babul supriyo

ওয়েবডেস্ক: ছিল নিছক জল্পনা, কিন্তু বিতর্কের দড়ি টানাটানিতে তা যে পা ফেলবে বাস্তবের রাজনৈতিক ময়দানে, তা কল্পনার বাইরে!

বিজেপি সাংসদ শত্রুঘ্ন সিনহা কি আদৌ তৃণমূলে কংগ্রেসে যোগ দিতে চলেছেন? বিজেপি ছেড়ে তিনি কি ২০১৯-এ তৃণমূলের হয়ে প্রার্থী হতে চলেছেন পশ্চিমবঙ্গের আসানসোল লোকসভা কেন্দ্রে? মূলত এই দু’টি প্রশ্নের উত্তর খোঁজা জনমনে বাড়তি আগ্রহের উদ্রেক করলেন দুই দলের দুই তাবড় নেতা।

ক’দিন ধরেই নয়াদিল্লির রাজনীতিতে শত্রুঘ্ন সিনহাকে নিয়ে একটি রাজনৈতিক জল্পনা চলছিল। রাজধানীর একাংশের রাজনীতিকের আলোচনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছিল, শত্রুঘ্ন সিনহা না কি বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন। এ ধরনের উচ্চপর্যায়ের সিদ্ধান্ত শুধুমাত্র দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিয়ে থাকলেও দলের কেউ কেউ চাইছিলেন, শত্রুঘ্নকে হিন্দিভাষী অধ্যুষিত আসানসোলে প্রার্থী করলে মন্দ হয় না। তবে এ বিষয়ে যে কোনো স্থির সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়নি তা আগেই জানানো হয়েছিল। তবুও এই বিষয়ে আসানসোলের বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়র ফেসবুক পোস্ট নতুন করে ইন্ধন জুগিয়েছে।

বাবুল তাঁর ফেসবুকে বেশ চমৎকার করেই লিখেছেন নিজের প্রতিক্রিয়ার কথা। যা দেখে তাঁর অনুগামীদের একাংশও দল-বিরোধী আচরণের দায়ে শত্রুঘ্নর প্রতি বি্ষোদ্গার করেছেন। যদিও বাবুল কিন্তু এমন একটা ‘গুজবে’ যথেষ্ট আনন্দ পেয়েছেন। অন্তত তাঁর পোস্ট করা ফেসবুক মন্তব্যে সে কথাই জ্বলজ্বল করছে।

অন্য দিকে নীরব থাকতে পারেননি তৃণমূলের জেলা নেতৃত্বও। পশ্চিম বর্ধমানের তৃণমূল জেলা সভাপতি ভি শিবদাসন দাবি করেছেন, বাবুল আসানসোল নিয়ে চাপে আছেন। আগামী লোকসভা ভোটে আসানসোলে তৃণমূলে জিতবে। নিজের সাংসদপদ অনিশ্চিত বলেই এ ধরনের প্রচার করছেন বাবুল।

এখন দেখার, জল্পনা নিয়ে নিয়ে দানা বাঁধা বিতর্ক বাস্তবের মাটিতে আদৌ কতটা ফলপ্রসূ হয়!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here