Connect with us

উঃ ২৪ পরগনা

উম্পুন প্রলয়ের পরে: হাজারো কষ্ট সয়েও জীবন জেগে আছে সুন্দরবনে

শক্তিপদ ভট্টাচার্য

উম্পুনে বিধ্বস্ত সুন্দরবনের অধিবাসীদের বেঁচে থাকার জন্য বড়ো ভরসা এখন বাইরের মানুষের ত্রাণ। কিন্তু এই ত্রাণও অনেক সময়েই সমবণ্টন হচ্ছে না। সুন্দরবনের বসতি এলাকাগুলির সব মানুষের কাছে সমান ভাবে ত্রাণ পৌঁছোচ্ছে না। কেউ কেউ নিয়মিত ত্রাণ পাচ্ছেন। আবার কেউ কেউ তাঁদের অঞ্চলের দুরধিগম্যতার কারণে নিয়মিত ত্রাণ পাচ্ছেন না। এ ভাবেই ত্রাণের প্রত্যাশায় দিন কাটছে সুন্দরবনবাসীর।     

২০ মে ঘূর্ণিঝড় উম্পুন তাণ্ডব চালিয়ে যাওয়ার পরে বিধ্বস্ত দক্ষিণবঙ্গ, সম্পূর্ণ বিপর্যস্ত সুন্দরবন। পশ্চিমবঙ্গের সুন্দরবনে রয়েছে ১৯টি ব্লক, ১৩টি দক্ষিণ চব্বিশ পরগনায় আর ৬টি উত্তর চব্বিশ পরগনায়। মোট ১০২টি দ্বীপ। তার মধ্যে ৫৪টিতে মানুষ বাস করে। ২০১১ সালের সেনসাস অনুযায়ী লোকসংখ্যা ৪৫ লক্ষ, ১০ বছরে আরও অনেক বেড়েছে।

জলপ্লাবন।

সুন্দরবন এলাকা বাদ দিয়ে দক্ষিণবঙ্গের আর যে সব এলাকা দিয়ে ঘূর্ণিঝড় বয়ে গিয়েছে, সে সব জায়গায় বড়ো বড়ো গাছ পড়ে, বাড়ি ভেঙে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বটে, কিন্তু বন্যা হয়নি। কিন্তু সুন্দরবনে সে সব ক্ষতি তো হয়েইছে, তার সঙ্গে এসেছে প্লাবন। ঝড়ের তাণ্ডব গুঁড়িয়ে দিয়েছে বড়ো বড়ো নদীর বাঁধ। প্রায় ১৪০ কিলোমিটার দীর্ঘ মাটির বাঁধ ধ্বংস হয়ে গিয়েছে। সেই বীভৎস ভাঙনে ভেসে গিয়েছে হাজার হাজার ঘরবাড়ি। নোনা জলের প্লাবনে চাষের জমি লবণাক্ত হয়ে গিয়েছে। ফলে আগামী কয়েক বছর চাষ করা যাবে না। নোনা জল একের পর এক পুকুর প্লাবিত করে মাছ ও জল নষ্ট করে দিয়েছে। এই গরমে পানীয় জল ও ব্যবহারের জলের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে।

সুন্দরবনের এমন ক্ষতি যে কত কত বছর পরে হল তা মনে করতে পারেন না এলাকার অতি বৃদ্ধ মানুষজনও। আয়লার স্মৃতি এখনও তাঁদের মনে দগদগে হয়ে রয়েছে। কিন্তু উম্পুন তো আয়লাকেও হার মানাল।

