আলিপুর কোর্টে পার্থ চট্টোপাধ্যায়। ছবি: রাজীব বসু

কলকাতা: সোমবার আদালতে পেশ করা হল পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে। শারীরিক অবস্থার কথা উল্লেখ করে জামিনের আবেদন জানান তাঁর আইনজীবী। আবারও খারিজ হল জামিনের আবেদন। আরও ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক।

এসএসসি গ্রুপ সি মামলা ও নবম-দশম শিক্ষক দুর্নীতি মামলায় পার্থ ছাড়া গ্রেফতার করা হয় শান্তিপ্রসাদ সিংহ, সুবীরেশ ভট্টাচার্য, কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায়, অশোক সাহা, প্রদীপ সিং ও প্রসন্ন রায়কে। এ দিন তাঁদেরকেও আদালতে হাজির করানো হলে ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক।

[আলিপুর কোর্টে পার্থ চট্টোপাধ্যায়। ছবি: রাজীব বসু]

শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির তদন্তে পার্থ গ্রেফতার হন ২৩ জুলাই। তার পর থেকে ১১৩ দিন ধরে জেলে রয়েছেন তিনি। একাধিক বার খারিজ হয়েছে তাঁর জামিনের আবেদন। এই সময়কালে, তাঁর কাছ থেকে উল্লেখযোগ্য কোনো তথ্য মিলেছে বলে জানা যায়নি। যা নিয়ে ক্ষোভপ্রকাশ করে পার্থ প্রশ্ন তুলেছেন, তদন্তের অজুহাতে আর কত দিন তাঁকে জেল হেফাজতে রেখে দেওয়া হবে?

যদিও সিবিআই বার বার আদালতে জানিয়েছে, তাঁকে আরও জেরার প্রয়োজন রয়েছে। এ দিন আদালতে সিবিআই-এর তরফে জানানো হয়, এই দুর্নীতির জাল অনেক দূর পর্যন্ত বিস্তৃত। কী ভাবে এই জাল বিস্তার হয়েছে, তারই তদন্ত চলছে।

সিবিআই-এর আইনজীবী বলেন, “আমরা বসে নেই। তদন্ত করে তথ্য প্রমাণ সংগ্রহ করার কাজ করছি”। বিচারক জানতে চান, “সেটা কতদিন ধরে চলছে”? সিবিআইয়ের আইনজীবী বলেন, “আমরা প্রতি শুনানিতে নতুন নতুন তথ্য প্রমাণ যা হাতে পাচ্ছি সে সব তুলে ধরেছি। আমরা আর্থিক দুর্নীতির দিক দেখছি না। কী ভাবে নিয়োগ দুর্নীতি হয়েছে, কারা কী ভাবে যুক্ত, সে দিকটারই তদন্ত করা হচ্ছে”।

এই নিয়ে দীর্ঘ সওয়াল জবাবের পর আদালত জানিয়ে দেয়, পার্থ, শান্তিপ্রসাদ, কল্যাণময়-সহ সাত জনকে জেলেই থাকতে হবে। আগামী ২৮ নভেম্বর ফের আদালতে তোলা হবে তাঁদের।

আরও পড়ুন: রাষ্ট্রপতিকে নিয়ে অখিল গিরির কুমন্তব্য, ক্ষমা চেয়ে নিলেন মমতা

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন