উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, সুন্দরবন: আচমকাই ভেঙে পড়ল উত্তর ২৪ পরগনা ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার মধ্যে সংযোগকারী সুন্দরবনের পিঁপড়েখালি সেতু। শুক্রবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বাসন্তী থানার চড়াবিদ্যা গ্রাম পঞ্চায়েতের ৯ নম্বর কুমড়োখালিতে।

উত্তর ২৪ পরগনার সন্দেশখালি থানার অন্তর্গত রামপুরবাজার সংলগ্ন বিদ্যাধরী নদীর শাখা নদী এই পিঁপড়েখালি। যোগাযোগের পথকে সুগম করতে এই পিঁপড়েখালি নদীর উপর একটি লোহার সেতু তৈরি করা হয়েছিল ১৯৯৯ সালে বাম আমলে। ২০০০ সালে এই সেতুটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনে উপস্থিত ছিলেন তৎকালীন মন্ত্রী গণেশ মণ্ডল, কান্তি গঙ্গোপাধ্যায় এবং তৎকালীন বাসন্তীর বিধায়ক সুভাষ নস্কর।

Loading videos...

রামপুরবাজার সংলগ্ন পিঁপড়েখালি সেতুটি দিয়ে প্রতিদিন পাঁচ হাজারেরও বেশি মানুষ যাতায়াত করেন। এ ছাড়া সাইকেল ও ভ্যান যোগে বহু মানুষ যাতায়াত করেন এই সেতু দিয়ে। আচমকা এই গুরুত্বপূর্ণ সেতুটি ভেঙে পড়ায় চরম অসুবিধায় পড়লো দুই জেলার মানুষ।

সেতু ভেঙে কুমড়োখালি গ্রামের বাসিন্দা অশোক মুখোপাধ্যায় গুরুতর জখম হন। স্থানীয় মানুষ গুরুতর জখম অশোকবাবুকে উদ্ধার করে স্থানীয় সরবেড়িয়া শ্রমজীবী হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভরতি করেন।

এই ঘটনার খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে চলে আসেন বাসন্তী থানার আইসি আবদুর রব খান-সহ ব্লক প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিরা। শনিবার সকালেই ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন রাজ্যের প্রাক্তন সেচমন্ত্রী তথা বাসন্তীর প্রাক্তন বিধায়ক সুভাষ নস্কর। ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে সুভাষবাবু বলেন, “দীর্ঘদিন কোনো মেরামতি না হওয়ার ফলে সেতুটি ভেঙে পড়েছে। এখন নৌকায় করে মানুষজন পারাপার হচ্ছে দেখলাম। মঙ্গলবার ও শনিবার রামপুর বাজারে হাট বসে। বহু দূর-দূরান্ত থেকে মানুষজন মালপত্র নিয়ে এই হাটে আসেন। তবে রামপুর বাজারে মালপত্র নিয়ে যেতে সাধারণ মানুষের খুবই অসুবিধা হচ্ছে। আমি এ বিষয়ে প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলেছি, সেতুটি আবার নতুন করে তৈরি করার কথা হয়েছে”।

তবে আপাতত সাধারণ মানুষের চলাচলের জন্য একটি কাঠের সেতু তৈরির করা হবে বলে প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে।

আরও পড়তে পারেন: হাসপাতালে ভরতির জন্য রোগীর কোভিড পজিটিভ রিপোর্টের দরকার নেই, নতুন নির্দেশিকা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.