প্রতিনিধি, পূর্ব মেদিনীপুর: কথায় বলে, ‘মাছে-ভাতে বাঙালি’। তার উপর ইলিশ! বাঙালির কাছে সুখবর, সামনেই জামাইষষ্ঠী আর তার আগেই দিঘার বাজারে আসতে শুর করেছে ইলিশ।

তবে এই ইলিশ আসছে দিঘার পাশের রাজ্য ওড়িশার তালসারী থেকে। ইতিমধ্যেই কয়েক টন ইলিশের দেখা মিলল দিঘা বর্ডার ও দিঘা নেহেরু মার্কেট এলাকায়।

Loading videos...

অনেকেই আবার জামাইয়ের আতিথিয়তার জন্য ইলিশ মাছ কিনে রেখে দিতে চাইছেন এখন থেকেই। এক দিকে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাব, অন্যদিকে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ। তারই মাঝে পড়ে কার্যত অসহায় অবস্থায় পড়েছিলেন মৎস্যজীবীরা। এখন তাঁদের, মুখে হাসি ফুটতে শুর করেছে।

তাঁদের কথায়, “দীর্ঘ লকডাউন তার উপর ইয়াসের প্রভাবে আমাদের জীবন প্রায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছিল। তার মাঝখানে কিছুটা যেন স্বস্তির ছায়া”। দীর্ঘ দিন সমুদ্রের মৎস্য শিকার নিষিদ্ধ থাকায় মাছ ধরা বন্ধ ছিল। সেই সময় কাটিয়ে মাছ ধরতে নেমে পড়েন মৎস্যজীবীরা। আর তাতেই দেখা মিলছে জলের এই রুপোলি শস্যের।

মৎস্যজীবীদের কথায়, এ বারের জামাইষষ্ঠীতে প্রচুর পরিমাণে ইলিশ পাওয়া যাবে। যা বাঙালির রসনা তৃপ্ত করতে পারবে। পিন্টু বর নামে এক মৎস্যজীবী জানান, “আজ থেকেই একেকটি ট্রলারে এক টন মাছ উঠতে শুর করেছে।

যে সব ইলিশের ওজন এক কিলো থেকে দেড় কিলো, সেগুলির দাম ৮০০ থেকে ১,০০০ টাকা। আবার যেগুলি ৫০০-৬০০ গ্রাম ওজনের, সেগুলির দাম ৫০০-৬০০ টাকা”। এই মাছের দাম দু’-এক দিনের মধ্যেই কমতে পারে বলে তিনি জানান।

তা ছাড়া এই মাছ এখন এলাকায় বিক্রি হচ্ছে। এখন পর্যটকের সংখ্যা কম, লকডাউন উঠে গেলেই কলকাতা-সহ বিভিন্ন জায়গায় তা পাঠানো হবে।

আরও পড়তে পারেন: ইয়াস বিধ্বস্ত সুন্দরবনে আর্তের সেবায় বেহালার পরুই অগ্রদূত সংঘের সদস্যরা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.