মানব চুম্বক? ভ্যাকসিন নেওয়ার পর শরীরে আটকে যাচ্ছে হাতা-খুন্তি, পয়সা, মোবাইল! অদ্ভুত কাণ্ড শিলিগুড়িতে

0
বেমালুম শরীরে আটকাচ্ছে বিভিন্ন সামগ্রী

খবর অনলাইন ডেস্ক: মহারাষ্ট্রের পর এ বার বাংলায়! কোভিড ভ্যাকসিন নেওয়া ব্যক্তির গায়ে বেমালুম আটকে যাচ্ছে পয়সা, খুন্তি, মোবাইল থেকে শুরু করে অন্যান্য ধাতব বস্তু। শুধুই কি সাময়িক দৃষ্টিবিভ্রম, না কি এর পিছনে রয়েছে কোনো বৈজ্ঞানিক যুক্তি?

শিলিগুড়ির ভারতনগরের বাসিন্দা নেপাল চক্রবর্তী টিভিতে দেখছিলেন মহারাষ্ট্রের এক ব্যক্তি করোনার ভ্যাকসিন নেওয়ার পর তাঁর দেহে আটকে যাচ্ছে হাতা- খুন্তি, কয়েন-সহ নানা সামগ্রী। দেখামাত্রই মনে দানা বাঁধে কৌতূহল। কারণ, নেপালবাবুও তো ক’দিন আগে ভ্যাকসিন নিয়েছেন।

Loading videos...

অদ্ভুত কাণ্ড শিলিগুড়িতে

[নেপাল চক্রবর্তী]

নেপালবাবু বলেন, “কী করে হচ্ছে, তা বলতে পারব না”। তবে টিভি দেখতে দেখতে তাঁর মনে কৌতুহল জাগে, তিনিও তো ভ্যাকসিন নিয়েছেন, তাঁর দেহে কি এগুলো আটকাবে? কৌতূহল বশত কয়েন নিয়ে নিজের শরীরে প্রয়োগ করে দেখেন। দেখা যায়, মহারাষ্ট্রের ওই ব্যাক্তির মতোF তাঁর দেহেও আটকে যাচ্ছে কয়েন।

এর পর হাতা, খুন্তি, মোবাইল একেক করে সব তাঁর দেহের সংস্পর্শে নিয়ে এলেই চুম্বকের মতো আটকে থাকে। তবে চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, এই মানব চৌম্বকের সঙ্গে ভ্যাক্সিনের কোনো সম্পর্ক নেই।

নাসিকে যা ঘটেছিল

[অরবিন্দ জগন্নাথ সোনার]

মহারাষ্ট্রের নাসিকের শিবাজী চৌকির বাসিন্দা, ৭০ বছর বয়সি অরবিন্দ জগন্নাথ সোনার ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার পরে নিজের শরীরে চৌম্বকীয় শক্তি বিকাশের দাবি করেছিলেন। প্রথম এ ধরনের ঘটনা চাক্ষুস করে তিনি ভেবেছিলেন, হয়তো ঘামের কারণে এটা ঘটছে। কিন্তু স্নান করার পরেও দেখেছিলেন একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটছে। ভ্যাকসিনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে বিভিন্ন ধরনের খবর শোনা যায়। তবে এই দাবি তাকে সম্পূর্ণ নতুন স্তরে নিয়ে চলে যায়।

সোনার দাবি করেছিলেন, ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার পরে ধাতব সামগ্রী তাঁর শরীরে সহজেই আটকে যাচ্ছে। নিজের দাবির প্রমাণ হিসেবে তিনি একটি ভিডিও তৈরি করে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন। সেই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়। খবর পেয়ে নাসিক পুরসভার চিকিৎসকরা সোনারে বাড়িতে যান। পুরো ঘটনা দেখার পর তাঁরা রিপোর্ট পাঠান সরকারের কাছে। চিকিৎসক অশোক থোরাট জানান, তদন্তের পরেই তাঁরা এ বিষয়ে সিদ্ধান্তে আসতে পারবেন।

একশো শতাংশ বুজরকি

বিজ্ঞান সচেতন মানুষ অবশ্য বিষয়টিকে একশো শতাংশ বুজরুকি ছাড়া অন্য কোনো আখ্যা দিতে চাইছেন না। এ ব্যাপারে বিজ্ঞানকর্মী এবং পদার্থবিদ্যার শিক্ষক সন্তোষ সেন বলেন, “কী ভাবে গায়ে কয়েন বা অন্য কিছু লাগানো সম্ভব, তার অনেক কায়দা রয়েছে। কিন্তু মানুষের শরীরকে চৌম্বকক্ষেত্রে পরিণত করার মতো কোনো উপাদান আমাদের দেহে নেই। ফলে এটাকে কোনো মতেই বাস্তব বলে মেনে নেওয়া যায় না”।

তিনি আরও বলেন, “কয়েন অথবা কাঁচি ছাড়া যে সামগ্রীগুলো শরীরে লাগানো দেখছি, সেগুলো ছাড়া আর কোনো কিছুই লোহার নয়। বাকি চামচ, হাতা বা খুন্তিতে কোটিং করা রয়েছে। সব চেয়ে বড়ো কথা, ভ্যাকসিন নিলে জ্বর, মাথা ঘোরার মতো সাময়িক উপসর্গগুলো হয়তো বা দেখা দিতে পারে। কিন্তু ভ্যাকসিনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় মানব শরীর চুম্বকে পরিণত হতে পারে, তার কোনো বিজ্ঞানসম্মত কারণ নেই। ভ্যাকসিন কেন, এমন কোনো ওষুধ বা বিষ নেই, যা দিয়ে মানুষের শরীরকে চুম্বকে পরিণত করা যায়”।

দাবি করছেন দুই প্রবীণ

একাংশের মতে, এ ধরনের যে দু’টি ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছে, প্রত্যেকটাতেই এই দাবি করেছেন প্রবীণ ব্যক্তি। করোনা মহামারিতে বাড়তি মানসিক চাপ শুধু প্রবীণ নয়, সব বয়সিদেরই চিন্তাভাবনাকে উলটপালট করে দিচ্ছে। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে টিকা নেওয়ার পর প্রবীণদের মনস্তাত্ত্বিক প্রতিক্রিয়ার সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক রয়েছে কি না, সেটাও খতিয়ে দেখার বিষয়।

সরকারি দাবি

মহারাষ্ট্রের ওই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরই হইচই পড়ে যায় দেশ জুড়ে। ভ্যাকসিনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে মানুষের মনে নতুন একটা সন্দেহ দানা বাঁধে। জল এত দূর গড়ায় যে, এই ঘটনার তদন্তমূলক পর্যবেক্ষণ করে প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরোর শাখা পিআইবি ফ্যাক্ট চেক।

টুইট করে জানিয়ে দেওয়া হয়, এ ধরনের দাবি সম্পূর্ণ ভাবে ‘ভিত্তিহীন’। ভ্যাকসিন কোনো মতেই মানব শরীরকে চুম্বকের পরিণত করার কারণ নয়। কোভিড ভ্যাকসিন সম্পূর্ণ নিরাপদ। আপনি তা নির্ভয়ে নিতে পারেন।

আরও পড়তে পারেন: ৩৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে পিছনে ফেলে বিশ্ব র‍্যাঙ্কিংয়ে লাফিয়ে এগোল খড়্গপুর আইআইটি!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.