Connect with us

পশ্চিম বর্ধমান

ড্রপ আউট বা ফেল করারাও কিন্তু ফাটিয়ে রেজাল্ট করতে পারত

নিজস্ব প্রতিনিধি: যে মেয়েটা বা যে ছেলেটা এই সে দিন পড়াশোনা ছেড়ে দিল, ক্লাস ফাইভ সিক্স-সেভেন বা এইটে, ওদের অনেকের আজীবন একটা কষ্ট থেকে যাবে। কেন একটু সুযোগ পেলাম না পড়াশোনাটা করার!

সেই কবে থেকে এই নিয়মই চলে আসছে। কিন্তু সুযোগ আর শিক্ষিত শিক্ষক পেলে, ফেল করা ছেলেমেয়েদেরও প্রায় সবাই বলার মতো রেজাল্ট করতে পারে।

এই কথাগুলো নতুন নয়। আজকের নয়। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত, যাঁরা এগুলো বিশ্বাস করেন, বলেন, চর্চা করেন, তাঁরা ব্যতিক্রমী ক্ষেত্র ছাড়া বরাবরই মাইনরিটি বা সংখ্যালঘু। এমনই এক সংখ্যালঘুদের প্রক্রিয়া সম্প্রতি চলল এ রাজ্যে, খুব ছোট্ট আকারে। পশ্চিম বর্ধমানে পাণ্ডবেশ্বরের কাছাকাছি গৌরবাজার গ্রামে ‘আরশিনগর’ নামের এক আখড়ায়, শ্রুতি বিশ্বনাথের ওয়ার্কশপ বা কর্মশালায়।

শ্রুতি বিশ্বনাথ মহারাষ্ট্রের পুণে থেকে এসেছিলেন। মহারাষ্ট্রীয় লোকগান থেকে শুরু করে কবির-মীরা-সহ সহজ সাধকদের গান আর জীবন নিয়ে চর্চা করেন শ্রুতি। একই সঙ্গে ছোটোদের সঙ্গে সময় কাটান। ছোটোদের শেখান, ছোটোদের থেকে শেখেন।

শ্রুতির এই তিন দিনের ওয়ার্কশপে অংশ নিয়েছিলেন দক্ষিণবঙ্গের নানা জায়গা থেকে, নানান অর্থনৈতিক ও সামাজিক অবস্থান থেকে আসা জনা পনেরো ছাত্রছাত্রী।

গত ২৫ ডিসেম্বর থেকে ২৭ ডিসেম্বর ওয়ার্কশপটি হয়। রোজ সকাল ন’টায় শুরু হতো। চলত বারোটা পর্যন্ত। মাঝে একটা ছোটো টিফিন ব্রেক। ছাত্রছাত্রীদের সবাই বাংলাভাষী। অনেকেই ইংরেজি বলা বা বোঝা তো দূরে থাক, হিন্দিও জানে না। শ্রুতি আবার বাংলা বলতে পারেন না। বোঝেনও না তেমন। ছাত্রছাত্রীদের কেউ কেউ গান জানে, গান শেখে। আবার কেউ কেউ নয়। একজন দোভাষী সঙ্গে ছিলেন। অভিভাবকদের বা অন্যান্য বড়োদের ওয়ার্কশপে থাকতে দেওয়া হয়নি। তাঁদের ডাকা হয়েছিল তৃতীয় বা শেষ দিনের শেষ আধ ঘণ্টায়। সেখানে ছ’টা গান হয়েছিল। কোরাস। শ্রুতি আর ওঁর ছাত্রছাত্রীদের কোরাস। ছ’টা গানের মধ্যে দু’টো মহারাষ্ট্রীয় লোকগান, দু’টো কবির, একটা মীরা এবং একটা ইংরেজি লোকসঙ্গীত।

এই ওয়ার্কশপ ছিল সঙ্গীত ভিত্তিক। কিন্তু শুধু গান নয়, সবাই মিলে নিজেদের নানা রকম ভাবনাচিন্তাও শেয়ার করেছে। গ্রেটা থুর্নবার্গ, পরিবেশ, নদীনালা ইত্যাদি ইত্যাদি। ছাত্রছাত্রীরা যে যার নিজের গভীরতম ইচ্ছে বা বাসনা
(deepest desire) নিয়ে লিখেছে। শ্রুতির সঙ্গে কথা বলেছে তা নিয়ে। তার সঙ্গে চলেছে গান শোনা, গান শেখা, গান গাওয়া, গান বোঝা।

