Connect with us

দঃ ২৪ পরগনা

‘২৩২ ঘণ্টা পার, বিদ্যুৎ আসবে কবে?’

খবর অনলাইনডেস্ক: “২৩২ ঘণ্টা পেরিয়ে গেল, এখনও বিদ্যুতের দেখা নেই। এ বার কি আমরা ব্রায়ান লারার রেকর্ড ভেঙে দেব?” বিরক্ত হয়েই এমন কথা বললেন সুবীর পাল।

দক্ষিণ ২৪ পরগণার (South 24 Parganas) ধামুয়ার বাসিন্দা সুবীরবাবুর এলাকায় বিদ্যুৎ নেই সেই উম্পুনের (Cyclone Amphan) আগের দিন থেকেই। তিনি বলেন, “ঘূর্ণিঝড়ের আগের দিন থেকেই বিদ্যুৎ নেই। বিদ্যুৎ দফতরে ফোন করলে জানানো হয় যে লাইনে সমস্যা রয়েছে সারিয়ে দেওয়া হবে। কিন্তু সেটা হয়নি।”

এই ধরনের পরিস্থিতিতে তাঁরা আগে কোনো দিনও পড়েননি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে বলে রাজ্য সরকারের তরফে দাবি করা হলেও, বাস্তব চিত্রটা আদৌ সে রকম নয়। বিদ্যুতের অভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন এলাকার বয়স্ক মানুষজন।

সুবীরবাবুর কথায়, “এলাকায় যাদের পয়সা আছে তারা কয়েকটা করে পরিবার জেনারেটর ভাড়া করে চালাচ্ছে। এতে তাদের বাড়িতে আলো জ্বলছে। কিন্তু যাদের সামর্থ্য নেই তারা অন্ধকারেই কাটাচ্ছে। সুযোগ বুঝে জেনারেটর ভাড়াও অনেক বেশি নিচ্ছে।”

বিদ্যুতের অভাবে বৃদ্ধ, শিশু, অন্তঃসত্ত্বা মহিলারা বেশি কষ্ট পাচ্ছে বলেও জানান তিনি। ফ্রিজ বন্ধ, তাই গুরুত্বপূর্ণ ওষুধপত্র নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

বার বার বিদ্যুৎ দফতরের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন এলাকাবাসীরা। কিন্তু এখনও কোনো সদুত্তর পাননি তাঁরা। সুবীরবাবুর দাবি, শুধু ধামুয়াই নয়, বারুইপুরের (Baruipur) পর থেকে বিস্তীর্ণ এলাকা এখনও বিদ্যুৎবিহীন।

সুবীরবাবু বলেন, “বেশ কিছু এলাকায় এখনো ভাঙা পোস্ট, তালগোল পাকানো তার পড়ে রয়েছে, গ্রামের লোকজন গাছপালা কেটে সব পরিষ্কার করে রেখেছে। কিন্তু বিদ্যুৎ দফতরের কর্মীরা এখনও পৌঁছোনোর সময় পায়নি।”

এ ভাবে বেশি দিন চললে সুস্থ মানুষও অসুস্থ হয়ে পড়বেন বলে মনে করছেন তিনি। তাই এখন তাঁদের একমাত্র প্রার্থনা, যত দ্রুত সম্ভব এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ ফিরিয়ে দেওয়া হোক।

দঃ ২৪ পরগনা

‘গরিবের প্রাপ্য টাকা হজম করে দিচ্ছেন তৃণমূল নেতৃত্ব’, অভিযোগ শমীক লাহিড়ির

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, জয়নগর: করোনাভাইরাস লকডাউনের মধ্যেও উম্পুন ত্রাণ দুর্নীতি নিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে বামফ্রন্ট, বিজেপি এবং কংগ্রেসের মতো বিরোধী দলগুলি। বৃহস্পতিবার তেমনই একটি বিক্ষোভ সমাবেশ এবং প্রতিবাদসভা অনুষ্ঠিত হল দক্ষিণ ২৪ পরগনার জয়নগরে।

এ দিন দুপুরে জয়নগর-১ বিডিও অফিস বহড়ুতে সিপিএমের উদ্যোগে একগুচ্ছ দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ এবং প্রতিবাদসভা হয়। সভার মূল বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন দলের জেলা সম্পাদক শমীক লাহিড়ি।

দাবি-দাওয়া

ঘূর্ণিঝড় উম্পুনকে জাতীয় বিপর্যয় হিসাবে ঘোষণা, উম্পুনে ক্ষতিগ্রস্ত সমস্ত মানুষকে সরকারি সাহায্য, একশো দিনের কাজ, পরিযায়ী শ্রমিকদের একশো দিনের কাজ এবং স্বচ্ছ্ব পদ্ধতিতে ক্ষতিপূরণের দাবি তোলা হয়ে এ দিনের অনুষ্ঠানে।

সিপিএমের অভিযোগ

শমীক লাহিড়ি বলেন, “প্রশাসনকে কাজে লাগিয়ে গরিব মানুষের প্রাপ্য টাকা হজম করে দিচ্ছেন তৃণমূল নেতৃত্ব । আমরা চাই উম্পুনে ক্ষতিগ্রস্তরা সবাই ক্ষতিপূরণ পাক”।

সিপিএম সদস্য অপূর্ব প্রামানিকের নেতৃত্বে পাঁচ জনের একটি প্রতিনিধি দল জয়নগর-১ ব্লকের যুগ্ম বিডিও বিপ্লব পালের কাছে ডেপুটেশন পেশ করেন। ব্লকের যুগ্ম বিডিও বিপ্লব পাল দাবি গুলি বিবেচনা করার আশ্বাস দিয়েছেন বলে জানান সিপিএম নেতৃত্ব।

দুর্নীতিরোধে মুখ্যমন্ত্রী

প্রসঙ্গত, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একাধিক বার বলেছেন, দলমত নির্বিশেষে ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দিতে হবে। এ নিয়ে কোনো দুর্নীতি বরদাস্ত করা হবে না। ত্রাণ নিয়ে কোনো নেতা দুর্নীতি করলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের পর গ্রাম পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি স্তরের অসংখ্য তৃণমূল নেতাকে শোকজ করা হয়। এ বিষয়ে দলীয় পর্যায়েও তদন্ত চলছে বলে জানা গিয়েছে।

বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি অবশ্য শাসক দলের এহেন পদক্ষেপে ‘ড্যামেজ কন্ট্রোল’-এর ইঙ্গিত দেখছেন। তাদের বক্তব্য, দুর্নীতি যে হচ্ছেই, সেটা স্বীকার করে নিচ্ছে শাসক দল।

Continue Reading

দঃ ২৪ পরগনা

বিডিও অফিসে উম্পুনে ক্ষতিপূরণের ফর্ম জমা দিতে গিয়ে কুলতলিতে পদপিষ্ট একাধিক

ভিড়ের চাপে বেশ কয়েকজন মহিলা মাটিতে পড়ে যান। কেউ আবার তাঁদের উপর দিয়েই চলে যান। ফলে মাটিতে পড়ে থাকা মহিলারা আহত হন।

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, কুলতলিত: ঘূর্ণিঝড় উম্পুনে (Cyclone Amphan) ক্ষতিপূরণের ফর্ম জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে চরম বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হল দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলতলিতে। বৃহস্পতিবার বিডিও অফিসের সামনে হুড়োহুড়িতে সরকারি ভাবে দু’জন মহিলার পদপিষ্ট হওয়ার কথা স্বীকার করা হয়েছে।

বিডিও অফিস সূত্রে জানা গিয়েছে, সন্ধ্যা গায়েন এবং অসীমা হালদার নামে দুই পদপিষ্ট মহিলাকে হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। তবে আবেদনকারীদের দাবি, আরও বেশ কয়েকজন জখম হয়েছেন।

