ওয়েবডেস্ক: ডিএ এবং বেতন কমিশন নিয়ে প্রতিশ্রুতি মাফিক কাজ না-হওয়া এবং একই সঙ্গে মর্জিমতো বদলির প্রতিবাদে গণঅবস্থানে বসছে সরকারি, আধা-সরকারি, শিক্ষক এবং শিক্ষাকর্মীদের যৌথ সংগ্রামী মঞ্চ। আগামী বুধবার ধর্মতলার ওয়াই চ্যানেলে ওই গণঅবস্থান অনুষ্ঠিত হতে চলেছে বলে জানিয়েছেন মঞ্চের আহ্বায়ক ফটিক দে।

গত বছরই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছিলেন, মূল বেতনের ১২৫ শতাংশ ডিএ হিসেবে পাবেন রাজ্য সরকারি কর্মীরা। সেই মোতাবেক পুরনো বকেয়া হাতে পেলেও, তিন বছর আগের অর্থাৎ ২০১৬ সালের। মাঝখান থেকে অন্তর্বর্তী ভাতা নিয়ে সরকার উচ্চবাচ্য না-করার ওই ১২৫ শতাংশ ডিএ-কে নিছক ‘আইওয়াশ’ বলে বর্ণনা করেছেন মঞ্চের নেতৃত্ব। তাঁদের দাবি, এর পরেও কেন্দ্রের সঙ্গে রাজ্য সরকারি কর্মীদের ডিএ-র ফারাক থাকছে ২৩ শতাংশ। মঞ্চের দাবি, মূল্যসূচক মেনে রাজ্য সরকার যেমন ডিএ দিতে চাইছে না , তেমনই বেতন কাঠামো সংশোধনেও অনীহরা পৌঁছেছে চরমে।

অন্য দিকে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের জন্য যেখানে সপ্তম পে কমিশন চালু হয়ে গিয়েছে, সেখানে এ রাজ্যের কর্মচারীরা ষষ্ঠ বেতন কমিশনের জন্য হা-পিত্যেশ করে বসে রয়েছেন বলে দাবি করেছে মঞ্চ। কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের জন্য সপ্তম পে কমিশনের নির্ধারিত বেতন কাঠামো চালু হওয়ার পরই বেশ কয়েকটি রাজ্য সরকারও তা চালু করেছে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ সরকার ষষ্ঠ বেতন কমিশন সুপারিশ নিয়েই টালবাহানা করছে। যে ভাবে বারংবার মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়েছে, তা গোটা দেশে নজিরবিহীন বলে দাবি করেছে মঞ্চ।

[ আরও পড়ুন: সেরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আইআইটি মাদ্রাজ, সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় কলকাতা, যাদবপুর কত নম্বরে ]

একই সঙ্গে মঞ্চের নিশানায় নিয়মনীতি বা কর্মচারীদের অধিকারকে মান্যতা না দিয়ে ‘বেহিসাবি’ বদলির বিষয়টিও। তাদের দাবি, রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকেই এ ধরনের বদলির পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি শূন্যপদ পূরণের দাবিও থাকছে মঞ্চের অবস্থানে। সব মিলিয়ে আগামী দিনে আরও বৃহত্তর আন্দোলনের পথ প্রশস্ত করার সূচনা হিসাবে আগামী বুধবার বেলা ১টায় ওয়াই চ্যানেলে গণঅবস্থানে বসতে চলেছে যৌথ সংগ্রামী মঞ্চ।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here