নিজস্ব প্রতিনিধি, বর্ধমান: গলসি ২নং ভুরি গ্রাম পঞ্চায়েতে একশো দিনের কাজ চলছিল । কিন্তু, হঠাৎই কোদালের নীচে পাথরের বাধা।  তা থেকেই  মাটি সরে গিয়ে জেগে উঠল মন্দিরের চূড়া । আর তারপরই আরও গভীরে যেতেই বেরিয়ে পড়ল পূর্ণাঙ্গ মন্দিরের অবয়ব। কোন দেব বা দেবীর মন্দির তা এখনও জানা না যায়নি।

স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রধান ও পঞ্চায়েত সদস্য জানিয়েছেন, একশো দিনের কাজের জন্য শ্রমিকরা কাজ করছিল প্রায় এক সপ্তাহ ধরে। খননের মাধ্যমে হঠাৎই বেরিয়ে পড়ে মন্দিরের চূড়া। আর তারপরেই বেড়িয়ে পড়ে পূর্ণাঙ্গ মন্দিরটির অবয়ব। দামোদর নদীর ঝুঝুটি ঘাটের পাশে বেশ কিছু মন্দির ছিল বলে জানিয়েছেন গ্রামবাসীরা। খননকার্য আপাতত স্থগিত রয়েছে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন: দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে দশ লক্ষ কোটি টাকার পরিকল্পনা ঘোষণা করল মোদী সরকার

এ বিষয়ে প্রাচীন ইতিহাস ও পুরাতত্ত্ব চর্চাবিদ সর্বজিৎ যশ জানান “বন্যা থেকে বর্ধমান শহরকে বাঁচাতে  আনুমানিক ১৭৫০  সালে দামোদরের ওপর বাঁধ নির্মাণ করা হয়। বাঁধ নির্মাণ করাকালীন মাটির তলায় অনেক কিছুই চাপা পড়ে যায়। হয়ত সেই সময়েই এই মন্দির মাটির তলায় চাপা পড়ে যায়। এটি সম্ভবত শিব মন্দির। খনন কাজ চলছে। বিষয়টিতে আমরা নজর রাখছি”।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here