ওয়েবডেস্ক: গত শুক্রবার রাতে নদিয়ার চাকদহে আততায়ীর গুলিতে নিহত হন সন্তু ঘোষ (২৪) নামে এক স্থানীয় যুবক। ঘটনার দু’দিনের মাথায় এলাকা থেকে সন্দেহভাজন হিসাবে গ্রেফতার করা হল এক জনকে। ধৃতের নাম ভরত বিশ্বাস। তবে তাঁর বয়ানে অসঙ্গতি রয়েছে বলে জানা গিয়েছে পুলিশ সূত্রে।

পুলিশ এবং সংবাদ মাধ্যমের কাছে ভরত জানায়, ওই রাতে রাতে ঘটনাস্থলে তারা বেশ কয়েক জন বসেছিল। সেখানে তারা মোবাইলে সময় কাটাচ্ছিল। হঠাৎ সেখানে লাল্টু দাস নামে এক যুবকের সঙ্গে আরও কয়েক জন আসে। তারাই সন্তুকে গুলি করে পালায়। গুলির আওয়াজ পেয়ে ভরতরা ভয় পেয়ে সেখান থেকে পালিয়ে যায়।

অথচ, সূত্র বলছে, ভরতের পরিহিত জিন্সের প্যান্টে রক্তের দাগ মিলেছে। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয়েছে একটি হাওয়াই চটি। ওই চটিটি ভরতেরই না কি খুনের সঙ্গে আরও কেউ জড়িত, তা জানতে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে ভরতের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে লাল্টুর খোঁজ চালাচ্ছে পুলিশ। বর্তমানে সে এলাকায় নেই বলেই জানা গিয়েছে।

এর পরই সন্তু বিজেপি না কি তৃণমূল কর্মী, সেই নিয়েই শুরু হয় চাপান-উতোর। সন্তু ঘনিষ্ঠদের দাবি, তিনি আগে তৃণমূল করলেও কয়েক দিন আগেই বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। যে কারণে এই হত্যা। তবের নিহতের পরিবারের তরফে কোনো রকমের রাজনৈতিক সংযোগের কথাই অস্বীকার করা হয়েছে। সন্তুর বাবা সাধু ঘোষ মিষ্টির দোকানের কারিগর। তবে অসুস্থতার জন্য নিয়মিত কাজে যেতে পারেন না। সন্তু কলকাতায় সোনার দোকানে কাজ করতেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here