অভাব, ক্ষুধা আর আশ্রয়হীনতার এক বিশাল হাঁ-মুখ তৈরি হয়েছে বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে। স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা, এনজিও, সাধারণ ক্লাব, বারোয়ারি পুজো কমিটির মতো বিভিন্ন সংস্থা প্রতিদিন ত্রাণ নিয়ে সেখানে পৌঁছে যাচ্ছেন। ব্যক্তিগত উদ্যোগেও বহু মানুষ রোজ ত্রাণ নিয়ে ছুটে যাচ্ছেন। কলকাতার আশপাশ ছাড়াও বাংলার বহু দূর দূর প্রান্ত থেকেও সাধারণ মানুষেরা ত্রাণ নিয়ে আসছেন। এই দুর্দিনে দুর্গত মানুষের পাশে থেকে একটা বড়ো দৃষ্টান্ত স্থাপন করছেন বাংলার মানুষেরা। দুর্দশাগ্রস্ত মানুষগুলোর এ ভাবে যদি একটু উপকার হয়, তার চেষ্টায় সাধারণ মানুষের উদ্বেগ চোখে পড়ার মতো।

ত্রাণ নিয়ে পৌঁছে গেল ভদ্রেশ্বরের ‘ভ্রমণ আড্ডা’।

কিন্তু এই সাধারণ মানুষ ও কিছু সংস্থার সুন্দরবনের ম্যাপ সম্পর্কে খুব একটা স্পষ্ট ধারণা নেই। যা আছে ভাসা ভাসা। অনেকে হয়তো কোনো দিনই আসেননি সুন্দরবনে। বইয়ে পড়েছেন, কানে শুনেছেন, সুন্দরবন অতি দুর্গম জায়গা। সেই অস্পষ্ট ধারণা নিয়েই আসছেন। ফলে ত্রাণ সব সময় সঠিক জায়গায় সমান ভাবে পৌঁছোচ্ছে না, সমবণ্টন হচ্ছে না। একই জায়গায় বেশ কয়েক বার ত্রাণ পৌঁছে গেলেও কিছু জায়গায় ত্রাণ যাচ্ছে না। প্রশাসনও সঠিক তালিকা দিতে পারছে না। যার ফলে কেউ বেশি জিনিস পেয়ে যাচ্ছেন, আবার কেউ কিছুই পাচ্ছেন না।

ভরা কোটালে আবার কিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এখনও অনেক বাঁধ সারানো যায়নি, যদিও যুদ্ধকালীন তৎপরতায় সারাই চলছে। সামনে বর্ষা কড়া নাড়ছে। তার আগে যতটা সম্ভব কাজ এগিয়ে রাখতে না পারলে আবার মূল বাংলা থেকে দ্বীপভূমিগুলো বিচ্ছিন্ন হয়ে আড়ালে চলে যাবে। এক কঠিন দুঃখের চাদরে মুড়ে দুঃস্বপ্ন নিয়ে দিন কাটাবে সুন্দরবন, তখন কোনো খবরেই আর আসবে না।

বিধ্বস্ত স্কুলবাড়ি।

একে লকডাউন, তার পরে উম্পুন। সবে মিলে কর্মহীনতা। এক কঠিন সমস্যার মুখে দাঁড়িয়ে রয়েছে এই এলাকা। নোনা জমির কারণে চাষ বন্ধ, জলপথে মাঝিমাল্লার কাজ বন্ধ, মিষ্টি জলের পুকুরে মাছচাষ বন্ধ, লকডাউনের ফলে মাছ ধরার নৌকাগুলোও নদীতে নামার জন্য তৈরি হয়নি, পর্যটনশিল্পও এ বারে জমবে না – সব মিলিয়ে এখন এক গভীর সংকটের মুখে দাঁড়িয়ে সুন্দরবন এলাকা।

টোটাল অর্থনৈতিক লকডাউনের মাঝেও মানুষগুলো ভাঙা ঘরের খুঁটি দাঁড় করানোর চেষ্টা চালাচ্ছেন। জ্বালানির হাজারো সমস্যার মাঝে মা তাঁর বাচ্চাগুলোর জন্য ভাতের উনুনে কাঠের জ্বালে ফুঁ দিয়ে চোখ লাল করছেন। জীবন থেমে নেই, এত সব সয়েও জীবন জেগে আছে সুন্দরবনে।

