বাবা আখের রস বিক্রেতা, মা বিড়ি বাঁধেন, সেই পরিতোষ এ বার মাধ্যমিকে জয়নগরের প্রথম

0

উজ্জল বন্দ্যোপাধ্যায়, জয়নগর: এক চিলতে ভাঙা দু’কামরার ঘরে বাবা ও মায়ের সঙ্গে থাকা ১৫ বছরের পরিতোষ পাইকের সাফল্যে উচ্ছ্বসিত জেলার শিক্ষামহল। এ বছর মাধ্যমিক পরীক্ষায় জয়নগর থানা এলাকার মধ্যে সব থেকে বেশি নম্বর পেয়ে পাশ করেছে সে।

পরিতোষের প্রাপ্ত নম্বর ৬৬৬। যার মধ্যে বাংলাতে ৯২, ইংরেজিতে -৯১, ইতিহাসে -৯৭, ভুগোলে -৯২, অংকে -৯৯, জীবন বিজ্ঞানে -৯৬ ও ভৌত বিজ্ঞানে-৯৯ পেয়েছে। জয়নগর-মজিলপুর রায়পাড়ার এক ভাড়াবাড়িতে বসে পরিতোষ বলে, গত ৫ বছর ধরে ওরা এই ভাড়া বাড়িতেই বাস করে। ওদের আসল বাড়ি শ্রীপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের পাইক পাড়াতে। ওখানে দাদু ও ঠাকুরমা থাকে। বাবা পঙ্কজ পাইক রাস্তায় রাস্তায় আখের রস বিক্রি করেন এবং মা রীনা পাইক বিড়ি বাঁধেন। খুব কষ্টে তাদের সংসার চলে।

ছোট থেকেই গরিবের ঘরে জন্ম বলে আজও কোনো প্রাইভেট টিউশনে পড়তেই পারেনি সে। তবে স্কুলের সব শিক্ষকেরা তাকে নিয়মিত পড়াত। সে গরিব বলে স্কুলের ভর্তি ফি অবধি মুকুব করে দিয়েছিলেন শিক্ষকেরা। প্রতি বছর সে জয়নগর জে এম টেনিং স্কুলে প্রথম হয়। এ বারে ও সে ওখান থেকেই মাধ্যমিক পরীক্ষায় পাশ করে।

ভবিষ্যতে ডাক্তার হয়ে গরিবের সেবা করতে চায় পরিতোষ। কিন্তু আর্থিক অনটনে তার সে ইচ্ছে পূরণ হবে তো?সরকারি সহায়তা পেলে এই গরিব ছাত্রের স্বপ্ন হয়তো পূরণ হতে পারে, বলছেন পাড়াপ্রতিবেশীরা। আপাতত একরাশ আশা নিয়ে এই স্কুলের একাদশ শ্রেণিতে বিজ্ঞান নিয়ে পড়তে চলেছে সে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here