ওপরে যে ভিডিওটা দেওয়া হয়েছে, সেটা শেষ দিনের শেষ পর্ব, যেখানে অভিভাবকরা বা অন্যান্য বড়রা দর্শক-শ্রোতা হিসেবে অংশ নিয়েছিলেন। ছবি তোলা বা রেকর্ডিংয়ের অনুমতি ছিল।

সেখানে উপস্থিত কলকাতা থেকে যাওয়া এক সত্তরোর্ধ্ব বৃদ্ধা দেখেশুনে প্রশ্ন করেছিলেন— “এতগুলো অন্য ভাষার গান এই এত অল্প সময়ের মধ্যে কী করে শিখল এই বাচ্চারা?” তাঁর অভিজ্ঞতায়, চেনা দুনিয়ায় অবিশ্বাস্য লেগেছিল। বিস্মিত হয়েছিলেন অন্যান্যরাও। সত্যি ভাবার মতো প্রশ্ন। কী করে এত তাড়াতাড়ি ওরা শিখল! শিক্ষা নিয়ে তাত্ত্বিক ব্যাখ্যা বা অতীতের প্রায়োগিক অভিজ্ঞতার আলোচনা করার মতো জায়গা এখানে নেই। শুধু ছোটো করে বলা যেতে পারে— সুযোগ আর পরিবেশ পেলে, শিক্ষিত শিক্ষক পেলে, দেশ বা সমাজের সদিচ্ছা থাকলে, অনেক অনেক ড্রপ আউট ছাত্রছাত্রীও ফাটিয়ে রেজাল্ট করতে পারে।

[ আরও পড়ুন: সাম্প্রদায়িকতার তর্ক-বিতর্কে আঁটোসাঁটো দু’টি বই ]

রেজাল্ট মানে শুধু স্কুলের মার্কশিট না ধরলেই মঙ্গল। তবে ধরলেও এই কথাটা সত্যি প্রমাণিত হবে।

ছবি: প্রশান্ত ঘোষ এবং রঞ্জন দত্ত

পশ্চিম বর্ধমান

কোয়ারান্টাইন সেন্টারকে কেন্দ্র করে পুলিশ-জনতা খণ্ডযুদ্ধ, গুরুতর আহত ওসি

আসানসোল: কোয়ারান্টাইন সেন্টারকে কেন্দ্র করে খণ্ডযুদ্ধ বেঁধে গেল পুলিশ আর জনতার মধ্যে। জনতার রোষের মুখে পড়ে গুরুতর আহত হয়েছেন ওসি। মঙ্গলবার ঘটনাটি ঘটেছে আসানসোলের (Asansol) জামুরিয়া থানার চারুলিয়া এলাকায়।

কিছু দিন আগেই ওই এলাকায় একটি কোয়ারান্টাইন সেন্টার খোলা হয়। সেই সেন্টারটিকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার দুপুরে পুলিশ ও গ্রামবাসীর মধ্যে খণ্ডযুদ্ধ শুরু হয়ে যায়।

উল্লেখ্য, আসানসোলের স্থানীয় প্রশাসন, ওই এলাকায় অবস্থিত যুব আবাসকে কোয়ারান্টাইন সেন্টার হিসেবে তৈরি করার পরিকল্পনা করে। মঙ্গলবার সকালে ১৪ জনকে ওই কেন্দ্রে রাখার জন্য নিয়ে আসেন পুলিশকর্মীরা। এর জেরে তীব্র আপত্তি জানায় গ্রামবাসীরা।

