কলকাতা: রবিবার দুপুরে কলকাতায় যে বৃষ্টিটা হয়েছিল, তাতে কিন্তু গরমকালের কালবৈশাখীর বৈশিষ্ট্য কম ছিল। বর্ষার বৈশিষ্ট্যই বেশি মনে হচ্ছিল সেই বৃষ্টিতে। কারণ স্থানীয় ভাবে তৈরি হওয়া বজ্রগর্ভ মেঘ থেকে খুব জোরে বৃষ্টি নামলেও ঝড় একদমই হয়নি। আর সেটা দেখেই একশ্রেণীর আবহাওয়া বিশেষজ্ঞ জানাচ্ছেন দক্ষিণবঙ্গে প্রাক বর্ষার পরিস্থিতি ধীরে ধীরে তৈরি হচ্ছে।

শনিবার সন্ধ্যার পর রবিবার দুপুরের বৃষ্টির মধ্যেও কোথাওই কালবৈশাখীর গন্ধ খুঁজে পাওয়া যায়নি। কিছুটা ঝোড়ো হাওয়া ছিল ঠিকই, কিন্তু তা তাৎপর্যপূর্ণ নয়। বরং দু’দিনই অল্প সময়ের মধ্যে যে তীব্র বৃষ্টিটা হয়েছিল সেটা কিন্তু গরমের বৈশিষ্ট্য নয়। আর সেই বৃষ্টির মেঘ কিন্তু কলকাতার ওপরেই তৈরি হয়েছিল।

সাধারণত কালবৈশাখীর মেঘ তৈরি হয় ঝাড়খণ্ডের ছোটোনাগপুর মালভূমি অথবা পুরুলিয়ার ওপরে। ধীরে ধীরে সেই মেঘ কলকাতার দিকে এগিয়ে আসে। সেই মেঘ থেকেই শুরু হয় কালবৈশাখী। কিন্তু গত দু’দিনই কলকাতায় স্থানীয় ভাবে বজ্রগর্ভ মেঘ তৈরি হয়ে গিয়েছিল। কলকাতার কয়েকদিনের তীব্র গরম এবং জলীয় বাষ্পের সংমিশ্রণের ফলেই এই মেঘ তৈরি হয়। সেই থেকেই নামে বৃষ্টি।

এমন বৃষ্টি কিন্তু আগামী দিনেও সম্ভাবনা আছে। প্রায় রোজই দুপুরের পর অথবা সন্ধ্যার দিকে ঝড়বৃষ্টি হতে পারে কলকাতা ও তার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে। যদিও গরম এবং আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি থেকে এখনই সে ভাবে মুক্তি পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।

আরও পড়তে পারেন:

বিশেষ পরিবর্তন নেই, একই জায়গায় ঘোরাঘুরি করছে করোনা সংক্রমণ

অনীতের দলের সঙ্গে জোটের সম্ভাবনা জিইয়ে রেখে পাহাড়ে দশ আসনে প্রার্থী দিল তৃণমূল

অনশনের পঞ্চম দিনেই গুরুতর অসুস্থ বিমল গুরুং, ভরতি করানো হল হাসপাতালে

সময়ের আগেই বর্ষা কেরলে, ঘোষণা করল মৌসম ভবন

কলকাতায় আরও এক উঠতি মডেলের রহস্যমৃত্যু, তীব্র চাঞ্চল্য

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন