Birds sundarban

কলকাতা: সুন্দরবনের রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের পর পর্যটকদের বাড়তি উৎসাহ সৃষ্টি করতে পাখি নিয়ে নয়া উদ্যোগ বাস্তবায়নের পথে রাজ্যের বন দফতর। এই কাজে তাদের দোসর স্বাভাবিক ভাবেই সুন্দরবন উন্নয়ন দফতরও। রাজ্য সরকারের কাছে খবর রয়েছে, এই মুহূর্তে সুন্দরবনে যে সংখ্যক ভিন্ন প্রজাতির পাখি রয়েছে তা বিশ্বের অন্যান্য জঙ্গলে প্রায় অমিল। এই বিষয়টিকেই সামনে তুলে ধরে বিরল প্রজাতির ওই পাখিগুলির সচিত্র বিবরণ বই আকারে মলাট বন্দির প্রয়াস নিয়েছে এই দুই দফতর।

জানা গিয়েছে, সুন্দরবনের প্রায় ১০০ প্রজাতির পাখি রয়েছে। এর মধ্যে ৩০-৪০ শতাংশ পাখিই অজানা-অচেনা। এদের পূর্ণাঙ্গ বিবরণ সংগ্রহ করাকেই প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসাবে বেছে নেওয়া হয়েছে। এই কাজে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সহযোগিতা নেওয়া হচ্ছে। প্রারম্ভিক পর্বে সহায়তা নেওয়া হচ্ছে বিশ্বের অন্যতম পক্ষী বিশারদ তথা ফোটোগ্রাফার সুমিত সেনের। বাঙালি যুবক সুমিতবাবু শুধুমাত্র পাখির আলোকচিত্র সংগ্রহ ও গবেষণার কাজে ইতিমধ্যেই যথেষ্ট সুনাম অর্জন করেছেন।

সুমিতবাবু বর্তমানে যুক্ত রয়েছেন সুন্দরবনের অচেনা পাখির ছবি তুলতে। পাখিগুলির সম্পর্কে সঠিক তথ্য সংগ্রহে তিনি বিশ্বের অভিজ্ঞ কয়েকজন পক্ষীবিশারদের সহযোগিতাও নিচ্ছেন। পাশাপাশি ওই পাখিগুলি সুন্দরবনের কোন অঞ্চলে অধিক মাত্রায় লক্ষ্য করা যায়, তা জানতে তিনি সাহায্য নিচ্ছেন স্থানীয় মানুষেরও। একই সঙ্গে সুন্দরবনে কোনো বিদেশি পাখি আসে কি না, সেই তথ্যও জানার চেষ্টা চলছে স্থানীয় মানুষের অভিজ্ঞতার নিরিখে।

নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, ছবি তোলার কাজ শেষ হলে সুন্দবনের ওই সমস্ত পাখির সচিত্র বিবরণ দিয়ে একটি বই প্রকাশ করা হবে। যে বই সুন্দরবনের ম্যানগ্রোভ অরণ্য, রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের পাশাপাশি সেখানকার বৈচিত্রময় পাখিদের নিয়েও পর্যটকদের মনে বাড়তি উৎসাহ সৃষ্টি করবে বলেই ধারণা রাজ্য সরকারের। এই বই চলতি বছরেই প্রকাশিত হবে বলেও জানা গিয়েছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here