partha chatterjee
Samir mahat
সমীর মাহাত

ঝাড়গ্রাম: বিরোধীদের নয়, পঞ্চায়েতের ফল খারাপের জন্য নিজের দলকেই দুষলেন তৃণমূল সাধারণ সম্পাদক পার্থ চট্টোপাধ্যায়। “শিক্ষা” দিয়ে গেলেন আদাজল খেয়ে উঠেপড়ে লাগার।

ঝাড়গ্রামের ফরেস্ট বাংলোয় প্রায় দু’ঘণ্টা দলীয় সভার বক্তব্যে তৃণমূলের মহাসচিব তথা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় মূলত দলীয় কর্মীদের এক হাত নিলেল। ৩০ মে ঝাড়গ্রাম জেলা তৃণমূলের দলীয় পর্যলোচনা সভায় তিনি বলেন, তৃণমূল হারেনি, হারিয়ে দেওয়া হয়েছে, দলের একাংশের ক্ষোভ-বিক্ষোভের কারণেই এই ফল হয়েছে। একই সঙ্গে তিনি নিদান দেন, অনতিবিলম্বে ব্লকওয়াড়ি রিপোর্ট দিতে হবে। কয়েকটি অঞ্চলের সভাপতিদের নাম উল্লেখ করে তিনি বলেন, “নির্দল হিসেবে যাঁরা লড়াই করেছেন, তাঁদের এবং দলের মধ্যেই যাঁরা বিক্ষুব্ধ রয়েছেন তাঁদের পুর্ণাঙ্গ রিপোর্ট তৈরি করুন। দল তাঁদের প্রতি ব্যবস্থা নিবে। বিধায়ক উদ্যেশ্য বলেন, মিটিংয়ের নামে কোলকাতা ছোটা নয়, যে যার নিজের এলাকায় কাজ করুন”।

sadan

প্রসঙ্গত, এই সভার আগেই তৃণমূল-বিজেপির বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষে রাতারাতি অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে ঝাড়গ্রাম শহরের রঘুনাথপুর এলাকা। বোমা ছোড়াছুড়ি, কার্তুজ উদ্ধার সব মিলিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে পুলিশের রাত বারোটা পেরিয়ে যায়। এ দিন দুপুর পর্যন্ত এলাকায় পুলিশপ্রহরা ছিল। এ রকম পরিস্থিতির মধ্যেই মন্ত্রী সাধন পান্ডেকে সঙ্গে নিয়ে সভা করলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায় ।

রাজনৈতিক ওয়াকিবহাল মহলের মতে, সার্বিক পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখেই বিরোধী ও মাওবাদীদের কথা সন্তর্পণে দলীয় সভায় এড়িয়ে গিয়েছে শাসক শিবির। এ দিনের সভায় মন্ত্রী চূড়ামণি মাহাত কোনও বক্তব্য পেশ করেননি। পাশাপাশি, দলের পর্যবেক্ষক প্রদীপ বন্দোপাধ্যায় পার্থবাবুকে জানান, সাংসদের কাছে সহযোগিতা পেতে অনেকের অসুবিধা হচ্ছে। এ দিনের সভায় অঞ্চল-ব্লক সভাপতি, বিজয়ী সদস্যরা, বিধায়ক, মন্ত্রী সবাই উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here