সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ কার্যকর করতে তৎপর রাজ্য সরকার। সিঙ্গুরের কৃষকদের জমি চার সপ্তাহের মধ্যে চাষযোগ্য করেই ফেরত দেওয়ার কথা বললেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার সিঙ্গুরের জমি ফেরত দেওয়ার বিষয়ে নবান্নে প্রশাসনিক বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এই কথা বলেন তিনি। দু’ সপ্তাহের মধ্যেই জমি জরিপের কাজ শেষ করার কথা বলেন তিনি। পাশাপাশি যাঁরা জমির ক্ষতিপূরণ নেননি, তাঁদেরও টাকা দেওয়া হবে বলে জানান মমতা।

মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, “জমি পুরো জরিপ করতে হবে, আগামী দু’সপ্তাহের মধ্যেই সেই কাজ শেষ হবে। এই ব্যাপারে আজকেই বিজ্ঞপ্তি জারি করা হবে”। কৃষকদের উদ্দেশে মমতার বার্তা, “যাঁরা ক্ষতিপূরণ নেননি, তাঁদের টাকা হয়তো কোর্টে আছে, নয়তো রাজ্য কোষাগারে আছে, সেই টাকাও ফেরত দেওয়া হবে। যাঁরা ইচ্ছুক কৃষক, তাঁদেরও জমি ফেরত দেওয়া হবে”। কৃষকদের আশ্বস্ত করে মুখ্যমন্ত্রী এ দিন বলেন, “জমি চাষযোগ্য করেই ফেরত দেওয়া হবে। যাঁর যে জায়গায় জমি ছিল, তাঁকে সেই জায়গাতেই জমি ফেরত দেওয়া হবে”।

এর পর সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের বাইরে গিয়ে বর্গাদারদের উদ্দেশে মমতা বলেন, “যে বর্গাদাররা সেই সময় ক্ষতিপূরণ নেননি, তাঁদেরও ক্ষতিপূরণের আওতায় আনা হবে”।

মুখ্যমন্ত্রী এ দিন বলেন, মোট ৩৩৬ জন বর্গাদারের মধ্যে ক্ষতিপূরণ নেননি ৮৭ জন। ক্ষতিপূরণ না নেওয়া চাষির সংখ্যা ২৬৩৯। মমতা এ দিন আরও বলেন, যত দিন সিঙ্গুরের জমির জরিপ চলবে তত দিন রাজ্যের কোনও না কোনও মন্ত্রী সব সময় সেখানে উপস্থিত থাকবেন।

এর পাশাপাশি এ দিন বর্ধমানে প্রস্তাবিত মিষ্টি হাবের পরিকল্পনা বাতিল করার কথাও বলেন মুখ্যমন্ত্রী। উল্লেখ্য, ২০০৭ সালে পূর্বতন বাম সরকার ওই জমি অধিগ্রহণ করেছিল। মিষ্টি হাবের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে মমতা এ দিন বলেন, রাজ্যের অন্য কথাও এই হাব বানানো হবে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here