ডাক্তারদের কর্মবিরতির জের: ইস্তফা এনআরএস-এর অধ্যক্ষ, সহ-অধ্যক্ষের

0
nrs on thursday
বৃহস্পতিবারের এনআরএস। ছবি রাজীব বসু।

ওয়েবডেস্ক:  প্রথমে মুখ্যমন্ত্রীর হুঁশিয়ারি, তার পর আবেদন। কিন্তু কোনো কাজ হল না। প্রতিবাদী ডাক্তাররা জানিয়ে দিয়েছেন, দাবি না মেটা পর্যন্ত তাঁদের কর্মবিরতি চলবে। এই অচলাবস্থার মধ্যেই পদত্যাগ করলেন এনআরএস মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ এবং সহ-অধ্যক্ষ তথা মেডিক্যাল সুপারিনটেন্ডেন্ট।

অধ্যক্ষ শৈবাল কুমার মুখার্জি এবং সহ-অধ্যক্ষ সৌরভ চট্টোপাধ্যায় তাঁদের পদত্যাগের কারণ সম্পর্কে জানিয়েছেন, ডাক্তারদের কর্মবিরতি থেকে সৃষ্ট সংকট মেটানোর ব্যাপারে তাঁরা ব্যর্থ হয়েছেন, তাই এই ইস্তফা। এ ব্যাপারে তাঁরা দুঃখও প্রকাশ করেছেন।

এই নিয়ে এনআরএস-এ পদত্যাগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৭-এ। ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের পাঁচ জন ডাক্তার আগেই পদত্যাগ করেছেন।  

রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিষেবায় শীর্ষস্থানীয় দুই প্রশাসনিক প্রধানের ইস্তফার ফলে রাজ্য সরকার আরও আতান্তরে পড়লেন বলে মনে করে রাজ্যে চিকিৎসা পরিষেবায় সংশ্লিষ্ট মহল।

বহিরাগত তকমায় ক্ষুব্ধ ডাক্তাররা

হাসপাতালের কাজ স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে নিয়ে আসতেই বৃহস্পতিবার এসএসকেএমে যান মুখ্যমন্ত্রী। সেখানে গিয়ে এনআরএসের ডাক্তারদের ‘বহিরাগত’ বলে তোপ দাগেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই বক্তব্যও ক্ষোভ বাড়িয়েছে আন্দোলনরত জুনিয়র ডাক্তারদের। ‘আমরা কারা? বহিরাগত? আমরা নিরাপত্তা চাই’ – বৃহস্পতিবার এই স্লোগান শোনা গেল ধর্মঘটী ডাক্তারদের মুখে। তাঁদের দাবি, ‘বহিরাগত’ মন্তব্যের জন্য মুখ্যমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে হবে।

সাগর দত্তে পদত্যাগের হিড়িক

উত্তর ২৪ পরগনার সাগর দত্ত মেডিক্যাল কলেজে পদত্যাগী ডাক্তারের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১৮-য়। আগেই ৮ জন ডাক্তার পদত্যাগ করেছিলেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজ্য সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে ওই মেডিক্যাল কলেজের আরও ১০ ডাক্তারের ইস্তফাপত্র পৌঁছেছে।

মুখ্যমন্ত্রীর আবেদন

রাজ্যের সরকারি হাসপাতালগুলি যাতে স্বাভাবিক ভাবে চলতে পারে তার জন্য যত্নবান হতে সিনিয়ার ডাক্তারদের কাছে আবেদন জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর সরকারি লেটারহেডে লেখা এক বার্তায় মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন। “অনুগ্রহ করে সব রোগীর দেখভাল করুন। সব জেলা থেকে দরিদ্র রোগীরা আসছেন। আপনারা যদি হাসপাতালগুলোর দিকে পুরো নজর দেন তা হলে আমি বাধিত ও সম্মানিত বোধ করব। হাসপাতালগুলো বাধাহীন এবং শান্তিপূর্ণ ভাবে চলা উচিত। সমস্ত সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ।”

ডাক্তার নিগ্রহে ক্ষুব্ধ কমলেশ্বর

চলচ্চিত্র পরিচালক কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায় এবং সংগীতশিল্পী সিধু তথা সিদ্ধার্থ রায়ের আরেকটা পরিচয় হল তাঁরা চিকিৎসকও। এনআরএস-এর সাম্প্রতিক কাণ্ডে তাঁরা রীতিমতো ক্ষুব্ধ। এবং তাঁরা তাঁদের ক্ষোভ উগরে দিতে করেননি। নিজের ফেসবুকে পেজে পোস্ট করে কমলেশ্বর লিখেছেন, ‘‘চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে এই অরাজকতা আর কত দিন সহ্য করব আমরা? কত দিন চলবে এই অসভ্য লুম্পেনদের জুলুমবাজি? ঠিক কত দিন চিকিৎসা পরিষেবার উন্নয়নের গালগল্প চলবে? আর কত দিন চিকিৎসকেরা কর্মক্ষেত্রে সুরক্ষা পাবেন না? কত দিনে শাস্তি দেওয়া যাবে এমন জুলুমবাজদের? ঠিক কত দিনে এই জুলুমবাজদের ক্ষেপিয়ে তোলা ও লেলিয়ে দেওয়া বন্ধ হবে?’’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here