এই কেন্দ্র থেকে করোনাভাইরাস (Coronavirus) ছড়িয়ে পুরো গ্রামে ছড়িয়ে পড়বে বলে দাবি করতে থাকেন গ্রামবাসীরা। পুলিশকর্মীরা বোঝাতে গেলে প্রথমে বচসা, ও তার পরে উত্তেজিত হয়ে জনতা ইট, রড, পাথর তো বটেই, গুলি-বোমা ছোড়ে বলেও অভিযোগ। এতেই আহত হন জামুরিয়া (Jamuria) থানার ওসি সুব্রত ঘোষ। শুধু তা-ই নয়, পুলিশের গাড়িও ভাঙচুর চালায় গ্রামের বাসিন্দারা। অশান্তির আঁচ রয়েছে এখনও। ওই এলাকায় প্রচুর পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন ‘স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে’ দেশবাসীকে আশ্বাস দিলেন অমিত শাহ

ভয়ংকর পরিস্থিতির খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছোন আসানসোল পুরনিগমের মেয়র পারিষদ পূর্ণশশী রায়। ঘটনাস্থলে জখম পুলিশকর্মীদের উদ্ধার করে চিকিত্‍সার ব্যবস্থা করেন তিনি। ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি বলেই জানা গিয়েছে।

Continue Reading

পশ্চিম বর্ধমান

রাজ্যের একাধিক জায়গায় ভূমিকম্প অনুভূত, লকডাউনেও বাড়ির বাইরে আতঙ্কিত মানুষজন

খবর অনলাইনডেস্ক: করোনাভাইরাসের (Coronavirus) আতঙ্কের মধ্যেই হানা দিল ভূমিকম্প (Earthquake)। মানুষের মধ্যে আতঙ্ক কয়েক গুণ বাড়িয়ে দিল।

বুধবার সকাল সাড়ে এগারোটার একটু আগে রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চলে বড়ো এলাকা জুড়ে এই কম্পন অনুভূত হয়। বাঁকুড়া (Bankura), পুরুলিয়ার (Purulia) একাধিক জায়গার পাশাপাশি ভূমিকম্পে দুলে ওঠে দুর্গাপুর (Durgapur), আসানসোলও (Asansol)।

লকডাউনের (Lockdown) জেরে সাধারণ মানুষ এখন ঘরবন্দি। কিন্তু এরই মধ্যে ভূমিকম্প হওয়ায় বাধ্য হয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসতে হয় সবাইকে। কিছুক্ষণ পর আতঙ্ক কাটিয়ে আবার ধীরে ধীরে বাড়িতে ঢুকতে শুরু করে মানুষজন।

ন্যাশনাল সেন্টার ফর সিসমোলজি (National Centre for Siesmology) জানাচ্ছে, এই ভূমিকম্পের কেন্দ্রস্থল ছিল বাঁকুড়ার শালতোড়া (Shaltora)। রিখটার স্কেলে কম্পনের মাত্রা ছিল ৪.১। ভূপৃষ্ঠ থেকে ১৫ কিমি নীচে অনুভূত হয়েছে এই কম্পন। অর্থাৎ এটিকে মৃদু কম্পনই বলা চলে।

আরও পড়ুন দাউ দাউ করে জ্বলছে শুশুনিয়া পাহাড়

উল্লেখ্য, গত এক বছরে বাঁকুড়া, পুরুলিয়ায় একাধিক বার মৃদু ভূমিকম্প হয়েছে। এমনিতে ভূমিকম্পপ্রবণ অঞ্চল হিসেবে পরিচিত নয় রাঢ়বঙ্গ। কিন্তু গত এক বছরে এই অঞ্চলের কম্পনের প্রবণতা বেড়ে যাওয়ায় কিছুটা চিন্তিত বিশেষজ্ঞরা।

Continue Reading

পশ্চিম বর্ধমান

৭ দিন ধরে জ্বর কমছিল না, করোনা-আতঙ্কে আত্মঘাতী দুর্গাপুরের ব্যক্তি

Dead Body

দুর্গাপুর: সাত দিন ধরে জ্বর কমছিল না। ফলে করোনাভাইরাস সংক্রামিত হয়েছেন ধরে নিয়ে হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন পশ্চিম বর্ধমানের দুর্গাপুরের এক ব্যক্তি। পরিবার সূত্রে খবর, সেই হতাশা কাটিয়ে উঠতে না পেরে শেষমেশ আত্মঘাতী হয়েছেন তিনি।

