jalpaiguri bjp leader

নিজস্ব প্রতিনিধি, জলপাইগুড়ি: অবস্থাটা যেন “দাগি অপরাধী”র মতো। মাথার উপর ঝুলছে একলক্ষ টাকা “জরিমানা”র খাড়া।বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াতে হচ্ছে।অপরাধ তিনি “বিজেপি”নেতা। এমনটাই অভিযোগ জলপাইগুড়ির বিজেপি জেলা কমিটির এক সদস্যের।

জলপাইগুড়ি জেলার ময়নাগুড়ি ব্লকের উত্তর ভুসকাডাঙার বাসিন্দা প্রাক্তন সেনাকর্মী অধীরচন্দ্র বর্মন। পঞ্চায়েত নির্বাচনের ময়দানে তিনি এক বিজেপি নেতা হিসাবে যথেষ্ট জনপ্রিয়তা পেয়েছেন। কিন্তু এ বারের নির্বাচনে ময়নাগুড়ি ব্লকের ১৬টি অঞ্চলেই জিতেছে তৃণমূল। স্বাভাবিক ভাবেই শাসকদলের তরফে জারিমানার হুমকি পেয়ে স্বপরিবারে এলাকা ছেড়েছেন বলে অভিযোগ তুললেন অধীরবাবু।

মঙ্গলবার জেলা শাসক শিল্পা গৌরিসারিয়ার সঙ্গে দেখা করে অধীরবাবু লিখিত অভিযোগ জমা করেন। পাশাপাশি এলাকায় ঢুকতে না পেরে ময়নাগুড়ি থানায় লিখিত অভিযোগ পাঠিয়েছেন ডাকযোগে। তাঁর দাবি, গত ১৯ মে তিনি যখন বাড়িতে ছিলেন তখন তৃণমূলের প্রায় ৬০-৭০ জনের একটি দল তাঁর বাড়িতে চড়াও হয়। অবস্থা বুঝে পরিবারের সদস্যরা অধীরবাবুকে একটি ঘরবন্দি করে তালা লাগিয়ে দিয়ে বলেন, অধীরবাবু বাড়িতে নেই। কিন্তু ওই দলের সদস্যরা পরিবারের সদস্যদের উদ্দেশে বল, বিজেপি করা চলবে না। উপরন্তু এলাকায় থাকতে হলে এক লক্ষ টাকা জরিমানা দিতে হবে বিজেপি করার অপরাধে।

অধীরবাবুর দাবি, এই ভাবে তোলা আদায় করেই তৃণমূল এলাকায় বিজয় মিছিল বের করবে। শুধু তিনি নন, আরও দুই বিজেপি কর্মী সুভাষ রায় এবং রাধাকান্ত রায়ের কাছ থেকে যথাক্রমে ৫০ হাজার এবং ২৫ হাজার টাকা দাবি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: বিজয়ী প্রার্থীদের নিয়ে দিল্লিতে মুকুল রায়, অভিযোগ বহুবিধ

এ দিন বিজেপির এক দল জেলা প্রতিনিধি পুলিশ সুপারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করলে পুলিশের তরফে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়।

অন্য দিকে জলপাইগুড়ি জেলা তৃণমূলের সভাপতি সৌরভ চক্রবর্তীর দাবি, এ ধরনের কোনো ঘটনাই ঘটেনি। যাঁরা এ ধরনের অভিযোগ করছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ থাকতে পারে। পুলিশের হাত থেকে বাঁচার জন্যই তাঁরা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here