দুয়ারে রেশন পেয়ে খুশি গ্রাহকেরা

0

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, জয়নগর: বুধবার থেকে সারা রাজ্যে শুরু হল দুয়ারে রেশন প্রকল্পের পাইলট পর্বের কাজ। এ দিন জয়নগর-১ ব্লকের নির্ধারিত ৫টি পঞ্চায়েতের ৭টি ডিলারের মাধ্যমে এই কাজের সূচনা করা হল।

বিধানসভা ভোটের আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যবাসীর উদ্দেশে বলেছিলেন, তৃণমূল আবার ক্ষমতায় এলে এ বারে সাধারণ মানুষকে আর রেশন দোকানের সামনে লাইনে দাঁড়িয়ে রেশন নিতে হবে না। বাড়ি বাড়ি রেশন পৌঁছে দেবেন ডিলাররা। ক্ষমতায় ফেরার পরই শুরু হয়েছে দুয়ারে রেশন দেওয়ার কাজ।‌

দক্ষিণ ২৪ পরগনার সব ব্লকেই এই পাইলট প্রকল্পের কাজ শুরু হল। আপাতত ছোটো ছোটো ডিলারদের দিয়ে এই কাজের সূচনা করা হল। জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেল,আপাতত সপ্তাহে এক দিন করে পাড়ায় পাড়ায় গিয়ে এই রেশন দেওয়া হবে। এই কাজ করতে গিয়ে কী কী অসুবিধা বা আর ও কী কী পরিকাঠামো লাগবে, সব কিছুই দেখে নিয়ে আগামী ২-৩ মাসের মধ্যে জেলার সব রেশন ডিলারকে দিয়ে এই দুয়ারে রেশন দেওয়ার কাজ করবে রাজ্যের সরকার।

এ দিন জয়নগর-১ ব্লকের ১২টি পঞ্চায়েতের মধ্যে এই পাইলট প্রকল্পের নির্ধারিত ৫টি পঞ্চায়েতের ৭টি ডিলারের মাধ্যমে এই কাজের সূচনা করা হল। জয়নগর-১ বিডিও সত্যজিৎ বিশ্বাস এ দিন নিজে সব ক’টি রেশন ডিলারের কাজ সরেজমিনে প্রত্যক্ষ করেন।

বহড়ু গ্রাম পঞ্চায়েতের আরশেদ মণ্ডল,বামুনগাছি পঞ্চায়েতের প্রিয় গোপাল ও সমরেশ, ঢোষা চন্দনেশ্বর পঞ্চায়েতের গোপালচন্দ্র মণ্ডল ও সত্যেন নস্কর, জাঙ্গালিয়া পঞ্চায়েতের বনমালি মণ্ডল এবং রাজাপুর করাবেগ পঞ্চায়েতের মুক্তাভাম ডিলারেরা এই পাইলট প্রকল্পের কাজ করছেন। এ ভাবে ঘরের কাছে রেশন পেয়ে খুশি রেশন গ্রাহকেরা।

উল্লেখ্য, দুয়ারে রেশন প্রকল্প নিয়ে হাইকোর্টে গিয়েছিলেন কয়েক জন রেশন ডিলার। আরও পড়ুন: ‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্পে স্থগিতাদেশের আর্জি খারিজ হাইকোর্টে

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন