বুলবুলের পরে সুন্দরবন জুড়ে ম্যানগ্রোভ লাগাচ্ছে প্রশাসন

0

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়: ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে সুন্দরবন এলাকায় প্রচুর গাছপালার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বহু গাছ উপড়ে গিয়েছে ঝড়ের তাণ্ডবে। তাই দ্রুত নতুন করে গাছ লাগাতে নেমে পড়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা প্রশাসন। এক দিকে যেমন রাস্তার পাশে সোনাঝুড়ি, কৃষ্ণচূড়ার মতো গাছ লাগানোর কাজ শুরু হয়েছে, তেমনই সুন্দরবনের বিস্তীর্ণ এলাকা বিশেষ করে নদীর চর, নদীবাঁধগুলিতে ম্যানগ্রোভ লাগানোর কাজও চলছে।

আয়লা, ফণী কিংবা বুলবুলের মতো প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে সুন্দরবনকে বছরের পর বছর ধরে রক্ষা করছে এই ম্যানগ্রোভ। পরিবেশবিদদের দাবি, কঠিন, দৃঢ় শিকড়ের ম্যানগ্রোভ প্রজাতির গাছগুলি সুন্দরবন বদ্বীপকে ঘিরে রয়েছে। তাই শক্তিশালী বুলবুলের যতটা তাণ্ডব দেখানোর ক্ষমতা ছিল, তা পুরোটা দেখাতে পারেনি। তবুও ম্যানগ্রোভ ধ্বংস করে মেছোভেড়ি তৈরি হচ্ছে। এ সবের বিরুদ্ধে প্রশাসনের তরফ থেকে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানানো হয়েছে।

জেলাশাসক পি উলগা নাথন বলেন, বুলবুলের প্রভাবে জেলা জুড়ে প্রচুর গাছপালার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। সেই ক্ষতি পূরণ করার জন্য গাছ লাগানোর কাজ শুরু করা হয়েছে । ইতিমধ্যেই প্রায় ৫০ হেক্টর জমিতে ম্যানগ্রোভ লাগানো হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় আরও ম্যানগ্রোভ লাগানোর কাজ চলছে। এ বার থেকে জেলা জুড়ে সারা বছর ধরেই এই ম্যানগ্রোভ বসানোর কাজ চলবে।

ইতিমধ্যেই সুন্দরবনের বুলবুল বিধ্বস্ত গোসাবা, ক্যানিং,কুলতলি, জয়নগর, পাথরপ্রতিমা, রায়দিঘি, নামখানা, সাগর, মথুরাপুর, কাকদ্বীপ, বাসন্তী-র মতো ১৩টি ব্লকে জোর কদমে শুরু হয়েছে ম্যানগ্রোভ রোপণের কাজ। একশো দিনের কাজের প্রকল্পে সুন্দরবনের এই সমস্ত ব্লকের মহিলাদের ম্যানগ্রোভ রোপণের কাজে ব্যবহার করছে প্রশাসন। ক্ষতিগ্রস্ত বহু পরিবারের মহিলারা এতে কর্মসংস্থানের সুযোগও পাচ্ছেন।

নদীর পাড়ে ও গ্রামের মধ্যে নার্সারি করে গরান, গর্জন, বাইন, কালবাইন, কাঁকড়া, গোলপাতা-সহ বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ১০ লক্ষ ম্যানগ্রোভের চারা তৈরি করেছেন সুন্দরবনের গ্রামের মহিলারা। এই চারাগুলি বুলবুলের দাপটে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার নদীর চর ও নদীবাঁধে লাগানোর কাজ শুরু হয়েছে। নদীর চর লাগোয়া এলাকায় যত বেশি করে এই গাছ লাগানো হবে তত সুন্দরবন ধবংসের হাত থেকে রেহাই পাবে বলে মনে করছেন পরিবেশবিদরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.