government office employee

শিলিগুড়ি: ‘সরকারি কর্মচারী হিসাবে আমরা কাজ করি। কিন্তু নিয়ম মেনে অফিসে আসা আর মাসের শেষে বেতন তোলাটাই আমাদের কাজ নয়। আমরা মানুষকে পরিষেবা দেওয়ার জন্য এই বেতন পাই। এখন সোশ্যাল মিডিয়ার যুগ। আমরা দেখছি স্মার্ট ফোন কর্মীদের কাজের সময় ছিনিয়ে নিচ্ছে। অনেকেই কাজকম্ম ছেড়ে ফোন নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ছেন।’

কথাগুলো বলছেন শিলিগুড়ি পুরসভার চার নম্বর বোরোর আধিকারিক। আগামী ৮ জানুয়ারি, সোমবার থেকেই চালু হচ্ছে এই নিয়ম। এই বোরো অফিসে যাঁরা ডেস্কে কাজ করেন তাঁরা ওই সকাল সাড়ে দশটা থেকে বিকেল সাড়ে চারটে পর্যন্ত আর স্মার্টফোন ব্যবহার করতে পারবেন না। এমনকী ডেস্কে নয়, কিন্তু অফিসের ভিতরেই কাজ করেন এমন কর্মীরাও এই আইনের আওতায় পড়বেন।

শিলিগুড়ি পুরসভা বর্তমানে বামফ্রন্টের দখলে। পরিষেবার মান নিয়ে বিক্ষিপ্ত ভাবে অভিযোগ উঠলেও বড়ো সড়ো কোনো ঘটনার দৃষ্টান্ত সাম্প্রতিক কালে নেই। তবে অঞ্চলের মানুষ পুরসভার বোরো অফিসগুলিতে অভাব-অভিযোগ নিয়ে পৌঁছলে তাঁদের দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করার অভি়জ্ঞতাও রয়েছে। সব মিলিয়ে ‘প্রকৃত কর্মসংস্কৃতি’ ফেরাতে ওই বোরো অফিস দৃষ্টান্ত সৃষ্টিকারী এই নিয়ম চালু করল।

কিন্তু এই আইন না মানলে শাস্তির মুখে পড়তে হবে কি না, অথবা কী ধরনের শাস্তি হতে পারে- সে সব সম্পর্কে তেমন কিছু জানা যায়নি।

আবার নতুন এই আইনের কথা শুনে অফিসের কেউ কেউ এখন থেকেই বেসুরো গাইছেন বলে শোনা গিয়েছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here