cid

কলকাতা: পুরুলিয়ায় বিজেপি কর্মী ত্রিলোচন মাহাতোর রহস্যজনক মৃত্যু নিয়ে সিআইডি তদন্তে উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য। রাজ্য গোয়েন্দা সূত্রে খবর, মৃত্যুর আগে ত্রিলোচনের মোবাইল টাওয়ার লোকেশন থেকে যে তথ্য উঠে এসেছে, তার সঙ্গে মিল খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না তাঁর দাদার দেওয়া বয়ানের।

পঞ্চায়েত ভোটের পরে পুরুলিয়ায় জোড়া মৃত্যু রহস্য নিয়ে সিআইডি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপির দাবি, “তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা খুন করেছে ত্রিলোচনকে”। তৃণমূলের দাবি, গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে খুন হয়ে থাকতে পারেন ত্রিলোচন। অন্য দিকে জেলা পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে উঠে এসেছে আত্মহত্যার তত্ত্ব। যে কারণে ইতিমধ্যেই বিজেপির তরফে সিবিআই তদন্তের আর্জি নিয়ে অনির্দিষ্টকালীন ধরনা-অবস্থান চলছে। এরই মাঝে সিআইডির তথ্য যথেষ্ট চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করল।

সিআইডি সূত্রে জানা গিয়েছে, ঘটনার দিন রাত সাড়ে আটটা নাগাদ ত্রিলোচন ফোন করেছিলেন দাদা শিবনাথ মাহাতোকে। গোয়েন্দারা মোবাইল টাওয়ার লোকেশন থেকে জেনেছেন, ত্রিলোচন ওই সময় দাদার সঙ্গে প্রায় আট মিনিট টানা কথা বলেন।

অথচ, শিবনাথ গোয়েন্দাদের জানান, ভাই তাঁকে ফোন করেছিলেন, এ কথা ঠিক। কিন্তু দু’জনের মধ্যে সে সময় এক মিনিটের বেশি কথা হয়নি। ত্রিলোচন শুধুমাত্র তাঁকে বলেছিলেন, যে কারা তাঁকে জোর করে বাইকে চাপিয়ে জঙ্গলের দিকে নিয়ে যাচ্ছে।

শিবনাথের এই বক্তব্যের সঙ্গেই প্রবল ফারাক দেখা যাচ্ছে মোবাইল টাওয়ার লোকেশনের। প্রথমত, টাওয়ার লোকেশন যখন বলছে ত্রিলোচন আট মিনিট কথা বলেছিলেন, তখন শিবনাথ বলছেন মাত্র এক মিনিট কথা হয়েছিল। দ্বিতীয়ত, শিবনাথের দাবি, ভাই তাঁকে বলেছিলেন, কারা তাঁকে বাইকে করে জঙ্গলের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। অথচ, মোবাইলের টাওয়ার লোকেশন বলছে গ্রামের আশেপাশেই মৃত্যুর আগে ছিলেন ত্রিলোচন।

সিআইডি সূত্রে খবর, কেউ হয়তো শিবনাথকে ভয় দেখিয়ে মিথ্যা কথা বলাতে পারেন। কারণ, এক মিনিট কথা বলার পর যদি ভাইয়ের মোবাইল ‘দুষ্কৃতীরা’ ছিনিয়ে নিয়ে থাকেন, তা হলেও তিনি সেখানকার কথোপথন শুনতে পেতেন। কারণ, মোবাইল টাওয়ার লোকেশন বলছে, শিবনাথ লাইনেই ছিলেন!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here