sharad pawar and mamata banerjee

কলকাতা: রাজ্যে আসতে পারেন এনসিপি (NCP) সভাপতি শরদ পওয়ার (Sharad Pawar)। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Bannerjee) সঙ্গে বৈঠক করতে পারেন তিনি। অথবা দিল্লিতে বিজেপির বিরুদ্ধে সঙ্ঘবদ্ধ বিরোধী বৈঠকে অংশ নিতে পারেন পওয়ার।

গত রবিবার জানা যায়, মমতাকে ফোন করেছিলেন পওয়ার। সে দিনের কথোপকথনে তিনি নতুন তিন কৃষি আইনের বিরুদ্ধে একযোগে প্রতিবাদ আন্দোলনে নামার অনুরোধ জানান মমতাকে। এনসিপি প্রধান মনে করেন, কৃষি আইন প্রত্যাহার করার দাবি নিয়ে কৃষকরা যে আন্দোলন করছেন, সেই আন্দোলন আরও জোরদার করতে হলে ঐক্যবদ্ধ বিরোধী শক্তির প্রয়োজন। আর এই কাজে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেসের হাত ধরতে আগ্রহী এনসিপি।

কী বলছে এনসিপি

এনসিপি মুখপাত্র নবাব মালিক গত সোমবার বলেন, কেন্দ্রের বিজেপি সরকার পশ্চিমবঙ্গের ‘তৃণমূল সরকারকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে’।

তিনি বলেন, “রাজনৈতিক ভাবে পশ্চিমবঙ্গ জয়ের লক্ষ্য নিয়ে কেন্দ্র নিজের ক্ষমতার অপব্যবহার করছে। রাজ্যপ্রশাসনকে বিপাকে ফেলার চেষ্টা করছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা বলেছেন শরদ পওয়ার। হয় তিনি নয়াদিল্লিতে বিরোধী দলগুলিকে নিয়ে একটি বৈঠকে অংশ নেবেন, অথবা পশ্চিমবঙ্গ সফরে যাবেন”।

বিতর্কের নেপথ্য

কেন্দ্রের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় হস্তক্ষেপের অভিযোগ তুলেছে রাজ্য সরকার। বিশেষত, সম্প্রতি বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নড্ডার পশ্চিমবঙ্গ সফর ঘিরে তা তুঙ্গে ওঠে। ডায়মন্ড হারবারেরর সভায় যাওয়ার পথে নড্ডার কনভয়ে হামলার অভিযোগ ওঠে। কেন্দ্রের অভিযোগ, নড্ডার নিরাপত্তায় গাফিলতি ছিল। এই ঘটনা নিয়ে কেন্দ্র-রাজ্য বিবাদ চরমে ওঠে। নড্ডার নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা তিন আইপিএস অফিসারকে বদলির নির্দেশ পাঠায় কেন্দ্র।

কেন্দ্রের এই নির্দেশে প্রবল আপত্তি জানিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একাধিক টুইট করেন। তিনি লেখেন, “ঘুরপথে রাজ্যের প্রশাসনিক ব্যবস্থা নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিতে চায় কেন্দ্র। এই পদক্ষেপকে আমরা কিছুতেই মেনে নেব না। আধিপত্যবাদী, অগণতান্ত্রিক শক্তির সামনে মাথা ঝোঁকাবে না পশ্চিমবঙ্গ।”

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক যখন আইনবিধির দোহাই দিয়ে রাজ্যের উপর ক্রমশ চাপ বাড়াচ্ছে, সে সময় মমতার পাশে দাঁড়িয়ে তাঁর অদমনীয় পদক্ষেপকে সমর্থন জানিয়েছেন চার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। দিল্লির অরবিন্দ কেজরিওয়াল, পঞ্জাবের ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং, রাজস্থানের অশোক গহলৌত এবং ছত্তীসগঢ়ের ভূপেশ বাঘেলরা পশ্চিমবঙ্গের তিন আইপিএস অফিসারের বদলি বিতর্কে কেন্দ্রকে এক হাত নিয়ে মমতার পাশে দাঁড়িয়েছেন।

তৃণমূলের অভিযোগ, কেন্দ্রের শাসকদল দেশের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো ভাঙার চেষ্টা করছে। এই ইস্যুকে কেন্দ্র করেই বিরোধী শক্তিকে একজোট করার ডাক দেন তৃণমূল নেত্রী। সেই উদ্দেশ্যেই জানুয়ারিতে কলকাতায় বিভিন্ন আঞ্চলিক বিরোধী দলগুলির সভা ডাকার পরিকল্পনা করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সম্ভবত ওই সভাতেই অংশ নিতে কলকাতায় আসতে পারেন পওয়ার।

আরও পড়তে পারেন: প্রায় ছ’মাস পর দেশে নতুন আক্রান্তের সংখ্যা ২০ হাজারের নীচে, সক্রিয় রোগী ৩ লক্ষের কম

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন