দেবাঞ্জন দেবের প্রতারণার শিকার শিলিগুড়ির গায়ক, বড়ো সরকারি পদের লোভ দেখিয়ে মোটা টাকা লোপাটের অভিযোগ

সৌভিক মজুমদার, দেবাঞ্জন দেব। প্রতীকী ছবি

নিজস্ব প্রতিনিধি: শিলিগুড়িতেও ভ্যাকসিন-কাণ্ডের নায়ক দেবাঞ্জন দেবের প্রতারণা চক্র! তাঁর বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ করলেন শিলিগুড়ির গায়ক সৌভিক মজুমদার। তাঁকে উত্তরবঙ্গের চা বাগানের টি বোর্ড বা মনিটরিং কমিটির চেয়ারম্যান করা হবে বলে আশ্বাস দিয়ে প্রায় তিন লক্ষ টাকা প্রতারণা করার অভিযোগ উঠেছে ভুয়ো ভ্যাকসিন-কাণ্ডের হোতার বিরুদ্ধে।

জালিয়াতির শিকড় অনেক গভীরে!

ঘটনায় প্রকাশ, শিলিগুড়িতে মৈনাক ট্যুরিস্ট লজ-সহ পাহাড়ে একাধিক বৈঠক করেছিল দেবাঞ্জন দেব। বিভিন্ন ঠিকাদারদের জিটিএ’র কাজ পাইয়ে দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছিল। শিলিগুড়ি পুরনিগমের ৩৯ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা গায়ক সৌভিক মজুমদার। ২০১৮ সালে শিলিগুড়িতে এসেছিলেন দেবাঞ্জন দেব। নিজেকে রাজ্য তথ্য ও সংস্কৃতি এবং পার্সোনেল অ্যান্ড অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ রিফর্মস ডিপার্টমেন্টের যুগ্ম সচিব হিসেবে পরিচয় দিয়েছিল সে।

এমনকী শিলিগুড়িতে মৈনাক ট্যুরিস্ট লজের মতো সরকারি আবাসনে উঠেছিল দেবাঞ্জন। সে সময় পর্যটনমন্ত্রী ছিলেন গৌতম দেব। শুধু তাই নয়, তার দফতরও মৈনাক ট্যুরিস্ট লজেই ছিল।

যদিও গৌতম দেব বলেন, “তার (দেবাঞ্জন) সঙ্গে আমার জ্ঞানত বা অজ্ঞানত কোনো কথা বা দেখা হয়নি। দলের কেউ জড়িত রয়েছে কিনা, আমার কাছে কোনো তথ্য নেই।”

[কসবা ভুয়ো ভ্যাকসিনকাণ্ডে মূল অভিযুক্ত দেবাঞ্জন দেব। পাশে ভুয়ো পরিচয়পত্র]

কী টোপ দেওয়া হয়েছিল গায়ককে?

সৌভিক বলেন,”২০১৮ সালে পরিচয় হয় দেবাঞ্জনের সঙ্গে। মৈনাকে দেখা হয়েছিল। আমার সঙ্গে একটা অ্যালবাম নিয়ে আলোচনা হয়। তিন চার দিন পর আমাকে কালিম্পংয়ে নিয়ে যায়। সেখানে উত্তরের চা বাগান নিয়ে আলোচনা হয়। আমার কাছে চা বাগানের উন্নয়নে প্রস্তাব চায়। আর একটা প্রস্তাব লিখিত আকারে মুখ্যমন্ত্রীকে পাঠাতে বলে। আমি কলকাতায় গিয়ে দিয়েও এসেছিলাম। আমাকে বলেছিল চা বাগান মনিটরিং কমিটির বড়ো পদে বসাবে। সেইমতো আমি তাকেও প্রস্তাব দিই”।

সৌভিক জানান, “এর পর হঠাৎ করে একদিন জানায়, তার বাবা শিলিগুড়িতে এসেছিলেন। কিন্তু ফেরার টাকা নেই৷ সেই সময় আমার কাছ থেজে তিন লক্ষ টাকা ধার নেয়। কিছুদিন পর আমার সন্দেহ হয়। আমি কলকাতায় খোঁজখবর নিলে তার ভুয়ো আইএএস পরিচয় জানতে পারি। আমি তাকে জানালে আমাকে ও আমার ছেলেকে প্রাণে মারার হুমকি দেওয়া হয়। এর পর আমি তার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দিই।”

তবে সৌভিক মজুমদার জানিয়েছেন, ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডে ভুয়ো আইএএস অফিসার দেবাঞ্জন দেবের কড়া শাস্তি হওয়া উচিত। এমনকী এ ব্যাপারে প্রশাসনকেও সমস্ত সহযোগিতার কথা জানিয়েছেন তিনি।

আরও পড়তে পারেন: আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে নির্বিচারে কাটা হয়েছে দুর্লভ গাছ, সরজমিন তদন্তে জেলাশাসক উলগানাথন

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন