন। পুজো আসার বেশ কয়েক দিন আগে থেকেই পড়ে যায় সাজো সাজো রব। শুধুমাত্র বারোয়ারি পুজোই নয়, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানেও পালিত হয় বাগদেবীর আরাধনা।

Loading videos...

বাগুইআটি অঞ্চলের সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘অভিন্দ্রা’ বেশ কয়েক বছর ধরেই জাঁকজমক ভাবে পালন করেছে সরস্বতীপুজো। প্রতি বছরই এক অনন্য কাহিনি অবলম্বনে গড়ে তোলা হয় তাদের পুজোমণ্ডপ এবং সেই সঙ্গে মানানসই দেবীপ্রতিমাও।

কথা হচ্ছিল ‘অভিন্দ্রা’ পরিবারের সদস্য ইন্দ্রায়ুধ সেনের সঙ্গে। তিনি জানালেন ‘অভিন্দ্রা’র পথ চলা শুরু হয়েছে ২০১৮ সাল থেকে, তবে বাগীশ্বরীর আরাধনা বহু বছর থেকেই হয়ে আসছে। কথায় কথায় জানা গেল, ২০১২ সাল থেকে সরস্বতী পুজোয় নানা অজানা কাহিনি সাধারণ দর্শকের সামনে তুলে ধরছে ‘অভিন্দ্রা’।

এ বছর ‘অভিন্দ্রা’ নদী রূপে সরস্বতীর উৎপত্তির কাহিনি তুলে ধরছে। স্কন্দপুরাণ থেকে একটি ছোট্টো গল্পকে উপস্থিত করা হয়েছে। ইন্দ্রায়ুধের সঙ্গে কথায় কথায় জানা গেল, এ বছর তাঁদের থিমের নাম ‘ধারা’, যাতে মূর্ত হয়েছে দেবী সরস্বতীর নদীরূপের কাহিনি।

‘অভিন্দ্রা’ পরিবারের ঈশান জানালেন, এ বছর তাঁদের মণ্ডপে থাকছে বিদেশি সংস্কৃতির ছোঁয়া, রোমান ও গ্রিক মন্দিরের কিছু অংশ নিয়ে ফ্রেসকো চিত্রকলা। ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে সাধারণ দর্শনার্থীরা দেবীদর্শন করতে পারছেন। আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি দেবীপ্রতিমা বিসর্জন হবে।

বিগত বছরগুলোর মতো এ বছরেও বিসর্জনের দিন ‘অভিন্দ্রা’র পুরুষ সদস্যরা দেবীকে বরণ করবেন ও মহিলা সদস্যরা প্রতিমাকে নিয়ে বিসর্জনের পথে রওনা দেবেন। পুজোর দিন সকাল থেকেই শুরু হয়ে যাবে দেবীকে নানা রকমের রান্নার পদ নিবেদন করা। ভোগে থাকবে খিচুড়ি, ভাজা, পোস্তর বড়া, মুড়িঘণ্ট, নানা রকমের তরকারি, চাটনি ইত্যাদি।

সরস্বতীপুজোর দিন সন্ধ্যায় শব্দব্রহ্ম অর্থাৎ সঙ্গীত-ভাষ্য এবং স্তোত্রপাঠের মাধ্যমে দেবীর আরতি হবে। প্রতিমায় সাবেকিয়ানা থাকলেও সামান্য অন্য ঘরানার ছোঁয়াও পাওয়া যাবে পুজোমণ্ডপে উপস্থিত হলে।

এ বছর সমস্ত রকমের বিধিনিষেধ মেনেই পালিত হচ্ছে পুজো। দর্শকদের স্যনিটাইজ করা হবে এবং সবাইকে মাস্ক পরে আসতে হবে। প্রশাসনের সমস্ত নিয়ম মেনেই পালিত হচ্ছে বাগুইআটির ‘অভিন্দ্রা’র এ বছরের নিবেদন ‘ধারা’, আপনারাও উপভোগ করুন এক অভিনব উদ্যোগ।

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
দেশ9 mins ago

বাড়ছে উদ্বেগ! করোনায় নতুন করে আক্রান্ত ১৬ হাজারের বেশি

দেশ36 mins ago

মহারাষ্ট্রে অব্যাহত করোনার দাপট, ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত প্রায় ৯ হাজার!