উঃ ২৪ পরগনা

ডাক্তার দিবসে অশোকনগরে বৈশাখী উৎসব কমিটি তরফে স্বাস্থ্যশিবির

খবরঅনলাইন ডেস্ক: বুধবার ডাক্তার দিবসে অশোকনগর কল্যাণগড় পৌরসভা এলাকার আশরফাবাদে মানবসেবার কর্মসূচি হাতে নিল বৈশাখী উৎসব কমিটি। করোনা পরিস্থিতিতে যে সকল মানুষজন অসুস্থ অথচ অর্থের অভাবে ডাক্তার দেখাতে যেতে পারছেন না, তাঁদের কথা চিন্তা করে এই কাজটি করল। সেই সঙ্গে প্রেসার টেস্ট, সুগার টেস্ট, ওজনও মাপা হয়।

আরও পড়ুন: ডাক্তার দিবসে করোনা যোদ্ধাদের সম্মান জানাল সেনকো গোল্ড অ্যান্ড ডায়মন্ডস, পাশে আইএমএ, এনআরএস

এ দিন প্রতিটি কাজ করা হয় পুরোপুরি সরকারি নির্দেশিকা অনুযায়ী সমস্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে। প্রথমে স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধুয়ে, থার্মাল গান দিয়ে উষ্ণতা মেপে। তার পর একের পর টেস্ট ও ডাক্তার দেখানোর প্রক্রিয়া। প্রায় পঞ্চাশ জন মানুষকে এই পরিষেবা প্রদান করা হল। উপস্থিত ছিলেন ডাক্তার হীরক রায়। এই অনুষ্ঠানটি আশফরাবাদ কমিউনিটি হলে করা হয়। পুরোপুরি নিখরচায় সাধারণ মানুষের জীবনের কথা চিন্তা করে।

বৈশাখী উৎসব কমিটি সংস্থা আহবায়ক দেবাশিস মজুমদারের কথায়, “আমরা সমাজে সকল মানুষের কথা চিন্তা করি। শুধুমাএ করোনা জনিত পরিস্থিতির জেরে লকডাউন ঘোষণার পর থেকেই খাদ্যসামগ্রী ও জীবনদায়ী ওষুধ বিতরণ করেছি। এমনকি স্বেচ্ছায় রক্তদান শিবির করেছি পৌর এলাকার মধ্যে এই প্রথম।”

দেবাশিসবাবু আরও বলেন, আগামী প্রজন্মের কথা চিন্তা করে শিশুদের শিক্ষাসামগ্রী তুলে দেওয়ার কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। সেই সঙ্গে আশফরাবাদের মানুষদের জীবনের কথা চিন্তা করে নিখরচায় শারীরিক পরীক্ষাশিবিরও আয়োজন করা হল।

দেবাশিসবাবু জানান, তাঁরা মানুষের জন্য সারা বছর ধরে কাজ করেন। কোনো রকম ব্যানার লাগে না তার জন্য। নীরবে নিঃশব্দেব্দে কাজ করতে বেশি পচ্ছন্দ করেন তারা।

Continue Reading

উঃ ২৪ পরগনা

‘পরিবেশ প্রভাব জরিপ ২০২০’ বাতিলের দাবিতে নৈহাটি স্টেশনে ‘ফ্রাইডে ফর ফিউচার’-এর জমায়েত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: কোনো বড়ো প্রকল্প স্থাপনের আগে সেখানকার পরিবেশের উপর তার কী প্রভাব পড়বে তা জরিপ করা হয়। একে বলা হয়  এনভায়রনমেন্টাল ইমপ্যাক্ট অ্যাসেসমেন্ট (ইআইএ) (Environmental Impact Assesment, EIA) বা পরিবেশ প্রভাব জরিপ। এটি একটি আইনি বাধ্যবাধকতা।