ঘটনায় প্রকাশ, দুর্গাপুরের অন্ডালের উখড়ার মাঝপাড়ার ওই বাসিন্দা গত সপ্তাহখানেক ধরেই জ্বরে ভুগছিলেন। কিছুতেই তাঁর জ্বর কমছিল না। কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন ধরে নিয়ে নিজেকে পরিবারের থেকে সরিয়ে নেন। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, একটি ক্লাবঘরে থাকছিলেন তিনি।

গতকাল রাতে নিজের বাড়ি ফিরে আসেন ওই ব্যক্তি। এর পর সেখানেই গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মঘাতী হন ওই ব্যক্তি। যদিও তাঁর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জ্বরে আক্রান্ত হওয়া, না কি অন্য কিছু, সে সম্পর্কে এখনও কিছু জানা যায়নি।

তবে পরিবারের দাবি,বেশ কয়েকদিন ধরে টানা জ্বরে ভুগতে থাকায় তিনি মনমরা হয়ে পড়েছিলেন। স্বাভাবিক ভাবেই হতাশাগ্রস্ত হয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলেই অনুমান করা হচ্ছে।

এমনিতে রাজ্যে এখনও পর্যন্ত করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে ১০ জনের মধ্যে। সারা দেশে সংখ্যাটি সাড়ে ছ’শোরা কাছাকাছি। সংক্রমণ রুখতে সারা দেশে লকডাউন চলছে। অন্য দিকে সংক্রামিতদের চিকিৎসা পরিষেবা পৌঁছে দিতে কেন্দ্র-রাজ্য উভয়েই একাধিক পদক্ষেপ নিয়েছে।

আরও পড়ুন: এটিএমে টাকা তোলার সময় করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে এসবিআইয়ের ৭টি টিপস

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিয়মিত সাংবাদিক বৈঠক করে রাজ্যের মানুষকে আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন। তিনি একাধিক বার সাধারণ মানুষকে আশ্বস্থ করে বলেছেন, জ্বর মানেই করোনা নয়। জ্বর হলে চিকিৎসক অথবা হাসপাতালে যান।

Continue Reading
Advertisement
বিনোদন6 hours ago

চলে গেলেন ‘শোলে’-র ‘সুরমা ভোপালি’ জগদীপ

দেশ8 hours ago

জম্মু-কাশ্মীরে বাবা এবং ভাই-সহ বিজেপি নেতাকে গুলি করে মারল জঙ্গিরা

ঝাড়গ্রাম9 hours ago

টানাপোড়েনের অবসান ঘটিয়ে, সক্রিয় রাজনীতিতে লালগড় আন্দোলনের মুখ ছত্রধর মাহাত

দেশ9 hours ago

৮৯টি অ্যাপ ‘নিষিদ্ধ’ করল ভারতীয় সেনা

বিনোদন10 hours ago

সুশান্ত সিং রাজপুতের আত্মহত্যাকাণ্ডে সলমন খান, করন জোহরের বিরুদ্ধে মামলা খারিজ আদালতে

LPG
দেশ11 hours ago

উজ্জ্বলা যোজনায় বিনামূল্যের এলপিজি সিলিন্ডার পাওয়ার মেয়াদ বাড়ল আরও তিন মাস

রাজ্য11 hours ago

রেকর্ড বৃদ্ধি, রাজ্যে একদিনে আক্রান্ত প্রায় ১০০০

কলকাতা11 hours ago

অনলাইনে নয়, পড়ুয়াদের জন্য এই বিকল্প পথই বেছে নিয়েছে গড়িয়া স্টেশনের একটি স্কুল

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 days ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

কেনাকাটা3 days ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

কেনাকাটা4 days ago

হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

অনলাইনে খুচরো বিক্রেতা অ্যামাজন ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে ঢেলে সাজিয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সম্ভার।

DIY DIY
কেনাকাটা1 week ago

সময় কাটছে না? ঘরে বসে এই সমস্ত সামগ্রী দিয়ে করুন ডিআইওয়াই আইটেম

খবর অনলাইন ডেস্ক :  এক ঘেয়ে সময় কাটছে না? ঘরে বসে করতে পারেন ডিআইওয়াই অর্থাৎ ডু ইট ইওরসেলফ। বাড়িতে পড়ে...

নজরে