Mukul roy and filip ghosh

কলকাতা: নিয়মানুযায়ী পুরসভা এবং পঞ্চায়েত ভোট পরিচালনা করে সংশ্লিষ্ট রাজ্যের নির্বাচন কমিশন। তবুও রাজ্য বিজেপির তরফে মুকুল রায়ের নেতৃত্বে এক দল প্রতিনিধি দেখা করেছেন দেশের মুখ্য নির্বাচন আধিকারিক ওম প্রকাশ রাওয়াতের সঙ্গে। পশ্চিমবঙ্গের পঞ্চায়েত নির্বাচন ওই সাক্ষাতের মূল বিষয় হলেও ঠিক কী কী আর্জি তাঁরা জানিয়েছিলেন, সে সব কথা রীতিমতো সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে জানালেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

মুকুলবাবু দিল্লিতে মুখ্য নির্বাচন আধিকারিকে বলেছেন, গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে বহু বুথে তৃণমূল কংগ্রেস ১০০ শতাংশ ভোট পেয়েছে। অন্যান্য কোনো বিরোধী দল, সিপিএম, কংগ্রেস বা বিজেপি একটিও ভোট পায়নি ওই ধরনের বুথে। কী ভাবে?

সেই কারণ স্বচক্ষে দেখার জন্য তিনি কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের কাছে আর্জি জানিয়েছেন, ৫০ সদস্যদের একটি প্রতিনিধি দল পাঠানো হোক। তৃণমূল কংগ্রেস কী কায়দায় পশ্চিমবঙ্গে ভোট করে তা দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হোক। ২০১৯-এর লোকসভা ভোটে যাতে ওই ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয়, সে দিকে নজর রেখেই ওই ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন জানানো হয়েছে। ভোটগ্রহণের একটা সুনির্দিষ্ট মডেলেরও দাবি করেছেন তিনি।

দিল্লি থেকে ঘুরে এসে জানানো হয়েছিল, কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন যে সুষ্টু ও শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণের ব্যবস্থা করবে, সে বিষয়ে তাঁরা আত্মবিশ্বাসী।

গত সোমবার রাজ্যের সদর দফতরে দিলীপবাবু বলেন, তাঁরা কেন্দ্র ও রাজ্য, উভয় নির্বাচন কমিশনের কাছে আবেদন করেছেন, এ বারের পঞ্চায়েত ভোটের প্রার্থীদের মনোনয়ন যেন অনলাইনে জমা করার পদ্ধতি চালু করা হয়। কারণ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে তাঁদের কাছে খবর আসছে, এখন থেকেই বিজেপি কর্মীদের ভয় দেখানো হচ্ছে।

পাশাপাশি মহকুমা ও জেলা শাসকের দফতরে যেমন মনোনয়ন জমার ব্যবস্থা থাকে তেমনই নির্বাচন কমিশনের অফিসেও একটি পৃথক কাউন্টার খুলে তা জমা নেওয়ার বন্দোবস্থ করার আবেদন জানানো হয়েছে।

 

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন