অভি‌যান চালিয়ে ২০০ কোটি টাকার সাপের বিষ উদ্ধার করল বন দফতর

0

টানা ৪৮ ঘণ্টা অভি‌যান চলিয়ে ৫টি জারে ২০০ কোটি টাকার সাপের বিষ উদ্ধার করল বন দফতর। জলপাইগুড়ির বৈকুণ্ঠপুর বনবিভাগের বেলাকোবা রেঞ্জের রেঞ্জ অফিসার সঞ্জয় দত্তের নেতৃত্বে এই অভি‌যান চালান ৮ জন বনকর্মী।

সঞ্জয় দত্ত জানিয়েছেন দু‍‍মাস ধরে এই চক্রটির হদিশ করার চেষ্টা করছিলেন তিনিসম্প্রতি তার কাছে সূত্র মারফত খবর আসে কলকাতা থেকে চক্রের চারজন শিলিগুড়িতে ঘাটি গেড়েছেখবরটি নিশ্চিত হবার পর তিনি ফাঁদ পাতার পরিকল্পনা করেন। এই কাজের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে তৈরি করেন “স্পেশাল অপারেশন গ্রুপ”বৃহস্পতিবার থেকে ওই চারজনের ওপর নজরাদারি শুরু করে অপারেশন গ্রুপের বন কর্মীরাসূত্র মারফত তাদের কাছে খবর আসে ৩১নং জাতীয় সড়ক হয়ে ডুয়ার্সে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছে দলটিসেই মতো বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে জলপাইগুড়ির ফুলবাড়ি সংলগ্ন ৩১ নং জাতীয় সড়ক থেকে একটি বোলেরো গাড়ি আটক করা হয়তাতে তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার হয় ৫ টি এয়ারটাইট জারে ভর্তি সাপের বিষযেগুলিকে বিশেষ পদ্ধতির মাধ্যমে শুকিয়ে  পাউডার ও দানায় পরিত করা হয়েছেগ্রেফতার করা হয় গাড়ির চালক সহ ৪ জনকেএদের কাছ থেকে পাওয়া গিয়েছে একটি পিস্তল ও ৪ টি তাজা কার্তুজ। রাতভর ধৃতদের জেরা করে উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্যধৃতদের দাবি অনু্যায়ী বাংলাদেশ থেকে পাচার হয়ে জারগুলি কলকাতায় তাদের হাতে আসে। সেখান থেকে শিলিগুড়ি হয়ে ভায়া নেপাল থেকে চিনে পাচার করা হত বিষ ভর্তি জারগুলি চিনে এইসব জিনিস দিয়ে নানা ধরনের ওষুধ তৈরি হয়দুষ্প্রাপ্য হওয়া সেখানকার চোরাবাজারে চড়া দামে বিকোয় এই ধরনের সামগ্রী জারগুলি গায়ে ফ্রান্সের একটি ল্যাবরেটরির লেবেল লাগানো রয়েছে। বনাধিকারিকদের সন্দেহ ফ্রান্সের সেই ল্যাবরেটরি থেকে কোন ভাবে চুরি হয়ে বাংলাদেশে পৌছয় জারগুলিগতবছর ২৬ জুন এ রকমই তিনটি জার ধরা পড়েছিলগ্রেফতার করা হয়েছিল ৩জনকে এই চক্রটির সঙ্গে তাদের যোগাযোগ রয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখছে বনদফতর ধৃতদের মধ্যে সুজয় কুমার দাস ও বিপুল সরকারের এর বাড়ি দক্ষিণ দিনাজপুরে, পিন্টু ব্যানার্জির বাড়ি বালুরঘাটে,অমল নুনিয়া মালদার বাসিন্দা।এদের জেরা করে আরাও জানা গিয়েছে, ৩০ জন সদস্য মিলে তাদের পাচার সিন্ডিকেট। এর মধ্যে কয়েকজন শিক্ষক,সরকারি কর্মাচারীও জড়িত বলে সূত্রের খবর কিন্তু তদন্তের স্বার্থে এই ব্যাপারে কোন মন্তব্য করতে চাননি বনাধিকারিক সঞ্জয় দত্ত 

বনদফতরের প্রাথমিক ধারনা অনুযায়ী ১টি জারে কিং কোবরা জাতীয় সাপের বিষ রয়েছেবাকি জারগুলিতেও অন্যান্য প্রজাতির সাপের বিষ রয়েছে। বৈকুণ্ঠপুর বনবিভাগ এর বিভাগীয় বনাধিকারিক পিআর প্রধান জানিয়েছেন, উদ্ধার হওয়া বিষ ভর্তি জারগুলি মুম্বই বা হায়দরাবাদে পাঠানো হবে পরীক্ষার জন্য। তাতেই পরিষ্কার হবে কি ধরনের সাপের বিষ রয়েছে ওই জারগুলিতে। আজ তাদের আদালতে তোলা হয়।

আগামী ২৪ তারিখ পর্যন্ত ধৃত ৪ জনকে জেলা হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here