জামাইষষ্ঠীর দিন তুলকালাম! শ্বশুরবাড়ির সামনে ধরনায় মহিলা

0
শ্বশুরবাড়ির সামনে ধরনা

নিজস্ব প্রতিনিধি, শিলিগুড়ি: শ্বশুরবাড়ির সামনে ধরনায় বসলেন এক বিজেপি কর্মীর স্ত্রী। অভিযোগ, শ্বশুরবাড়ির লোক ঢুকতে না দেওয়ায় গেটের সামনে ধরনায় বসেন শ্বেতা ঘোষ নামে ওই মহিলা। কয়েক বছর আগে সঞ্জীব ঘোষের সঙ্গে সামাজিক মতে বিয়ে হয় শ্বেতার।

অভিযোগ স্ত্রীর

[শ্বেতা ঘোষ]

শ্বেতার অভিযোগ, বিয়ের কয়েকমাস পর থেকে শ্বশুরবাড়ির এক সদস্য তাঁর উপর নির্যাতন শুরু করেন। এমনকী স্বামীকে আপত্তিকর অবস্থাতেও দেখে ফেলেন বলে অভিযোগ করেন শ্বেতা। বিষয়টি তিনি শ্বশুর-শাশুড়িকে জানালে তাঁরা বিষয়টিতে গুরুত্ব দেন না।

Loading videos...

শ্বেতার আরও অভিযোগ, সঞ্জীব তাঁকে মারধর করেন ও তাঁর হাত ভেঙে দেন। এর পর শ্বেতা আইনের দারস্থ হন। অন্যদিকে, নিজের ছেলেকে বোঝানোর জন্য কিছু দিন সময় চেয়ে নেন শ্বশুর। কিন্তু কয়েক মাস অতিক্রান্ত হওয়ায় সঞ্জীবের বাড়ি থেকে কোনো সদুত্তর না পেয়ে বুধবার সন্ধ্যায় শিলিগুড়ির ঘুঘুমালি বাদুর বাগানে সঞ্জীবের বাড়িতে হাজির হন শ্বেতা। কিন্তু বাড়িতে ঢুকতে না পেরে তিনি গেটের সামনে ধরনায় বসে পড়েন।

পাল্টা অভিযোগ স্বামীর

[সঞ্জীব ঘোষ]

সঞ্জীব ঘোষ জানান, “আমি আইনের পথে যাব। শ্বেতার সঙ্গে সংসার করব না”। তাঁর পাল্টা অভিযোগ, “প্রত্যেকবার ও (শ্বেতা) একই রকম করে। আমাকে ভয়ের মধ্যে রাখে। এর আগেও কোনো কারণ ছাড়াই নির্যাতনের মামলা করেছে। আমি জলপাইগুড়িতে গিয়ে জামিন নিয়েছিলাম। সাত-আটদিন জেল খেটে এসেছি। তার পরে বিবাহবিচ্ছেদের মামলা করেছি”।

সঞ্জীব আরও বলেন, “বিয়ের পর থেকেই সমস্যা চলছিল। আমার আয় কমে যাওয়ার পরে অত্যাচার আরও বেড়ে যায়। এর সঙ্গে কথা বলা যাবে না, বাবা-মায়ের সঙ্গে কথা বলা যাবে না বলে জোরাজুরি করত। ওর কথা মেনে আমি উপরে আলাদা থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছিলাম। তাতেও কিছু হয়নি। পাড়ার লোক দেখেছে, ও যাওয়ার সময় বাড়ির সমস্ত জিনিসপত্র নিয়ে চলে গিয়েছে”।

আরও পড়তে পারেন: সুনীল সিংকে নিয়ে চাপানউতোরের মধ্যেই তৃণমূলে যোগ দিলেন বিজেপি নেতার ঘনিষ্ঠ ২ প্রাক্তন কাউন্সিলার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.