এই ‘পরিবেশ প্রভাব জরিপ’ এড়িয়ে যাওয়ার জন্য এ সংক্রান্ত পুরোনো আইন সংশোধনের চেষ্টা করছে কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশ মন্ত্রক। এরই বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক পরিবেশ আন্দোলন ‘ফ্রাইডে ফর ফিউচার’-এর (Friday For Future) নৈহাটি শাখার তরফে রবিবার প্রতিবাদ-বিক্ষোভ দেখানো হল নৈহাটি স্টেশন চত্বরে।

যে কোনো বড়ো প্রকল্প স্থাপনের আগে পরিবেশের উপর তার প্রভাব খতিয়ে দেখা বাধ্যতামূলক। এই মূল্যায়ন পদ্ধতির একটা অঙ্গ হল অঞ্চলের অধিবাসীদের নিয়ে গণশুনানি, যা গণতন্ত্রের পক্ষে খুবই স্বাস্থ্যকর। এই পদ্ধতিকে লঘু করার জন্য কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশ মন্ত্রক জোর চেষ্টা চালাচ্ছে বলে পরিবেশবাদীদের অভিযোগ। জনমত সংগ্রহের জন্য ইআইএ ২০২০ নামে একটি প্রস্তাবনা বিভিন্ন গণমাধ্যমে দেওয়া হয়েছে। এ ভাবে কেন্দ্রীয় মন্ত্রক পুরোনো আইনটি সংশোধনের চেষ্টা করছে বলে পরিবেশবাদীরা বলছেন।

তাঁদের বক্তব্য, আইন হিসাবে এই খসড়া কার্যকর হলে পরিবেশ ধ্বংসের কাজ ত্বরান্বিত হবে। তাই এই খসড়া পুরোপুরি বাতিলের দাবি করেছে পরিবেশ সংগঠন ও অন্যান্য সামাজিক সংগঠন। এ নিয়ে লকডাউনের মধ্যেই তারা প্রচার আন্দোলন, গণস্বাক্ষর সংগ্রহ, প্রতিবাদী জমায়েত ইত্যাদি আয়োজন করছে এবং ক্রমশ তা বড়ো প্রতিরোধের রূপ নিচ্ছে।

বড়ো প্রকল্প স্থাপনের আগে এই পরিবেশ প্রভাব জরিপ এড়িয়ে যাওয়ার বিধান প্রস্তাবিত আইনে থাকায় কর্পোরেট সংস্থাগুলি এ দেশেরে জল-জঙ্গল-জমিকে নির্বিচারে লুঠ করবে বলে আশঙ্কা প্রতিবাদীদের।

২৮ জুন রবিবার ফ্রাইডে ফর ফিউচার-এর নৈহাটি শাখার পক্ষ থেকে নৈহাটি স্টেশন চত্বরে প্রতিবাদী জমায়েত করা হয় সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত। পোস্টার-ব্যানার নিয়ে যাঁরা সেই জমায়েতে যোগ দিয়েছিলেন তাঁদের বেশির ভাগই বিভিন্ন বিদ্যালয় ও মহাবিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রী। কয়েক জন শিক্ষক-শিক্ষিকাও ওই জমায়েতে যোগ দেন। ‘পরিবেশ প্রভাব জরিপ ২০২০’-এর খসড়াটি সম্পূর্ণ ভাবে অবিলম্বে বাতিলের দাবি ওঠে ওই জমায়েত থেকে।

Continue Reading

উঃ ২৪ পরগনা

স্বাস্থ্য সংক্রান্ত প্রচুর কড়াকড়ি সঙ্গী করে খুলল দক্ষিণেশ্বর মন্দির

দক্ষিণেশ্বর: চূড়ান্ত কড়াকড়ির মধ্যে শনিবার খুলে গেল দক্ষিণেশ্বরের (Dakshineswar) ভবতারিণী মন্দির। শারীরিক দূরত্ব মেনেই পুণ্যার্থীদের লাইন দিতে দেখা যায় সকাল থেকেই।

লকডাউনের (Lockdown) কারণে দীর্ঘ দু’মাস পর মন্দির খুললেও আগের মতো পরিস্থিতি এখন আর নেই। সব কিছুকে সম্পূর্ণ নতুন ভাবে সাজানো হয়েছে।

