কাটোয়া: পূর্ব বর্ধমান জেলায় উদ্ধার হেরোইন তৈরির কারখানা। সূত্র মারফত খবর পেয়ে শনিবার কাটোয়ার রাজুয়া এলাকায় এক প্রাক্তন নৌসেনা কর্মীর বাড়িতে তল্লাশি অভিযান চালায় স্পেশাল টাস্ক ফোর্স (STF)। সেখান থেকেই উদ্ধার হয় বিপুল পরিমাণ হেরোইন। গ্রেফতার করা হয়েছে প্রাক্তন ওই নৌসেনা কর্মী গোলাম মুর্শেদ-সহ চার জন।

ঘটনায় প্রকাশ, প্রত্যন্ত গ্রাম রাজুয়ায় প্রাসাদোপম বাড়ি বানিয়েছিলেন গোলাম। সেখানে দীর্ঘদিন ধরেই কাটোয়া রাজুয়ায় চলছিল হেরোইন তৈরির কারখানা। জানা গিয়েছে, অবসরপ্রাপ্ত নৌসেনা কর্মীর বাড়িতে হেরোইন তৈরির সামগ্রীর হদিশ। প্রচুর পরিমাণে মরফিন ও রাসায়নিক উদ্ধার। উদ্ধার হওয়া হেরোইন ও তৈরির সরঞ্জামের বাজার মূল্য প্রায় কয়েক কোটি টাকা।

স্থানীয় সূত্রে খবর, নিজেকে প্রাক্তন ভারতীয় নৌ-বাহিনীর আধিকারিক বলে পরিচয় দিত মুর্শেদ। কয়েক লক্ষ টাকার বিনিময়ে অন্য জেলা থেকে লোকজন এসে হেরোইন তৈরি করত। ওই বাড়িতে মণিপুর-সহ পূর্ব ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে থেকে হেরোইন তৈরির উপকরণ আসত।

গত শুক্রবার রাতে এসটিএফ এবং কাটোয়া থানার পুলিশ যৌথ অভিযান চালায়। এর পরই হয় পর্দাফাঁস। দেখা যায়, ওই বাড়িতে হেরোইন তৈরি করার যাবতীয় উপকরণ মজুদ রয়েছে। তদন্তকারীরা অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে জানতে চাইছে, ল্যাবরেটরিতে তৈরি করা হেরোইন কোথায় এবং কার কাছে বিক্রি করা হতো।

পুলিশের দাবি, তাদের কাছে খবর ছিল মুর্দেশ হেরোইন কারবারের সঙ্গে যুক্ত। কিন্তু বাড়ির ভিতরে এ ভাবে ল্যাব দেখে তাজ্জব তারাও। এমনকী, গ্রামের বাসিন্দারা তা ঘুণাক্ষরেও টের পাননি।

আরও পড়তে পারেন: 

একে একে সরে দাঁড়িয়েছে একাধিক বিরোধী দল, যশবন্ত সিনহাকে ভোট দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল আপ

বাদল অধিবেশনের আগে সর্বদলীয় বৈঠক বয়কট তৃণমূলের, স্পিকারকে চিঠি

গুজরাত দাঙ্গার পর বিজেপি সরকারকে ফেলতে কংগ্রেসের কাছ থেকে ৩০ লক্ষ টাকা পেয়েছিলেন তিস্তা! দাবি তদন্তকারীদের

বুস্টার ডোজ নেওয়ার কথা ভাবছেন? জানুন কোথায়, কী ভাবে পাবেন

আয়কর পোর্টাল প্রোফাইলের পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন, জানুন কী করবেন

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন