আলিপুরদুয়ার: বাংলা-অসম আন্তঃরাজ্য বাইক চোরাচালানকারী একটি দলের সন্ধান পেল পুলিশ। আলিপুরদুয়ার থেকে গ্রেফতার করা হল এই দলের পান্ডা-সহ ৮ জনকে। পুলিশের সন্দেহ, এই চোরাকারবারিদের সঙ্গে জঙ্গি সংগঠন আলফার যোগাযোগ থাকতে পারে। এমনকী তিনসুকিয়ায় নৃশংস গণহত্যার পিছনেও এই বাইক ব্যবহার করা হতে পারে বলে ধারণা পুলিশের।

সোমবার, আলিপুরদুয়ারের বিভিন্ন এলাকায় তল্লাশি চালিয়ে এই ৮ জনকে গ্রেফতার করে আলিপুরদুয়ার জেলা পুলিশ। চক্রের পান্ডা প্রসেনজিৎ দাস ও মিঠুন বর্মনকে প্রথমে গ্রেফতার করা হয়। তাদের বাড়ি অসম-বাংলা সীমান্তের কুমারগ্রাম ব্লকে। এই দু’জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে বাকি ছয় দুষ্কৃতীর হদিশ পায় পুলিশ।

ধৃতদের জেরা করে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে উদ্ধার হয়েছে পাঁচটি চোরাই বাইক। অসমে সন্ধান মিলেছে চুরি হওয়া একটি পিকআপ ভ্যানেরও। বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজে ব্যবহার করা হয় এই চোরাই বাইক। পুলিশের সন্দেহ, ১ নভেম্বর অসমের তিনসুকিয়ায় ৫ জনকে গুলি করে খুনের ঘটনায় এই বাইকগুলিই ব্যবহার করা হয়েছিল।

আরও পড়ুন পুলিশি তল্লাশির মুখে আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন তেলঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে দাঁড়ানো কংগ্রেস প্রার্থী

ধৃতদের জেরা করে জানা গেছে, এই সব বাইক তারা অসমে পাচার করে। আর তা নিয়েই অপহরণ, বিস্ফোরণের মতো সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ করে দুষ্কৃতীরা।

উল্লেখ্য, শনিবার রাতে কোচবিহার জেলা পুলিশের সঙ্গে যৌথ অভিযান চালিয়ে কোচবিহার থেকে আরও ছ’জনকে গ্রেফতার করা হয়। ধৃত ফণি সরকার, রাজা সরকার, সনৎ মজুমদার, অমিয় সরকার, কৃত্তিবাস সরকার, সঞ্জয় দাস। অসমের কোকড়াঝাড় জেলায়ও অনেক চোরাই বাইক ও পিকআপ ভ্যানের সন্ধান পাওয়া গেছে। চক্রের বাকিদের হদিশ পেতে আলিপুরদুয়ার থেকে পুলিশের একটি দল অসমের উদ্দেশে রওনা দিয়েছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here