মন্দিরের প্রবেশদ্বারের আগে সুরক্ষা ব্যবস্থার আয়োজন করা হয়েছে। দর্শনার্থীদের থার্মাল স্ক্রিনিং করা হচ্ছে। এর পর দিতে হচ্ছে লাইন। বিধি মেনে নির্দিষ্ট দূরত্বে কেটে দেওয়া হয়েছে নীল গণ্ডি। তার মধ্যেই দাঁড়াতে হচ্ছে ভক্তদের।

লাইন কিছুটা এগোনোর পর আবারও চেকিং করা হচ্ছে মন্দিরের তরফ থেকে। জমা রাখা হচ্ছে মোবাইল-সহ যাবতীয় জিনিস।

পুজো দেওয়ার ক্ষেত্রেও জারি হচ্ছে একাধিক নিয়ম। গর্ভগৃহের বাইরেই দিতে হচ্ছে পুজো। পুজোর জন্যে ফুল অর্পণ করা যাচ্ছে না। চরণামৃত দিচ্ছেন না পুরোহিতরা। কেবলমাত্র প্রসাদি মিষ্টি দেওয়া হচ্ছে। পুরোহিত থেকে মন্দিরের নিরাপত্তাকর্মী, সবাই পিপিই কিট পরে রয়েছেন।

মন্দির চত্বরে কাউকে বসতে দেওয়া হচ্ছে না। এমনকি চত্বরে থাকা অন্যান্য ছোটো মন্দিরেও কাউকে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। প্রতিদিন সকাল ৭ টা থেকে সকাল ১০টা ও বিকেল সাড়ে তিনটে থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকবে মন্দির।

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
দঃ ২৪ পরগনা56 mins ago

বারুইপুরে সাড়ে চারশোর বেশি বিজেপি কর্মী যোগ দিলেন তৃণমূলে

দেশ2 hours ago

বিজয়ওয়াড়া কোভিড কেয়ার সেন্টারে আগুন: মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১

দেশ2 hours ago

পরীক্ষাই হয়নি! অমিত শাহের কোভিড রিপোর্ট নিয়ে জল্পনা ওড়াল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক

দেশ3 hours ago

রাজস্থানে উদ্ধার ১১ জন পাক অভিবাসীর মৃতদেহ

দেশ4 hours ago

সাড়ে আট কোটি কৃষকের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ১৭,১০০ কোটি টাকা পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

দেশ7 hours ago

করোনাভাইরাস: ২১ লক্ষ ছাড়াল আক্রান্তের সংখ্যা, বাড়ল সুস্থতার হার

দেশ7 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৬৪৩৯৯, সুস্থ ৫৩৮৭৯

দেশ8 hours ago

অন্ধ্রপ্রদেশের কোভিড কেয়ার সেন্টারে আগুন, মৃত বেড়ে ১১

দেশ7 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৬৪৩৯৯, সুস্থ ৫৩৮৭৯

দেশ1 day ago

বিমান দুর্ঘটনা লাইভ: উদ্ধার ব্ল্যাক বক্স, উদ্ধারকারীদের কোয়ারান্টাইনে যাওয়ার নির্দেশ শৈলজার

দেশ2 days ago

১ সেপ্টেম্বর থেকেই স্কুলের ঘণ্টা বাজানোর কেন্দ্রীয় প্রস্তুতি

কলকাতা1 day ago

ঢাকায় পথদুর্ঘটনায় নিহত পর্বতারোহী, শোকস্তব্ধ কলকাতার পাহাড়প্রেমীরা

প্রযুক্তি3 days ago

হ্যাকার এবং সাইবার অপরাধীরা করোনার সুযোগ নিচ্ছে : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

রাজ্য3 days ago

রাজ্যে প্রথম বার এক দিনে ২৫ হাজার টেস্ট, আক্রান্তের সংখ্যায় রেকর্ড হলেও সুস্থতার হারে স্বস্তি