দেশ59 mins ago

আপনার বয়স কি ৪৫ বছরের বেশি? সোমবার থেকে কী ভাবে করোনা ভ্যাকসিন পাবেন

শিল্প-বাণিজ্য1 hour ago

বৃহস্পতিবার স্থির পেট্রোল, ডিজেলের দাম

শিল্প-বাণিজ্য2 hours ago

মাঝরাতে ফের বাড়ল রান্নার গ্যাসের দাম, চলতি মাসে এই নিয়ে তিন বার

ফুটবল11 hours ago

বিপিন সিংয়ের হ্যাটট্রিক, ওড়িশাকে আধ ডজন গোল মুম্বইয়ের

ক্রিকেট12 hours ago

স্টেডিয়ামে অদ্ভুত কিছু বিপত্তির পর অমদাবাদ টেস্টের প্রথম দিন চালকের আসনে ভারত

LPG
প্রযুক্তি13 hours ago

রান্নার গ্যাসের ভরতুকির টাকা অ্যাকাউন্টে ঢুকেছে কি না, কী ভাবে দেখবেন

LPG
প্রযুক্তি13 hours ago

রান্নার গ্যাসের ভরতুকির টাকা অ্যাকাউন্টে ঢুকেছে কি না, কী ভাবে দেখবেন

প্রযুক্তি2 days ago

এ ভাবেই তৈরি করুন সদ্যোজাত শিশুর আধার কার্ড, জানুন কী কী লাগবে

বিনোদন3 days ago

পর্ন ‘লাইভ স্ট্রিমিং’ থেকে আয় কোটি টাকা, অ্যাপের মাধ্যমে চিত্রনাট্য-সহ পরিবেশিত হচ্ছে অশ্লীলতা

রাজ্য2 days ago

দেড় ঘণ্টা পর অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়ি ছাড়লেন সিবিআই আধিকারিকরা

দেশ2 days ago

প্রতিষ্ঠান-বিরোধিতার হাওয়া নেই, কেরলে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে এখনও জনপ্রিয় পিনারাই বিজয়ন

ফুটবল3 days ago

দশ জনে খেলা হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে পিছিয়ে থেকেও শেষ মুহূর্তের গোলে মান বাঁচাল এটিকে মোহনবাগান

ফুটবল2 days ago

কোনো রকমে হার বাঁচানো এটিকে মোহনবাগানের খেলায় বেজায় ক্ষুব্ধ আন্তোনিও লোপেজ আবাস

শিল্প-বাণিজ্য3 days ago

পশ্চিমবঙ্গ-সহ ৪ রাজ্যে পেট্রোল, ডিজেলের দামে ছাড়! জানুন কোথায় কমল কত

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 weeks ago

সরস্বতী পুজোর পোশাক, ছোটোদের জন্য কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সরস্বতী পুজোয় প্রায় সব ছোটো ছেলেমেয়েই হলুদ লাল ও অন্যান্য রঙের শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে ওঠে। তাই ছোটোদের জন্য...

কেনাকাটা3 weeks ago

সরস্বতী পুজো স্পেশাল হলুদ শাড়ির নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই সরস্বতী পুজো। এই দিন বয়স নির্বিশেষে সবাই হলুদ রঙের পোশাকের প্রতি বেশি আকর্ষিত হয়। তাই হলুদ রঙের...

কেনাকাটা1 month ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা1 month ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা1 month ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা1 month ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা1 month ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা1 month ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা1 month ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

কেনাকাটা1 month ago

৯৯ টাকার মধ্যে ব্র্যান্ডেড মেকআপের সামগ্রী

খবর অনলাইন ডেস্ক : ব্র্যান্ডেড সামগ্রী যদি নাগালের মধ্যে এসে যায় তা হলে তো কোনো কথাই নেই। তেমনই বেশ কিছু...

নজরে