এ দিন বিডিও অফিসের সামনে আবেদনকারীদের ভিড় ক্রমশ লম্বা হতে শুরু করে। সকাল থেকেই লাইনে দাঁড়িয়ে পড়তে শুরু করেন অনেকে। বেলা গড়ালে রোদের তাপে কেউ কেউ অসুস্থ হয়েও পড়েন। ঘটনায় প্রকাশ, তাঁদের মধ্যেই কেউ কেউ আগে নিজের ফর্ম দিতে চান। যা নিয়ে বিতর্ক বাঁধে। শুরু হয়ে যায় হুড়োহুড়ি।

সে সময় ভিড়ের চাপে বেশ কয়েকজন মহিলা মাটিতে পড়ে যান। কেউ আবার তাঁদের উপর দিয়েই চলে যান। ফলে মাটিতে পড়ে থাকা মহিলারা আহত হন। দুই মহিলাকে তৎক্ষণাৎ সেখান থেকে উদ্ধার করে স্থানীয় জামতলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

বিক্ষোভ আগেও!

গত বুধবার বিকেলে কুলতলির দেউলবাড়ি দেবীপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের মাধবপুর গ্রামে ‘উম্পুন দুর্নীতি’র বিরুদ্ধে ক্ষোভ চরমে ওঠে। বিক্ষোভকারীদের দাবি, তালিকায় যাঁদের নাম রয়েছে, তাঁরা ক্ষতিপূরণ পাচ্ছেন না। উল্টে গ্রামের বাইরের কিছু লোক ক্ষতিপূরণ পেয়ে যাচ্ছেন।

এক বিক্ষোভকারী বলেন, “উম্পুনে আমাদের ঘর ভেঙে গিয়েছে। কিন্তু সরকারি ঘোষণা মতো ২০ হাজার টাকার ক্ষতিপূরণ পাইনি। প্রধানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তালিকা জমা দেওয়া হয়েছে। পাওয়া যাবে। কিন্তু কবে”?

উম্পুন ক্ষতিপূরণ

ঘূর্ণিঝড় উম্পুনে যাঁরা চরম ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তাঁদের জন্য ২০ হাজার টাকার ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পশ্চিমবঙ্গে কমপক্ষে ১০ লক্ষ বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে সেই ক্ষতিপূরণ পাওয়া নিয়ে অসংখ্য অভিযোগ উঠে আসে। ‘ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য অন্যকে টাকার ভাগ দিতে হচ্ছে’ বলেও মারাত্মক অভিযোগ উঠে আসে।

জুন মাসের মাঝামাঝি মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন, ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য ফর্ম কেনার দরকার নেই। টাকা সরাসরি ক্ষতিগ্রস্তের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পৌঁছে যাবে। একই সঙ্গে তিনি বলেন, “অভিযোগ সত্য হিসাবে প্রমাণ হলে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন”।

Continue Reading

দঃ ২৪ পরগনা

দেশের মধ্যে প্রবীণতম, করোনাকে হেলায় হারালেন ডায়মন্ড হারবারের ৯৯ বছরের বৃদ্ধ

খবরঅনলাইন ডেস্ক: তাঁর শরীরে করোনা ধরা পড়ার পর পরিজনরা তাঁর বেঁচে থাকার আশা প্রায় ছেড়েই দিয়েছিলেন। কারণ করোনার সঙ্গেও বার্ধক্যজনিত আরও অসুস্থতা তো রয়েছে।

কিন্তু সবাইকে কার্যত চমকে দিয়ে করোনাকে হেলায় হারালেন ৯৯ বছরের বৃদ্ধ। কাঁকুড়গাছির বেসরকারি নার্সিংহোমে চিকিৎসাধীন করোনা আক্রান্ত ওই বৃদ্ধ শ্রীপতি ন্যায়বান সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। রাজ্য তো বটেই, দেশের মধ্যে সব থেকে প্রবীণ ব্যক্তি তিনি, যিনি করোনাকে হারালেন।

