victory of trinamul congress

ওয়েবডেস্ক: মনে করা হচ্ছিল উত্তরের দু-একটা জেলা পরিষদ বিজেপির দখলে যেতে পারে। কিন্তু সে সব কিছুই হল না। রাজ্যের সব জেলা পরিষদই দখল করে ফেলেছে তৃণমূল। অধিকাংশ জেলাপরিষদই বিরোধী শূন্য। গণনা এখন প্রায় শেষ পর্যায়ে। তবে বিজেপি কিছুটা লড়াই দিয়েছে মালদা, পুরুলিয়া ও ঝাড়গ্রামে।

ইতিমধ্যেই হাওড়া ও মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদ দখল করে নিয়েছে তৃণমূল। মালদা ও পুরুলিয়া জেলা পরিষদ তৃণমূলকে বিরোধীশূন্য করতে দেয়নি বিজেপি। এখনও পর্যন্ত প্রকাশিত ফলে মালদা জেলা পরিষদে ৩৮টি আসনের মধ্যে ৩৭টির ফল ঘোষিত হয়েছে। এর মধ্যে তৃণমূল পেয়েছে ২৯টি, বিজেপির ঝুলিতে গিয়েছে ৬টি, কংগ্রেস পেয়েছে ২টি। পুরুলিয়া জেলা পরিষদের ৩৮টি আসনের মধ্যে সব ক’টিরই ফল ঘোষিত হয়েছে। তৃণমূল ২৫টি আসন, বিজেপি ১০টি আসন এবং কংগ্রেস ৩টি আসন। ঝাড়গ্রাম জেলা পরিষদের ১৬টি আসনের মধ্যে ১৩টি পেয়েছে তৃণমূল, ৩টি বিজেপি।

যে সব জেলাপরিষদ বিরোধী শূন্য সেগুলি হল, বাঁকুড়া, বর্ধমান, পূর্ব এবং পশ্চিম বর্ধমান, পূর্ব এবং পশ্চিম মেদিনীপুর, উত্তর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগণা এবং হুগলি। অন্যদিকে কোচবিহার এবং হাওড়ায় একটি করে জেলাপরিষদ দখল করেছে নির্দলরা। সুতরাং ওই দুটি জেলাপরিষদও কার্যত বিরোধী শূন্যই বলা চলে।

জলপাইগুড়ি জেলায় ৮০টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে ৬৯টি দখল করেছে তৃণমূল, বিজেপি ৫টি এবং সিপিএম ১টি। ৫টি পঞ্চায়েত ত্রিশঙ্কু।

হাওড়া জেলায় ১৪টি পঞ্চায়েত সমিতিই দখল করেছে তৃণমূল।

ঝাড়গ্রাম জেলায় ৭৯টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে ৪৩টি দখল করেছে তৃণমূল, ২৫টি জিতেছে বিজেপি, ১টি নির্দল। ১১টি গ্রাম পঞ্চায়েত ত্রিশঙ্কু হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here