বুলবুলের আতঙ্ক কাটতে না কাটতেই দুই বাংলায় নতুন ঘূর্ণিঝড়ের গুজব

0

ওয়েবডেস্ক: আবার নাকি ঘূর্ণিঝড় ধেয়ে আসছে? তার নাম নাকি ‘নাকরি’? কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে এমন খবর প্রকাশিত হওয়ার পরে স্বাভাবিক ভাবেই আতঙ্ক ছড়িয়েছে সাধারণ মানুষের মধ্যে।

সদ্য বুলবুলের তাণ্ডব দেখেছে পশ্চিমবঙ্গ আর বাংলাদেশ উপকূল। তছনছ হয়ে গিয়েছে দক্ষিণ আর উত্তর ২৪ পরগণার বিস্তীর্ণ অঞ্চল। এরই মধ্যে আবার নতুন ঘূর্ণিঝড় হলে কিছুই করার থাকবে না ভুক্তভোগী মানুষদের।

এই প্রসঙ্গে বলে রাখা ভালো, ‘নাকরি’ বঙ্গোপসাগরের কোনো ঘূর্ণিঝড়ের নাম নয়। আর সেই নামের কোনো ঘূর্ণিঝড় এই মুহূর্তে বঙ্গোপসাগর বা সংলগ্ন আন্দামান সাগরে অবস্থানও করছে না।

‘নাকরি’ প্রশান্ত মহাসাগরীয় একটি ঘূর্ণিঝড়, বা স্থানীয় ভাষায় যাকে বলা হয় টাইফুন। এই টাইফুন ‘নাকরি’ সপ্তাহখানেক আগেই ফিলিপিন্সে আঘাত হেনে মারা গিয়েছে। অর্থাৎ, এই মুহূর্তে গোটা বিশ্বে ‘নাকরি’ নামক কোনো ঘূর্ণিঝড়ের কোনো অস্তিত্বই নেই।

ফলে স্বাভাবিক ভাবেই বাংলা তো দূর, এই মুহূর্তে পূর্ব ভারতের বাকি রাজ্যের উপকূল বা বাংলাদেশেও কোনো ঘূর্ণিঝড়ের সম্ভাবনা নেই।

আরও পড়ুন আবার হেলিকপ্টার বিতর্ক, নতুন করে সংঘাতে ধনকড় ও রাজ্য

তবে আবহাওয়া বিশেষজ্ঞদের একাংশের ধারণা, নভেম্বরের শেষে বা ডিসেম্বরের শুরুতে বঙ্গোপসাগরে একটি গভীর নিম্নচাপ বা ঘূর্ণিঝড় তৈরি হতে পারে। কিন্তু তার গতিপথ অন্ধ্রপ্রদেশ বা তামিলনাড়ু উপকূলের দিকে হওয়ার সম্ভাবনাই সব থেকে বেশি।

ডিসেম্বরে বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড় তৈরি হওয়া অস্বাভাবিক কোনো ঘটনা নয়। কিন্তু তার অভিমুখ কোনো ভাবেই বাংলার দিকে থাকে না। থাকে অন্ধ্র বা তামিলনাড়ু উপকূলের দিকে। ফলে আগামী দিনে বাংলার দিকে কোনো ঘূর্ণিঝড় ধেয়ে আসার সম্ভাবনা নেই।

এখন মূলত শীতের পদধ্বনির সময়। ধীরে ধীরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা আগামী দিনে বেশ খানিকটা কমে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.