খেলাধুলো2 days ago

জাতীয় দলের অধিনায়ক-সহ পাঁচ ভারতীয় হকি খেলোয়াড় করোনা পজিটিভ

বিজ্ঞান3 days ago

করোনা রোগীর মৃত্যুর ঝুঁকি কমাতে প্লাজমা থেরাপির কোনো ভূমিকা নেই, বলেছে এইমসের অন্তর্বর্তী বিশ্লেষণ

রবিবারের খবর অনলাইন

কেনাকাটা

কেনাকাটা3 days ago

ঘর ও রান্নাঘরের সরঞ্জাম কিনতে চান? অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ৫০% পর্যন্ত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্ক : অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ঘর আর রান্না ঘরের একাধিক সামগ্রিতে প্রচুর ছাড়। এই সেলে পাওয়া যাচ্ছে ওয়াটার...

কেনাকাটা3 days ago

এই ১০টির মধ্যে আপনার প্রয়োজনীয় প্রোডাক্টটি প্রাইম ডে সেলে কিনতে পারেন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : চলছে অ্যামাজনের প্রাইমডে সেল। প্রচুর সামগ্রীর ওপর রয়েছে অনেক ছাড়। ৬ ও ৭  তারিখ চলবে এই সেল।...

কেনাকাটা4 days ago

শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল, জেনে নিন কোন জিনিসে কত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্: শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল। চলবে ২ দিন। চলতি মাসের ৬ ও ৭ তারিখ থাকছে এই অফার।...

things things
কেনাকাটা1 week ago

করোনা আতঙ্ক? ঘরে বাইরে এই ১০টি জিনিস আপনাকে সুবিধে দেবেই দেবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা পরিস্থিতিতে ঘরে এবং বাইরে নানাবিধ সাবধানতা অবলম্বন করতেই হচ্ছে। আগামী বেশ কয়েক মাস এই নিয়মই অব্যাহত...

কেনাকাটা2 weeks ago

মশার জ্বালায় জেরবার? এই ১৪টি যন্ত্র রুখে দিতে পারে মশাকে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: একে করোনা তায় আবার ডেঙ্গুর প্রকোপ শুরু হয়েছে। এই সময় প্রতি বারই মশার উৎপাত খুবই বাড়ে। এই বারেও...

rakhi rakhi
কেনাকাটা2 weeks ago

লকডাউন! রাখির দারুণ এই উপহারগুলি কিন্তু বাড়ি বসেই কিনতে পারেন

সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে মনের মতো উপহার কেনা একটা বড়ো ঝক্কি। কিন্তু সেই সমস্যা সমাধান করতে পারে অ্যামাজন। অ্যামাজনের...

কেনাকাটা3 weeks ago

অনলাইনে পড়াশুনা চলছে? ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ৪০ হাজার টাকার নীচে ৬টি ল্যাপটপ

ইনটেল প্রসেসর সহ কোন ল্যাপটপ আপনার অনলাইন পড়াশুনার কাজে লাগবে জেনে নিন।

কেনাকাটা3 weeks ago

করোনা-কালে ঘরে রাখতে পারেন ডিজিটাল অক্সিমিটার, এই ১০টির মধ্যে থেকে একটি বেছে নিতে পারেন

শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা বুঝতে সাহায্য করে এই অক্সিমিটার।

কেনাকাটা3 weeks ago

লকডাউনে সামনেই রাখি, কোথা থেকে কিনবেন? অ্যামাজন দিচ্ছে দারুণ গিফট কম্বো অফার

খবরঅনলাইন ডেস্ক : সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে দোকানে গিয়ে রাখি, উপহার কেনা খুবই সমস্যার কথা। কিন্তু তা হলে উপায়...

laptop laptop
কেনাকাটা4 weeks ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : কোভিভ ১৯ অতিমারির প্রকোপে বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন ও ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অনেকেই অফিস থেকে ল্যাপটপ পেয়েছেন।...

নজরে

Click To Expand