mamata-and-rajnath

কলকাতা: সীমান্ত নিরাপত্তা নিয়ে নবান্নে আয়োজিত বৈঠককে ফলপ্রসূ বলে ব্যাখ্যা করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। আজ তিনটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে নিয়ে অনুষ্ঠিত এই বৈঠক থেকে তিনি সীমান্ত সুরক্ষায় কেন্দ্র-রাজ্যের যৌথ ভূমিকার কথা স্পষ্ট ভাবে ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, সীমান্তে চোরাচালান, অনুপ্রবেশের মতো ভয়ঙ্কর বিষয়গুলি দেশের সুরক্ষাকে ব্যাহত করছে। এর জন্য প্রয়োজন যৌথ ভাবে এর মোকাবিলা করা।

প্রতিবেশী রাষ্ট্র বাংলাদেশ থেকে অনুপ্রবেশ ক্রমাগত আশঙ্কা সৃষ্টি করছে। বর্তমানে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশও দেশের সামনে একটা জ্বলন্ত ইস্যু। এই অনুপ্রবেশ নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। তাছাড়া বাংলাদেশ হয়ে জঙ্গি অনুপ্রবেশের বিষয়টিও কেন্দ্রের নজরে রয়েছে। অনুপ্রবেশকারীরা যাতায়াতের সহজ পথ হিসাবে বাংলা, ত্রিপুরা বা অসমকে ব্যবহার করছে। এর মোকাবিলা করতে কেন্দ্রীয় ও সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারগুলির নিয়ন্ত্রিত এজেন্সিগুলিকে সুষমভাবে কাজ করার পরামর্শ দেন রাজনাথ।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পাশে নিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রতিবেশী বাংলাদেশের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক ভাল। সে দিকে নজর রেখেই অনুপ্রবেশ রোধ এবং চোরাচালান বন্ধের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। সীমান্তবর্তী এলাকাগুলিতে নজরদারি আরও বাড়াতে হবে।‘

সীমান্তবর্তী এলাকাগুলিতে যে উন্নয়নের কাজ ঠিক মতো পৌঁছনো যাচ্ছে না, তা নিয়ে একটা আক্ষেপ রয়েই গিয়েছে। সবার কাছে সমান ভাবে উন্নয়ন পৌঁছে দেওয়া হলে অনুপ্রবেশ রুখতে তারাও যে সর্বতো ভাবে সহযোগিতা করবে, সে বিষয়ে নিশ্চিত রাজনাথ মুখ্যমন্ত্রীদের নির্দেশ দেন, ওই এলাকাগুলির উন্নয়নে বাড়তি গুরুত্ব দিতে হবে।

সীমান্ত সুরক্ষার পাশাপাশি মন্ত্রী এদিন সন্ত্রাসবাদের প্রসঙ্গটিতেও আলোকপাত করেন।

অবশ্য মমতার দাবি, গ্রামোন্নয়নের বিভিন্ন প্রকল্পগুলিকে যথাযথ ভাবে রূপায়ণ করা যাচ্ছে না পর্যাপ্ত অর্থের অভাবে। কেন্দ্র যদি এই দিকটির গুরুত্ব বুঝে ব্যবস্থা নেয় তা হলে কোনও প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হবে না।

ছবি রাজীব বসু

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here