ওই বৃদ্ধর দুই ছেলেও করোনায় আক্রান্ত। ৭২ বছর বয়সি বড়ো ছেলে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি রয়েছেন। আরও এক ছেলে মুকুন্দপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

জানা গিয়েছে, বৃদ্ধের এক ছেলের প্রথম কোভিড ধরা পড়ে। নিউমোনিয়ার উপসর্গ নিয়ে গত ১১ জুন রাতে তাঁকে মুকুন্দপুরের বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করানো হয়। করোনা পরীক্ষা হলে তার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। দশ দিন পর তাঁর আরও এক ছেলেও করোনায় আক্রান্ত হন।

দুই সন্তান আক্রান্ত হওয়ার মধ্যে গত সপ্তাহে অসুস্থ বোধ করেন বৃদ্ধ। গত ২৪ জুন তাঁর নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। বৃদ্ধের মৃদু হাইপারটেনশন ছিল। শীর্ণকায় শরীরে অক্সিজেনের মাত্রাও স্বাভাবিকের থেকে কম ছিল বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

এই অবস্থায় বৃদ্ধকে ডায়মন্ড হারবার থেকে কাঁকুড়গাছির বেসরকারি নার্সিংহোমে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে প্রায় সপ্তাহখানেক চিকিৎসাধীন থাকার পরে অবশেষে তাঁকে ছুটি দেওয়া হয়। করোনাকে হারিয়ে বৃদ্ধ বলেন, ‘‘ভালো আছি। শরীরে এখন কোনো অসুবিধা নেই।’’

করোনা যে মারণ ভাইরাস নয় আর করোনা নিয়ে কারও অতিরিক্ত আতঙ্কিত হওয়ারও যে দরকার নেই, এই বৃদ্ধই সেটা বুঝিয়ে দিলেন।

Continue Reading
Advertisement
দেশ38 mins ago

কেরল সোনা পাচারকাণ্ড: সিনিয়র আইএএস অফিসারকে বরখাস্ত করলেন মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন

দেশ2 hours ago

জেলবন্দি কবি-সমাজকর্মী ভারাভারা রাও করোনা পজিটিভ

রাজ্য2 hours ago

রেকর্ড সংখ্যক নমুনা পরীক্ষার দিন রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যাতেও রেকর্ড, কমল মৃত্যুহার

বিদেশ3 hours ago

আবুধাবিতে শুরু চিনের করোনা ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত পর্যায়ের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ

দেশ4 hours ago

নির্দিষ্ট কয়েকটি দেশে ফের আন্তর্জাতিক উড়ান পরিষেবা চালু করছে কেন্দ্র

বিনোদন4 hours ago

অবশেষে নতুন এপিসোড নিয়ে সাব টিভির পর্দায় ফিরছে ‘তারক মেহকা উলটা চশমা’ও, জেনে নিন কবে থেকে

দেশ5 hours ago

অসমে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ, বিপন্ন কাজিরাঙার বন্যপ্রাণও

রাজ্য5 hours ago

আরও চার হাজার বেড বাড়ছে রাজ্যে, ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

কেনাকাটা

laptop laptop
কেনাকাটা1 day ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : কোভিভ ১৯ অতিমারির প্রকোপে বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন ও ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অনেকেই অফিস থেকে ল্যাপটপ পেয়েছেন।...

কেনাকাটা4 days ago

হ্যান্ডওয়াশ কিনবেন? নামী ব্র্যান্ডগুলিতে ৩৮% ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস বা কোভিড ১৯ এর সঙ্গে লড়াই এখনও জারি আছে। তাই অবশ্যই চাই মাস্ক, স্যানিটাইজার ও হ্যান্ডওয়াশ।...

কেনাকাটা7 days ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা1 week ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

নজরে